কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,১ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৬ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১৩ সফর, ১৪৪২

ঋণ খেলাপির সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে চাই : মুস্তফা কামাল

আ হ ম মুস্তফা কামাল / ফাইল ছবি

দেশের সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকগুলোর সুদের হার একক ডিজিটে অর্থাৎ শতকরা ৯ ভাগে নামিয়ে আনতে সরকার বদ্ধপরিকর বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

তিনি বলেছেন, এরইমধ্যে ২১টি ব্যাংক সুদের হার একক ডিজিটে নামিয়ে এনেছে। বাকি ব্যাংকগুলোও শিগগিরই একক ডিজিটে নামিয়ে আনবে। একই সঙ্গে এই ক্লাসিফাইড ঋণের পরিমাণ আর বাড়বে না। অতীতের ঋণ খেলাপির সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসার কথাও জানান মন্ত্রী।

রবিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মশিউর রহমান রাঙ্গার এ সংক্রান্ত ৭১বিধিতে আনিত নোটিশের জবাব প্রদানকালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। কার্যপ্রণালী বিধির ৭১বিধিতে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ বলেন, ‘সরকারের নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও দেশের ব্যাংকসমূহ ঋণের সুদের হার এখনও এক অংকের ঘরে নেমে আসেনি।’

জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘বক্তব্যটি পুরোপুরি সত্য না হলেও আংশিক সত্য। আমরা সবাই জানি ব্যাংক ঋণে অব্যবসা বান্ধব অতিরিক্ত সুদ হার ধার্য করা হলে দেশের অর্থনীতি সাবলীলভাবে এগিয়ে যেতে পারে না। ব্যবসা বাণিজ্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়, বাধাপ্রাপ্ত হয় আমাদের কর্মসংস্থান। সামষ্টিক অর্থনীতিতে নেতিবাচক অবস্থার সৃষ্টি হয়।’

তিনি আরও জানান, সেই নির্দেশনারই ফলশ্রুতিতে এরইমধ্যে দেশের ২১টি ব্যাংক ঋণের ওপর সুদ হার এক অঙ্কের ঘরে তথা শতকরা ৯ ভাগে নামিয়ে এনেছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক অন্য সকল ব্যাংকগুলোর সাথে আলাপ আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। আশা করা যাচ্ছে বাকি ব্যাংকগুলোও প্রদত্ত ঋণের সুদের হার অল্প সময়ের মধ্যে এক অংকের ঘরে নামিয়ে আনতে সক্ষম হবে। বিষয়টি নিয়ে আমি নিজেও এরই মাঝে সংশ্লিষ্টদের অর্থাৎ সরকারি কর্মকর্তা সরকারি বেসরকারি ব্যাংকসমূহের মালিক এবং ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কয়েক দফা কথা বলেছি। সংশ্লিষ্ট সবাই ইতিবাচক মনোভাব প্রদর্শন করেছেন।

মুস্তফা কামাল বলেন, ব্যাংক ঋণে উচ্চ হারে সুদ আমাদের অর্থনীতিতে দীর্ঘকাল ধরে একটি নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে আসছে। ব্যাংক ঋণের সুদের হার একটি গ্রহণযোগ্য এবং ব্যবসা বান্ধব পর্যায়ে নিয়ে আসার জন্য আমাদের সরকার বদ্ধপরিকর। সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে উইন উইন ফ্যাক্টের হাত ধরে অল্প সময়ের মধ্যে এ বিষয়ে সমাধান পাব।’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ব্যবসা বান্ধব একটি সরকার। আমরা ব্যবসায়ীদের বিপক্ষে না। ব্যবসায়ীরা যদি ব্যবসা না করতে পারে, আমাদের কর্মসংস্থান কোথা থেকে আসবে? দারিদ্র বিমোচন কিভাবে হবে? সেই কাজগুলো করার জন্য তাদের (ব্যাংক মালিকদের) সঙ্গে বার বার বসছি। আমি আশ্বস্ত করছি অতি শিগগিরিই এর ফলপ্রসূ অবস্থা দেখতে পাবেন।’

আরও পড়ুন