কুমিল্লা
সোমবার,৩০ জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
১৬ মাঘ, ১৪২৯ | ৭ রজব, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে কেক কাটেনি কুবি প্রশাসন

কেক না কাটা, একাধিক বিভাগের ফুল না দেওয়া, শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পনের সময়েই আলোকসজ্জা খুলে ফেলাসহ দায়সারাভাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস পালন করে বিতর্কের সৃষ্টি করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) প্রশাসন। এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং কুবি শাখা ছাত্রলীগসহ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্ট ছাত্র সংগঠনগুলো।

বিশ্ববিদ্যালয় সুত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে জাতির জনকের জন্মবার্ষিকীতে কেক কাটা হয়নি। তাছাড়া শ্রন্ধাঞ্জলী অর্পন চলাকালীন সময়েই প্রশাসনিক ভবনের আলোকসজ্জা খুলে ফেলা হয়। এদিকে দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু ভাষ্কর্যে শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পন করেনি লোকপ্রশাসন, পরিসংখ্যান এবং ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগ। শ্রদ্ধাঞ্জলি শেষে ভাষ্কর্যের পাদদেশে দাঁড়িয়ে শুধুমাত্র উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরী এবং শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মো. শামিমুল ইসলাম বক্তৃতার মাধ্যমে নামমাত্র আলোচনা সভা করা হয়।

তবে ফুল না দেওয়ার বিষয়ে লোক প্রশাসন বিভাগের সভাপতি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ফুল দেওয়ার বিষয়ে কোন নির্দেশনা পায়নি বলে জানান।

পরিসংখ্যান বিভাগের সভাপতি বলেন, যে ছাত্রকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সে ফুল নিয়ে আসেনি। এদিকে ফুল দিতে গিয়ে নাম ঘোষণা না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু কর্মচারী পরিষদ।

এ বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ ক্ষোভ প্রকাশ করে নতুন কুমিল্লাকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের মত একটি জায়গায় প্রশাসনের এত বড় ভুল কোনভাবেই কাম্য নয়। আমরা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে কেক কাটলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কেক না কাটা প্রশাসনের জন্য লজ্জাজনক।

এ বিষয়ে দিবসটির উদযাপন কমিটির আহবায়ক ড. মো. শামিমুল ইসলাম নতুন কুমিল্লাকে বলেন, এ বছরের অনুষ্ঠানসূচি করার সময়ে আমরা গত বছরের অনুষ্ঠানসূচি অনুসরণ করি। তবুও এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানালেও তারা তা নিষেধ করে গত বছরের ন্যায়ে পালন করার কথা বলে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের নতুন কুমিল্লাকে বলেন, কেক কাটা উচিত ছিল কিন্তু এ বিষয়টি আমাদের ভুল হয়ে গেছে। তবে আলোকসজ্জার বিষয়ে আমার জানা নেই

আরও পড়ুন