কুমিল্লা
সোমবার,২৪ জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১০ মাঘ, ১৪২৮ | ২০ জমাদিউস সানি, ১৪৪৩

২ দিনেও সন্ধান মেলেনি বজ্রপাতে ডুবে যাওয়া মৎস্য কর্মীর

কুমিল্লার চান্দিনায় দুই দিনেও মরদেহের সন্ধান মেলেনি বজ্রপাতে পানিতে ডুবে যাওয়া মৎস কর্মী ইসহাক আলীর (৫৫)। বৃহস্পতিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৫টায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মরদেহের সন্ধানে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এর আগে বুধবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) বিকাল পৌঁনে ৩টার দিকে চান্দিনা পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড বেলাশহর এলাকার আরএনআর সিরামিক ফ্যাক্টরী সংলগ্ন দিঘীতে মাছের খাবার ছিটাতে গিয়ে এ ঘটনায় স্বীকার হন।

ইসহাক আলী সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার বিশ্বাসপাড়া গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে। সে দীর্ঘ ১০ বছর যাবৎ কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার বারপাড়া গ্রামের গোলাম মোহাম্মদ মিয়াজীর ছেলে মৎস্য ব্যবসায়ী মিজান মিয়াজীর অধীনে থেকে কাজ করে আসছেন। চান্দিনার বেলাশহর এলাকার ওই দিঘীটিতেও মাছের চাষ করেছেন মিজান মিয়াজী।

প্রত্যক্ষদর্শী হাজী মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম নতুন কুমিল্লাকে জানান, প্রতিদিনের মতো নৌকায় চড়ে দীঘিতে মাছের খাবার ছিটাচ্ছিলেন ইসহাক। বিকেল পৌঁনে ৩টার দিকে হঠাৎ দেখলাম দীঘিতে বিজলী চমকায়। এর সাথে সাথে সে নৌকা থেকে পানিতে পড়ে যায়। এসময় দিঘীর চারপাশে আরও অনেক মানুষ ছিল। তাৎক্ষনিক ভাবে আমরা দিঘীতে নেমে তাকে খোঁজার চেষ্টা করি। না পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও চান্দিনা থানা পুলিশে খবর দিয়।

চান্দিনা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার (এসও) সফিক উদ্দিন নতুন কুমিল্লাকে জানান, বুধবার বিকাল থেকে আমরা উদ্ধার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। তাকে খুঁজে না পেয়ে চাঁদপুর থেকে ৫ সদস্যের ডুবুরিদল আসে। সন্ধ্যা ৭টা থেকে আজ (বৃহস্পতিবার) বিকাল ৫টা পর্যন্ত মরদেহের সন্ধান পয়নি। দিঘীর গভীরতাও তুলনা মূলক অনেক বেশি। তবে লাশ না পাওয়া পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে এসও সফিক উদ্দিন জানান।

এদিকে, এ ঘটনার পর থেকে দিঘীটির চার পাশে উৎসুক জনতা ভীড় জমাচ্ছে।

আরও পড়ুন