কুমিল্লা
সোমবার,৩০ জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
১৬ মাঘ, ১৪২৯ | ৭ রজব, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

প্রধানমন্ত্রীর ঘরে কুমিল্লার বৃদ্ধা বানতের নেছা

বৃদ্ধ বয়সে ভাংগা কুড়েঘরে কোন রকম দিনপার করছিলেন ৮৩ বছরের বৃদ্ধা বিধবা বানতের নেছা। তিনি ভেবেছিলেন এই ভাংগা ঘরে এভাইে হয়তো জীবনের শেষ সময়টা অতিবাহিত করতে হবে কিন্তু তার সেই ভাবনাকে ভাবনাতেই আটকে দিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে দ্ররিদ্রদের জন্য আলোর দিশারী হয়ে আসে আশ্রয়ন-২ প্রকল্প।

‘‘আশ্রয়নের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার’’ এই স্লোগান নিয়ে যে প্রকল্পের আওতায় সারাদেশে ‘‘জমি আছে ঘর নেই’’ এমন দরিদ্র মানুষদের তালিকা তৈরীকরে তাদের জমিতে সম্পূর্ণ সরকারি খরচে আধা পাকা ঘর ও একটি স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নির্মান করে দেয়া হচ্ছে। সেই সুবিধা ভোগীদের একজন কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের আলীরচর গ্রামের বৃদ্ধা বানতের নেছা।

প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘর পেয়ে তার যেন খুশির অন্ত নেই। তার প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে তিনি আপ্লুত হয়ে পড়েন, তিনি বলেন ‘আগে আমি অনেক কষ্টে দিন কাডাইছি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমারে একটা ঘর কইরা দিছে, একটা টয়লেট কইরা দিছে, অহন আমার আর কোন কষ্ট নাই, আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লাইয়া দোয়া করি আল্লার যেন তারে সুস্থ রাহে (রাখে) আরো অনেক বছর বাচাইয়া রাহে’’।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবদুল হাই খান জানান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় মুরাদনগর উপজেলার ২২টি ইউনিয়নে মোট ৩৭৬টি দরিদ্র পরিবারকে তাদের নিজেদের জমিতে সরকারি খরচে আধা পাকা ঘর ও একটি স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নির্মান করে দেয়া হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিতু মরিয়ম বলেন, আশ্রয়ন-২ জমি আছে ঘর নেই প্রকল্পটি প্রধানমন্ত্রীর একটি বিশেষ প্রকল্প। আমরা এই প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য একটি কমিটি করে মাঠ পর্যায় থেকে যারা ঘর পাবার উপযুক্ত তাদের তালিকা করে প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করছি। গঠিত কমিটির মাধ্যমে উপজেলা প্রশাসন প্রকল্পের সকল কার্যক্রমের প্রতিটি পর্যায়ে সার্বক্ষনিক তদারকি করছে।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ আবদুল কাইয়ুম খসরু বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের সরকার, জনগনের সরকার এবং জনবান্ধব সরকার। দেশের দরিদ্র মানুষের সরকারি খরচে মাথাগোজার ঠাঁই করে দিয়ে তিনি আবারো প্রমান করলেন যে এই সরকার জনগনের কল্যানে প্রান্তিক পর্যায়েও কাজ করে যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন