কুমিল্লা
রবিবার,২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৭ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২১ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English
শিরোনাম:
উত্তর চর্থা সামাজিক যুব ফাউন্ডেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা : তাজুল ইসলাম কুমিল্লায় বিলুপ্তির পথে গ্রামীণ ঐতিহ্য লাঙ্গল-জোয়াল চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী হ ত্যা মামলায় পিতা-পুত্র গ্রেফতার মুরাদনগর সাংবাদিকদের সাথে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতবিনিময় লাকসাম মুদাফফরগঞ্জে ভোক্তা অ‌ধিকার অভিযানে ৫ প্র‌তিষ্ঠান‌কে জরিমানা কুমিল্লায় সন্তান মারা যাওয়ায় বি ষ পা নে বাবার আ ত্ম হ ত্যা কুমিল্লায় ফুটবল খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ছাত্রদের সাথে সং ঘ র্ষ চৌদ্দগ্রামে স্কাইল্যাব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন কুমেক হাসপাতালের মেডিসিন স্কয়ারে জরিমানা

কুমিল্লায় বহু বছর ধরে চলছে মানুষ কেনা-বেচার হাট!

কুমিল্লায় ভোরের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে জড়ো হতে থাকে মানুষ। সকাল ৯টা পর্যন্ত শত শত মানুষের দেখা মেলে। দর কষাকষিতে সরগরম হয়ে উঠে হাটটি। নিত্যপণ্যের মতো একেকজন মানুষ বিক্রি হয় এখানে।

একেকজনের হাতে কোদাল, কাঁধে ঝুঁড়ি-আরও কতো কী। একটু পর পর মালিক-কর্তা গোছের কিছু মানুষ আসছেন-আর এদের কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। কুমিল্লা মহানগরীর কান্দিরপাড়ে দেখা মিলে এমন দৃশ্য।

প্রথম প্রহরে এরা চড়া দামে বিক্রি হলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দাম কমে যায়। প্রতিজনের দাম কাজের ধরণ বুঝে ৪০০ থেকে ৮০০টাকা পর্যন্ত উঠানামা করে। কাজের সময় সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।

শ্রম বিক্রি করতে আসা মানুষগুলোর অধিকাংশই ছিন্নমূল ও হতদরিদ্র। এ অঞ্চলে দিনমজুর মানুষের বড়ই অভাব। তাই বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা শ্রমিকদের কদর কম নয়। বয়স্কদের চেয়ে জোয়ানদের চাহিদা বেশি। তবে অনেককে শরীরের গঠন দেখেও এদের নিয়ে যান। এদের দৈনিক ভাতাও বেশি। এরা একদিনের জন্য বিক্রি হলেও কাজের পারফরম্যান্স দেখাতে পারলে টিকে যান যতোদিন কাজ চলে ততোদিনের জন্য। এ যেন পণ্য বিক্রির হাট।

হাটে আসা শ্রমজীবী মানুষগুলোর নির্দিষ্ট কোনো পেশা নেই। এরা পুরনো ভবন ভাঙা থেকে নতুন ভবন নির্মাণ, মাটি কাটা, কৃষিসহ হরেক রকমের কাজ করে থাকেন। হাটে যারা বিক্রি হন তারা চলে যান কাজে। অবিক্রিতরা মন খারাপ করে ফিরে যান বাসা-বাড়িতে। কুমিল্লা মহানগরীর কান্দিরপাড়ের এই চিত্র চলে আসছে বহু বছর ধরে।

বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) সকালে সরেজমিন গিয়ে হাটে বেশ কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে মালিক-শ্রমিকদের দরদামের হাঁক শোনা যায়।

কথা হয় শ্রমিক আনোয়ার হোসেনের সাথে। এসেছেন দেশের নিলফমারী জেলা থেকে। তিনি নতুন কুমিল্লাকে জানান, বাড়িতে তার ৫ ছেলেমেয়ে রয়েছে। কুমিল্লায় থেকে শ্রমবিক্রি করেন বছর দুয়েক ধরে। তার মাসিক গড় আয় ১৫,০০০ হাজার টাকারও বেশি। যা দিয়ে চলে নিজের ও ছেলেমেয়েদের পড়ালেখাসহ পরিবারে দৈনন্দিন খরচ।

দুলাল মিয়া নামে আরেক শ্রমিকের চোখে-মুখে দেখা গেল উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা। জানতে চাইলে তিনি নতুন কুমিল্লাকে জানান, নদী ভাঙ্গনে তার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পরিবারের অবস্থা তেমন ভালো যাচ্ছে না। তাই তাকে নিয়মিত শ্রম বিক্রি করে বাড়িতে টাকা পাঠাতে হচ্ছে। তিনি পাশের বাড়ির গোলাম মাওলা শিপুর সঙ্গে এ বছর কুমিল্লায় প্রথম আসেন। তেমন কোনো কাজে তার দক্ষতা না থাকায় তিনি রাজমিস্ত্রীর যোগালী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি এসেছেন শরীয়তপুর থেকে।

আরও পড়ুন