কুমিল্লা
সোমবার,২৮ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ৩ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

কুমিল্লায় ড্রেজার দিয়ে ভরাট হচ্ছে সরকারি খাল!

কুমিল্লার মুরাদনগরে অবৈধ ড্রেজার মেশিনে ভরাটের মাধ্যমে দখল হয়ে যাচ্ছে শতাব্দির প্রাচীন কাচারি খাল। এই খালের অস্তিত্ব মুছে দিতে বেপরোয়া হয়ে মাটি ভরাট করে দখল কাজ চালিয়ে যাচ্ছে এলাকার এক শ্রেনির কয়েকটি প্রভাবশালী চক্র। স্থানীয় ইউনিয়ন ভ‚মি অফিসের কর্মকর্তা আজাদ হোসেনের নাকের ডগায় এ দখল কাজ অব্যাহত থাকলেও অদৃশ্য কারনে তিনি নিরব ভূমিকা পালন করছেন। খালটি দখলের শুরুতে স্থানীয় কৃষক ও এলাকার লোকজন বাঁধা প্রদান করলেও প্রভাবশালীদের সামনে বেশীক্ষন টিকে থাকতে পারেনি প্রতিবাদীরা।

এ দিকে কয়েকটিস্পটে খালটি ভরাট করায় ওই এলাকার কয়েক হাজার কৃষক শুষ্ক মৌসমে পানি সংকট এবং বর্ষায় স্থায়ী জলাবদ্ধতার কবলে পড়বে বলে আশংকা করা হচ্ছে। এতে কয়েকশ হেক্টর ফসলি জমির ক্ষয়ক্ষতি হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

সূত্র মতে, উপজেলার আকাবপুর ইউনিয়ন থেকে শুরু হয়ে শ্রীকাইল ইউনিয়নের সোনাকান্দাসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি গ্রামের মেঠোপথ ধরে বয়ে গেছে শতাব্দির প্রাচীন কাচারী খালটি। এ খালের উপর নির্ভরশীল ওই এলাকার কয়েক হাজার কৃষক। বর্ষা মৌসুমে পানি নিষ্কাশন আর শুস্ক মৌসুমে পানি আহরনের এ খালটি এখন দখলের কবলে পড়েছে। একে একে এ খালটি দখল হয়ে যাচ্ছে। এলাকার বেশ কিছু প্রভাবশালী মিলে গত কয়েক বছর যাবত সরকারি ১ নং খাস খতিয়ানভুক্ত এ খালটি আস্তে আস্তে দখল করে নিচ্ছে।

স্থানীয়রা জানায়, সম্প্রতি সোনাকান্দা গ্রামের মৃত মালু মিয়ার ছেলে জুলমত, মৃত লাল মিয়ার ছেলে বাচ্চু মিয়া ও তারু মিয়াসহ প্রায় ৮-৯জনের একটি দখলদার চক্র শ্রীকাইল মৌজার ৬৬৩৬দাগের খালটি ভরাট কাজ শুরু করে। ইউনিয়ন ভূমি অফিস এবং কর্মকর্তাদের সামনে গত ১৫দিনেরও বেশী সময় ধরে প্রকাশ্যে ড্রেজার লাগিয়ে পানি প্রবাহের এ খালটি দখলের কাজ চালিয়ে গেলেও রহস্য জনক কারণে নিরব রয়েছে সহকারী ভ‚মি কর্মকর্তা আজাদ হোসেন। এ নিয়ে স্থানীয় কৃষক ও সচেতন মহলে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

শ্রীকাইল এলাকার ফসলি জমিগুলোর পানি চলাচলের একমাত্র খাল এটি। পানি চলাচলের এ খাল দখল হলে এলাকায় স্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে। খাল ভরাটের শুরুতে স্থানীয় কৃষক ও জমির মালিকরা প্রতিবাদ করে বাঁধা প্রদান করলেও তাদের কোন প্রকার তোয়াক্কা না করে প্রভাবশালী চক্র সরকারি খাল ভরাট কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। ১নং খাস খতিয়ানর্ভুক্ত ৬৬৩৬ হাল দাগে সুদীর্ঘ এ খালটি শতাব্দীর প্রাচীন ‘কাচারি খাল’ নামে পরিচিত। খালটি সোনাকান্দাসহ আশেপাশের গ্রামের কয়েকটি খালের সাথে এর সংযোগ রয়েছে। এই খাল দিয়ে গ্রামের লোকালয়ের পানি নিষ্কাশন নৌকা ও ট্রলার চলাচল করতো।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত জুলমত মিয়া নতুন কুমিল্লাকে বলেন, খালের পাশে আমার জায়গা রয়েছে তাই জমি ভরাট করেছি। ভরাটের বিষয়টি ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা (তহসিলদার) অবগত রয়েছেন বলে তিনি জানান।

ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা আজাদ হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি নতুন কুমিল্লাকে বলেন, যখন খালটি ভরাাট করা হয় ১মাস পূর্বে আমি আমার উর্ধতন কর্মকর্তাকে রিপোর্ট প্রদান করেছিলাম সেখান থেকে এখন পর্যন্ত কোন নির্দেশনা পাইনি তাই দখলকারীদের বিরুদ্ধে আমি কোন ব্যবস্থা নিতে পারিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিতু মরিয়ম নতুন কুমিল্লাকে বলেন, খাল দখলের সাথে যারাই জড়িত থাকুক দখলদারদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এর সাথে ভূমি অফিসের কেউ জড়িত আছে কিনা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন