কুমিল্লা
সোমবার,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১০ সফর, ১৪৪২

কুমিল্লায় স্কুল কমিটি নিয়ে সংঘর্ষ; অর্ধশতাধিক ঘর-বাড়ি ভাংচুর

কুমিল্লার ব্রাহ্মনপাড়ায় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনকে কেন্দ্রকরে দু’গ্রুপে সংঘর্ষ হয়েছে। অর্ধশতাধিক ঘর-বাড়ি ও দোকান-পাট ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।এতে প্রায় ১ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে অন্তত ২০ জন।

আহতরা হলেন, জিরুইন গ্রামের আঃ রহমানের ছেলে অলি (২৫), জুনাব আলীর ছেলে মাইনুদ্দিন (৩০), মৃত আবদুল হাকিমের ছেলে কাদের মাষ্টার (৬০) ও ডাঃ খোরশেদ আলম (৪৫), আমির হোসেন (৭০), মৃত হাকিমের ছেলে আঃ সামাদ (৭০), ছামাদের ছেলে বাবুল মিয়া (৩৪), ফরিদ মেম্বারের ছেলে সাগর (২৪), আবুল কাশেমের ছেলে তারেক (৩২), বজলু ভ্ইুয়ার ছেলে আঃ হান্নান (৬০), মহসিন (৪০)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গত ১৮ ফেব্রুয়ারী ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলার জিরুইন বহুমুখি উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে জহিরুল ইসলাম ভুইয়া ও আশ্রাফ আলী মেম্বারের নেতৃত্বে দুটি প্যানেল থেকে ১০ জন প্রার্থী অংশগ্রহন করে। সারা দিন ভোট গ্রহণ শেষে বিকালে নির্বাচনের প্রিজাইডিং অফিসার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মতিউল আলম আলী আশ্রাফ মেম্বারের প্যানেলকে বিজয়ী ঘোষনা করে।

এতে জহিরুল ইসলাম ভুইয়ার প্যানেল ফলাফলকে মেনে না নিয়ে পুনরায় ভোট গণনা করার দাবি জানায়। এনিয়ে উভয় প্যানেলের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে সংর্ঘষে রুপ নেয়। এতে উভয় পক্ষের ১১ জন আহত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

এই ব্যাপারে জহিরুল ইসলাম ভুইয়া প্যানেলে প্রার্থী জিরুইন গ্রামের মৃত হাজী ডাঃ শফিকুল ইসলামের ছেলে ডাঃ মাহাবুবুর রহমান স্বপন নতুন কুমিল্লাকে বলেন, অত্যন্ত সুন্দর ভাবে ভোট গ্রহন শেষে প্রিজাইডিং অফিসার কৃষিকর্মকর্তা মোঃ মতিউল আলম তড়িঘরি করে ফলাফল ঘোষণা করেন। এতে আমরা ফলাফলন মেনে না নিয়ে পুনরায় ভোট গণনা করার জন্য বহু অনুরোধ করার করি কিন্ত তিনি তা না করে মোঃ আলী আশ্রাফ মেম্বারের প্যানেলকে বিজয়ী ঘোষনা করে।

এতে বাহির থেকে আমাদের সমর্থকরা ভূয়া ভূয়া বলে মিছিল শুরু করলে আলী আশ্রাফ মেম্বারের লোকজন হামলা করে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী মোঃ বিল্লাল হোসেনের বাড়ী ভাংচুর করে। পরবর্তীতে সাহেবাববাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোস্তফা সারোয়ার খান ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত করেন এবং এটার একটা সুষ্ঠ সমাধান করার আশ^াস প্রদান করেন। কিন্ত গত ১৮ ফেব্রুয়ারী সকাল ৮টা আলী আশ্রাফ মেম্বারের নেতৃত্বে ৪/৫শত লোকজন দেশি অস্ত্র দা,ছেনী, লাঠি নিয়ে হামলা করে এলোপাথারি কুপিয়ে প্রায় ৪৫/৫০ঘর ও দোকান পাট ভাংচুর করে এবং লুটপাট করে। এতে বিভিন্ন মালামালসহ প্রায় ১কোটি টাকার ক্ষতিসাধন হয়।

