কুমিল্লা
শুক্রবার,১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ২৯ মুহাররম, ১৪৪২

সদর দক্ষিণে বেলায়েত হত্যার বিচার দাবিতে মানববন্ধন

কুমিল্লা সদর দক্ষিণের লালমাই বাজার সংলগ্ন শিবপুর গ্রামের বেলায়েত হত্যার রহস্য উদঘাটন করে হত্যাকারীদের বিচার ও পরিবারের নিরাপত্তা বিধানের দাবিতে বুধবার (৬ মার্চ) দুপুরে শিবপুর গ্রামে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসি।

মানববন্ধনে বেলায়েতের ভাই দেলোয়ার বলেন, আমার ভাই বেলায়েত হোসেন একজন সহজ সরল ও সৎ লোক ছিলেন। বরুড়া উপজেলার পাঁচথুবী গ্রামের রওশন আলীর ছেলে বহু অপরাধের অপরাধী অন্ধকার জগতের কারবারী ইকবাল মাহমুদ ও সঙ্গীরা আমার ভাইয়ের সাথে সুসম্পর্ক করে তাকে নানা কাজে ব্যবহারের করে ফন্দি আটে। তাদের ওই সব কাজে রাজি না হওয়ায় মামলার বিবাদীরা পরস্পর যোগসাজশে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ২১/৭/১৮ থেকে ২৫/৭/১৮ পর্যন্ত কোন এক সময়ে তাকে বাড়ি থেকে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে হত্যা করে।

এরই মধ্যে আমার ভাইকে সম্ভ্যাব্য সকল জায়গায় খোঁজাখঁজি করি। পরে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার শিবপুর গ্রামের মৃত লাল মিয়ার ছেলে রফিকুল ইসলাম এর কাছে সংবাদ পেয়ে ২৫/৭/১৮ তারিখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আমার ভাই বেলায়েত হোসেনের মরদেহ সনাক্ত করি। তার শরীরে প্রচন্ড রক্তাক্ত আঘাতের চিহ্ন পাই। তার ঘার ভাঙ্গা, মেরুদন্ড, পা এবং গলার হাড় ভাঙ্গা। সমস্ত শরীরে কালো কালো ছাপ। মুখোমন্ডল বিবর্ণ, শরীরের বিভিন্ন স্থানে সূইয়ের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

তাকে শারীরিক ভাবে আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে এতে কোন সন্দেহ নেই। এ ঘটনায় বরুড়া উপজেলার পাঁচথুবী গ্রামের রওশন আরীর ছেলে ইকবাল মাহমুদ, লাকসাম উপজেরার বান্ডা গ্রামের এমদাদ মৌলভীর ছেলে সালাহউদ্দিন, সদর দক্ষিণ থানার শহিদপুর গ্রামের আবু মিয়ার ছেলে আরিফ, একই উপজেলার, দত্তপুর গ্রামের শাহ আলম মিয়ার ছেলে আউয়াল, শহিদপুর গ্রামের মৃত হাকিম আলীর ছেলে আবু মিয়া,শহিদপুর গ্রামের মফিজ মিয়ার ছেলে ইকবালহস অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে কুমিল্লা জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রাট আদালতে গত ৪/২/২০১৯ তারিখে মামলা দায়ের করি।

আমার ভাইয়ের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের কল রেকর্ড থেকে বিভিন্ন কথোপকথনের প্রমান পেয়ে ঘটনাটিতে পূর্বপরিকল্পিত হত্যাকান্ড বলে প্রমান মেলায় এ মামলা দয়ের করি। পরে বেলায়েত হোসেন ও দুই নং বিবাদী লাকসামের বামন্ডা গ্রামের এমদাদ মৌলোভীর ছেলে সালাহউদ্দিনকে জিজ্ঞাস করলে বেলায়েত হোসেনকে হত্যা করেছে মর্মে তারা স্বীকার করে আমাকে (মামলার বাদি) ও কয়েক জন স্বক্ষীকে বেলায়েতের পরিণতি হবে বলে হুমকি দেয়।

বেলায়েতের মৃত্যু নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে সকলের একই পরিণতি হবে বলে হুমকি দেয়। বেলায়েতের মৃত্যু নিয়ে করলে সকলের একই পরিণতি হবে হুমকি দেয়। এমতাবস্থায় আমরা বাদি ও স্বাক্ষীরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এ অবস্থায় আমাদের জান-মাল রক্ষা ও সর্বোপরি আমার ভাইয়ের পরিকল্পিত হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার দাবি করছি। একটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড যেন চাপা পড়ে না থেকে ঘাতকদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করায় এ দাবি রাষ্ট্রের কাছে।

মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বেলায়েতের বাবা আনাল হক, সমাজসেবক হাজী রফিকুল ইসলাম, সামছুল হক, আব্দুল বারেক, জিন্নাতে নেছা, বেলায়েতের ভাই দেলোয়ার প্রমুখ।

আরও পড়ুন