কুমিল্লা
সোমবার,২৮ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ৩ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

কুমিল্লায় এক নদী-বার খাল উদ্ধারে অভিযান শুরু

ডাকাতিয়া নদীর সীমানা পরিদর্শন করেন লাকসাম পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক আবুল খায়ের / ছবি: নতুন কুমিল্লা

দক্ষিণ কুমিল্লার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া এককালের স্রোতস্বিনী ডাকাতিয়া নদী দখল মুক্ত করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এলজিআরডি মন্ত্রী ও লাকসাম-মনোহরগঞ্জ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মোঃ তাজুল ইসলামের নির্দেশনায় লাকসাম উপজেলা ও পৌর প্রশাসনের উদ্যোগে এ অঞ্চলের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ডাকাতিয়া নদী উদ্ধারে সীমানা নির্ধারণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এ অঞ্চলের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ডাকাতিয়া নদী ও ১২টি খালের সীমানা নির্ধারণে লাকসাম উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইসমাইল হোসেনকে আহবায়ক করে উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার ফরিদ আহমেদ ভূঁইয়া, এলজিআরডি সার্ভেয়ার আবদুল জলিল, পৌরসভার নকশাকার শিশির আচার্য ও সার্ভেয়ার মোস্তাক আহমেদকে সদস্য করে একটি টিম গঠন করা হয়। গত ৩ মার্চ থেকে মাসব্যাপী এ কার্যক্রম শুরু হয়।

জানা গেছে, নদীরক্ষায় সরকারের বিশেষ উদ্যোগের অংশ হিসেবে লাকসাম উপজেলার ১২টি খাল ও ডাকাতিয়া নদী দখলমুক্ত করা হচ্ছে। এলাকাবাসীর মতে- এ কার্যক্রম সফল হলে প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষাসহ নদীর অতীত ঐতিহ্য ফিরে আসবে। শ্রীবৃদ্ধি হবে লাকসাম শহরের। পৌরসভার স্থানীয় ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোঃ শাহ আলম জানান, যে কোন মূল্যে নদী দখলমুক্ত করা হবে। লাকসাম পৌরসভা এলাকার মিশ্রী থেকে সাতবাড়িয়া পর্যন্ত নদীর দু’পাড়ে ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হবে। ফলে প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষাসহ শহরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে। আগেরমত নদীতে নানা প্রজাতির দেশীয় মাছও পাওয়া যাবে। নদীতে নৌকা চলবে।

ডাকাতিয়া নদীর নির্ধারিত সীমানার দু’পাড়ে লাল নিশানা টানিয়ে দিচ্ছেন উপজেলা প্রশাসন / ছবি: নতুন কুমিল্লা

সোমবার (১১ মার্চ) লাকসাম পৌরসভা এলাকায় নদীর সীমানা নির্ধারণ করে দু’পাড়ে লাল নিশানা টানিয়ে দেয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, লাকসাম পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক আবুল খায়ের, কুমিল্লার সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান, লাকসাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার একেএম সাইফুল আলম, ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী, সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইসমাইল হোসেন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনোজ কুমার দেসহ কাউন্সিলর ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

দখলমুক্ত প্রসঙ্গে পৌর মেয়র অধ্যাপক আবুল খায়ের নতুন কুমিল্লাকে জানান, নদীরক্ষায় সরকারের বিশেষ উদ্যোগ ও হাইকোর্টের নির্দেশনার আলোকে এবং মাননীয় এলজিআরডি মন্ত্রীর মোঃ তাজুল ইসলামের একান্ত আন্তরিক ইচ্ছায় আমরা অত্রাঞ্চলে ডাকাতিয়া নদী দখলমুক্ত করবো।

তিনি বলেন, ডাকাতিয়াকে কেন্দ্র করেই এককালে লাকসাম বাজার গড়ে ওঠে। কিন্তু কালের আবর্তে নাব্যতা হারানো ডাকাতিয়া দখলদারদের কবলে পড়ে নদীকেন্দ্রিক ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ হয়ে গেছে। সীমানা নির্ধারণ শেষে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করে নদীর অতীত ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনা হবে।

আরও পড়ুন