জিরুইন গ্রামের আবুল বাশার নতুন কুমিল্লাকে বলেন, স্কুলের শিক্ষকরা জহিরুল ইসলাম ভুইয়ার প্যানেলকে সমর্থ করেন এবং ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকরা মিলে মোঃ আলী আশ্রাফ মেম্বারের প্যানেলকে সমর্থন করে। এতে ২৪টি ভোট বেশি পেয়ে ছাত্রছাত্রী সমর্থীত প্যানেলকে প্রিজাইডিং অফিসার বিজয়ী ঘোষনা করে। শিক্ষকদের সমর্থীত জহিরুল ইসলাম ভুইয়া প্যানেল পরাজয়কে মেনে নিতে না পেরে পূর্বের সভাপতি মোঃ জয়দল হোসেনের ভাই আঃ কাদের মাস্টারকে মারধর করে। তারপর ১৯ফেব্রুয়ারী সকালে ডাঃ খোরশেদ আলম তার ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার সময় তাকে ব্যাপক মারধর করে। এতে আলী আশ্রাফ মেম্বারের লোকজন উত্তেজিত হয়ে হামলা করে।

মোঃ আলী আশ্রাফ মেম্বার প্যানেলের প্রার্থী মোঃ জাহাঙ্গীর আলম নতুন কুমিল্লাকে জানান, নির্বাচনের পর ভোট গণনার শেষে মহিলা প্রার্থী খোদেজা বেগম এর এজেন্ট ফরিদ মেম্বার প্রিজাইডিং অফিসারকে পুনরায় ভোট গণনা করার জন্য চাপ সৃষ্টি করে এবং তাকে দ্বিতীয় তলায় এক রকম অবরোধ করে রাখে। পরবর্তীতে পুলিশের সহযোগীতায় প্রিজাইডিং অফিসার অবরোধ অবস্থা থেকে নিচে নেমে এসে ফলাফল ঘোষণা করে। এতে ফরিদ মেম্বার ক্ষব্ধ হয়ে ভুয়া প্রিজাইডিং অফিসার বলে কেন্দ্র থেকে বের হওয়ার পর স্থানীয়দের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে ফরিদ মেম্বাররে নেতৃত্বে উত্তেজিতরা জাহাঙ্গীর আলমের বাড়ি ভাংচুর করে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য উভয় পক্ষকে দাওয়া করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। খবর পেয়ে স্থানীয় সাহেবাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকার আহবান জানিয়ে চলে যায়। পরিস্থিতি এক প্রকার শান্ত হয়।

পরের দিন ১৯ ফেব্রুয়ারী সকাল ডাক্তার মোঃ খোরশেদ আলম তার ব্যবসায় প্রতিষ্ঠা যাওয়ার জন্য রাস্তা আসলে ফরিদ উদ্দিন মেম্বারের লোকজন তাকে ব্যাপক মারধর করে মারাত্মক ভাবে আহত করে। এতে জিরুইন দক্ষিণ পাড়ার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে উত্তর পাড়ার ফরিদ মেম্বারের লোকজনকে ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। এখন নিজেই আতংকের মধ্যে আছি। কখন আবার নিজের বাড়ীতে হামলা হয়। বাচ্চা-কাচ্চারা এবং মহিলারা অতংকের মধ্যে রয়েছে। এমন জানলে আর নির্বাচন করতাম।

এ ব্যাপারে সাহেবাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোস্তফা সারোয়ার খানের সাথে যোগযোগ করা হলে তিনি ঘটনার কথা স্বীকার করে বলেন এই বিষয়ে পরে কথা বলবেন।

সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আবুল হোসেন জানান,জিরুইন বহুমুখি উচ্চ বিদ্যালয়ের নির্বাচন অত্যন্ত স্বচ্ছ ও সুন্দর ভাবে ভোট গ্রহন করা হয়েছে এবং গণনা করা হয়েছে। এতে মোঃ আলী আশ্রাফ মেম্বারের প্যানেল বিজয় লাভ করেছে।

ব্রাহ্মনপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহজাহান কবির বলেন, খবর পেয়ে থানার পুলিশ অফিসাররা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রেখেছে। তবে এখন পর্যন্ত কোন পক্ষ মামলা দায়ের করেনি। মামলা দায়ের করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন