কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,১ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৬ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১৩ সফর, ১৪৪২

বৃষ্টিতে জনদুর্ভোগের নগরী কুমিল্লা

নগরীর রানির বাজার রোড থেকে তোলা / ছবি: নতুন কুমিল্লা

ফাল্গুনের মাঝামাঝি সময়ে পশ্চিমা লঘুচাপে কুমিল্লায় দেখা দিয়েছে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি। মঙ্গলবার ভোর থেকে শুরু হয়ে বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) ভোর পর্যন্ত চলে থেমে থেমে মেঘের গর্জন আর বৃষ্টি। ফলে জনদুর্ভোগের নগরীতে পরিণত হয়েছে কুমিল্লা। মহানগরীর অন্যতম ব্যস্ততম সড়কগুলোতে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এ সব সড়কে ছোট বড় গর্ত আর কাদামাটি একাকার হয়ে গেছে। যে কেউ দেখলেই মনে হবে ফসল রোপনের জন্য জমি তৈরী করা হয়েছে।

এতে করে নগরবাসীর দুর্ভোগের শেষ নেই। এসব সড়কে প্রতিনিয়তই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। বর্ষার আগেই নগরজীবনের এমন চিত্র আর বর্ষা এলেই না কি হবে, এনিয়ে চলছে নগর জুড়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা।

এ দিকে সিটি মেয়র মনিরুল হক সাক্কুর বলছেন, এক ঠিকাদার একাধিক সড়কের টেন্ডার পাওয়ায় সংস্কার কাজ শুরু করতে ধীর গতি হচ্ছে।

নগরীর কান্দিরপাড় লিবর্টি চত্বর থেকে তোলা / ছবি: নতুন কুমিল্লা

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, মহানগরীর কান্দিপাড়, ধর্মপুর, ইপিজেড রোড, শাসনগাছা, সুজানগর ও উত্তর চর্থা এলাকায় বিভিন্ন সড়কে ছোট-বড় গর্ত আর কাদামাটি একাকার হয়ে মানুষ চলাচলে অযোগ্য হয়ে পড়েছে। নগরবাসীর একটাই দাবী এ সব সড়ক যেন বর্ষার আগেই সংস্কার করে মানুষের চলাচল উপযোগি করতে সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ উদ্যোগি হবেন।

মো. দ্বীন ইসলাম জাবেদ নামে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের এক ছাত্র নতুন কুমিল্লাকে জানান, নগরীর রানির বাজার থেকে ধর্মপুর পশ্চিম চৌমুহনী পর্যন্ত সড়কটির বেহাল অবস্থা। দীর্ঘদিনেও এ সড়কটির উন্নতি হয়নি। যার ফলে ভিক্টোরিয়া কলেজের হাজার হাজার শিক্ষার্থীসহ প্রতিদিন এই সড়কে যাতায়াত কারীরা চরম দুর্ভোগের স্বীকার হন। বৃষ্টি হলে-তো আর কথাই নেই। খানা-খন্দে আর কাদামাটি একাকার হয়ে ভোগান্তির যেন শেষ নেই। যার কারণে যাত্রী সাধারণদেরকে যানবাহনেও গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া।

নগরীর সুজানগর এলাকার থেকে তোলা / ছবি: নতুন কুমিল্লা

নগরীর সুজানগর এলাকার বাসীন্দা সাংবাদিক দেলোয়ার হোসইন আকাঈদ নতুন কুমিল্লাকে জানান, ২০১১ সালে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আজ পর্যন্ত সুজানগর সড়কে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। যার ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই কাদামাটি একাকার হয়ে সড়কে চলাচল করা দুষ্কর হয়ে পড়ে। এ এলাকার গণমানুষের দাবী বর্ষার আগেই যেন সড়কটি সংস্কার করে সাধারণ মানুষ চলাচলের উপযোগি করে তোলেন সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ।

মো. আবু বকর সিদ্দিক নামে উত্তর চর্থার এক ব্যক্তি নতুন কুমিল্লাকে জানান, কুমিল্লার মানুষের বহুল প্রত্যাশিত সিটি কর্পোরেশন হলেও নগর বাসীর প্রাপ্তির জায়গাটি একেবারেই নগণ্য রয়ে গেছে। সিটির কর বাড়লেও বাড়েনি নাগরীকদের সেবার মান। চর্থা চৌমুহনী থেকে মু্ন্সেফবাড়ি পর্যন্ত সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে অবহেলায় পড়ে আছে। এ ছাড়াও মহিলা কলেজ থেকে হালুয়া পাড়া সড়কের অবস্থাতো আরও নাজুক। আশা করছি বর্ষার আগেই এ সব সড়ক সংস্কারে কর্তৃপক্ষ নজর দেবেন।

নগরীর কান্দিরপাড় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ এলাকা থেকে তোলা / ছবি: নতুন কুমিল্লা

এ বিষয়ে মানবাধিকার কর্মী সাংবাদিক ইয়াসমিন রিমা নতুন কুমিল্লাকে জানান, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন কাগজে-কলমে বাস্তবায়ন হলেও সে হিসেবে সুফলতা পাচ্ছেনা জনগণ। এর কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন নগর পরিকল্পনাবিদরা সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা না করে কর্মপরিকল্পনা করে থাকেন। যার ফলে রাস্তাঘাটসহ নানা সমস্যা ভোগ করতে থাকেন নগরের বাসিন্দারা।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু নতুন কুমিল্লাকে জানান, এ সব সড়কের অধিকাংশ টেন্ডার হয়ে গেছে।

তবে কাজ শুরু করতে ধীরগতি কেন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, একজন ঠিকাদার একাধিক টেন্ডার পেয়েছেন; যার ফলে সংস্কার কাজ সম্পন্ন করতে সময় লাগবে। তবে আগামী বর্ষার আগে সড়কের কাজ শেষ হবে কি না এ বিষয়ে তিনি পরিষ্কার ভাবে কিছু্ই জানাননি।

আরও পড়ুন