কুমিল্লা
মঙ্গলবার,১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৬ ফাল্গুন, ১৪২৬ | ২৩ জমাদিউস-সানি, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

কুমিল্লায় স্কুল কমিটি নিয়ে সংঘর্ষে আহত সামাদের মৃত্যু

কুমিল্লায় স্কুল কমিটির নির্বাচনের ফলাফলকে কেন্দ্র করে পতিপক্ষের হামলায় আহত আব্দুস সামাদ মিয়া (৭৪) মারাগেছেন। রবিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। নিহত আব্দুস সামাদ মিয়া ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার জিরুইন গ্রামের ভূইয়া বাড়ীর মৃত আঃ হাকিম ভূইয়ার ছেলে এবং সাবেক ইউপি সদস্য ফরিদ উদ্দিন ভূইয়ার বড় ভাই।

এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

নিহত সামাদ মিয়ার বড় ছেলে বাবুল হোসেন ভূইয়া নতুন কুমিল্লাকে জানান, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি সোমবার আমাদের গ্রামের জিরুইন বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন হয়। দিনব্যাপী ভোট গ্রহন শেষে নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশকে কেন্দ্র করে আলী আশ্রাব মেম্বার, জাহাঙ্গীর আলম, জলিল মাস্টার, মফিজ আলী, রমিজ মেম্বার ও আমাদের গ্রুপের ফরিদ মেম্বার, মাহাবুবুর রহমান স্বপন, ইকবাল হোসেন ঠিকাদার দু’গ্রুপের মধ্যে হট্টোগুল হয়।

এসময় দুই পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় দু’গ্রুপের ২ জন আহত হয়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। পরদিন ১৯ ফেব্রুয়ারি সকালে আবারো দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এসময় জিরুইন উত্তর বাজারের ৯ টি দোকানঘর ও ১৫ টির মত বসতঘর ভাংচুর করা হয় এবং দু’গ্রুপের আরো ৫ জন আহত হয়।

এতে আলী আশ্রাব মেম্বার, জাহাঙ্গীর আলম, জলিল মাস্টার ও মফিজ আলী গ্রুপের হামলায় আমার বাবা (নিহত আব্দুস সামাদ মিয়া) গুরুত্বর আহত হয়। এসময় বাবাসহ অন্যান্য আহতদের প্রথমে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করি। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত ডাক্তার আমার বাবার অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে কুমিল­া মেডিকেল কালেজ (কুমেক) হাসপাতালে প্রেরণ করে এবং কুমেকের কর্তব্যরত ডাক্তার আমার বাবার অবস্থা অবনতি দেখে ঢাকায় পেরণ করে। আমার বাবা ঢাকায় একটি হাসপালে চিকিৎসাধিন অবস্থায় গতকাল রবিবার দুপুরে মারা যায়।

এই ব্যাপারে ব্রাহ্মণপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহজাহান কবির নতুন কুমিল্লাকে জানান, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি জিরুইন বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনের ফলাফলকে কেন্দ্র করে বিজয়ী ও পরাজিত দু’গ্রুপের মধ্যে ১৯ ফেব্রুয়ারি সকালে সংঘর্ষ হয়। খবর পেলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এই ঘটনায় দই পক্ষই মামলা দায়ের করেছে।

গতকাল দুপুরে চিকিৎসাধিন অবস্থায় আব্দুস সামাদ মিয়া মারা গেছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে বলে ওসি মোঃ শাহজাহান কবির জানান।

আরও পড়ুন