কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,১ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৬ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১৩ সফর, ১৪৪২

মুরাদনগরে মুখ থুবড়ে পড়েছে সাত উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র

নগরপাড় উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মতো এ ভাবে সবকয়টি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে তালা ঝুলানো রয়েছে / ছবি: নতুন কুমিল্লা

মুরাদনগরে চিকিৎসক সংকটে বন্ধ রয়েছে ৭টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে সেবা কার্যক্রম। ৬ লাখ মানুষের চিকিৎসা সেবায় স্বাস্থ্যসেবা ভেস্তে যাচ্ছে চিকিৎসক সংকটের কারণে। ডেপুটেশনের নামে এসব উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়োজিত চিকিৎসকরা ঢাকা-কুমিল্লা শহরে অবস্থান করে নিজেদের প্রাইভেট প্র্যাকটিস অব্যাহত রাখলেও তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

জানা যায়, মুরাদনগর উপজেলায় প্রায় ৬ লাখ মানুষের বাস কিন্তু চিকিৎসক সংকটের কারণে নিশ্চিত হচ্ছে না জনগণের স্বাস্থ্যসেবা। এ উপজেলার বাসিন্দাদের চিকিৎসাসেবার জন্য উপজেলার গুরত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে ৭টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র রয়েছে। কিন্তু চিকিৎসক না থাকায় দীর্ঘদিন ধরে ৭টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রই এখন প্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায় মুখ থুবড়ে পড়ে আছে।

উপজেলার নগরপাড়, শ্রীকাইল, জাহাপুর, রামচন্দ্রপুর, বাঙ্গরা, হায়দরাবাদ, গান্দ্রা এলাকায় অবস্থিত এসব উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে এখন চিকিৎসক শূন্য। ডাক্তার না থাকায় দীর্ঘদিন ধরে ৭টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসা সেবা বন্ধ রয়েছে। এসব উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে প্রতিদিনই সেবাপ্রত্যাশীরা এসে চিকিৎসক না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। প্রয়োজনীয় অর্থের অভাবে শহরে গিয়ে চিকিৎসা নিতে পারছেন না এলাকার হতদরিদ্ররা।

স্থানীয়রা জানায়, ৭টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রেই প্রায় ১ বছরেরও বেশি সময় ধরে চিকিৎসক না আসায় এসব এলাকার লাখ লাখ দরিদ্র জনসাধারণ চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। সরকারি চিকিৎসক ও বরাদ্দকৃত ওষুধের ওপর নির্ভরশীল এসব এলাকার বাসিন্দা দীর্ঘদিন ধরে বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা না পেয়ে এখন চরম বেকায়দায় পড়েছেন।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ এসব উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে মাঝেমধ্যে নতুন নতুন চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া হলেও দু’একদিন হাজিরা দিয়ে কর্মস্থল ত্যাগ করে আর ফিরে আসেন না তারা। ডেপুটেশনের নামে তারা জেলা সদরসহ রাজধানী ঢাকায় বসে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করতে ব্যাস্ত থাকেন।

এ বিষয়ে মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আলী নুর বশির বলেন, ৭টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসক না থাকায় আমরা জনসাধারণকে চাহিদা অনুযায়ী সেবা প্রদান করতে পারছি না। বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বারবার জানিয়েছি।

আরও পড়ুন