কুমিল্লা
শনিবার,২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১১ আশ্বিন, ১৪২৭ | ৮ সফর, ১৪৪২

আবশেষে কুমেক হাসপাতালে অক্সিজেন চালু

অবশেষে ১ মাস ১২ দিন পর সচল করা হয়েছে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালের সেন্ট্রাল অক্সিজেন/নাইট্রাস পাইপ লাইন। হাসপাতাল ক্যাম্পাসে একটি নতুন ভবনের পাইলিংয়ের কাজ করার সময় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অসতর্কতায় গত ২৩ জানুয়ারি ওই পাইপ লাইনটি ভেঙে বিকল হয়ে যায়। এতে হাসপাতালে অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়।

আজ মঙ্গলবার (৫ মার্চ) লাইনটি সচল করার কাজ সম্পন্ন করা হয়। দীর্ঘদিন ধরে অক্সিজেনের পাইপ লাইন বিকল থাকায় ওই হাসপাতালের সার্জারি, কার্ডিওলজি ও মেডিসিনসহ অন্যান্য বিভাগের রোগীদের চিকিৎসায় সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

সূত্র মতে, হাসপাতাল ক্যাম্পাসে একটি বহুতল ভবন নির্মাণের জন্য মেসার্স কন্সট্রাকশন অ্যান্ড সাপ্লাইয়ার্স ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানি নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ পায়। মাটির ভূ-গর্ভে পি-কাষ্ট পাইল ড্রাইভ করার সময় গত ২৩ জানুয়ারি সেন্ট্রাল অক্সিজেন/নাইট্রাস পাইপ লাইনটি অসাবধানতাবশত লিকেজ হয়ে যায়।

এতে অক্সিজেন সঞ্চালন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় হাসপাতালের সার্জারি, গাইনি ও অর্থোপেডিকসসহ বিভিন্ন বিভাগের সংকটাপন্ন রোগীদের চিকিৎসাসেবা এবং রোগীর অস্ত্রোপচারে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়। এরপর ওই পাইপ লাইনটি মেরামতের জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গণপূর্ত বিভাগ ও অক্সিজেন সরবরাহকারী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান স্পেক্ট্রা ইন্টারন্যাশাল কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফতরে একাধিকবার চিঠি দেয়।

এতে গত কয়েকদিন ধরে চেষ্টার পর লাইনটির মেরামত কাজ সম্পন্ন করা হলে ৪২ দিন পর মঙ্গলবার থেকে হাসপাতালে অক্সিজেন সরবরাহ শুরু হয়। এতদিন সেন্ট্রাল অক্সিজেন বন্ধ থাকায় ছোট অক্সিজেন বোতল কিনে হাসপাতালের বিভিন্ন অপারেশন থিয়েটারে (ওটি) রোগীদের অস্ত্রোপচার চলে আসছিল।

হাসপাতালের পরিচালক ডা. স্বপন কুমার অধিকারী নতুন কুমিল্লাকে বলেন, হাসপাতালের সেন্ট্রাল অক্সিজেন/নাইট্রাস পাইপ লাইন মেরামতের পর মঙ্গলবার (আজ) থেকে পুনরায় চালু হলেও লাইনগুলো পুরনো হওয়ায় হাসপাতালের ভেতরের অনেক জায়গায় লিকেজ হচ্ছে। ফলে অনেক অক্সিজেন অপচয় হচ্ছে।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে ২৬ দিন ধরে দুর্ভোগে রোগীরা

আরও পড়ুন