কুমিল্লা
রবিবার,৩ মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৯ ফাল্গুন, ১৪৩০ | ২১ শাবান, ১৪৪৫
শিরোনাম:
অভি’কে সিইও হিসেবে অনুমোদন দিলো আইডিআরএ কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন

অগ্নিঝুঁকিতে কুমিল্লা নগরীতে বসবাসকারীরা

কুমিল্লা মহানগর/ ছবি: নতুন কুমিল্লা

কুমিল্লা মহানগরীর আবাসিক ভবন ও শপিং কমপ্লেক্সগুলো রয়েছে অগ্নি ঝুঁকিতে। শপিং কমপ্লেক্সগুলোর ভেতরে-বাইরে আলোর ঝলকানি থাকলেও একবার আগুন লাগলে সেখান থেকে বেরিয়ে আসা বড়মুশকিল। বেশিরভাগ বহুতল ভবনেরই আছে অগ্নি নিরাপত্তা ছাড়পত্র, কিন্তু নেই প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বিভাগ মানুষের নিরাপত্তার দিকটি বিবেচনায় নিয়ে প্রতিটি ভবনে অগ্নি নিরাপত্তার কিছু বিধিমালা নির্ধারণ করে দিলেও তার কোনো প্রয়োগ নেই ভবনগুলোতে।

কুমিল্লায় নতুন ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে সেইসঙ্গে পুরানো ভবনগুলোয় অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন না করায় যেকোনো মুহুর্তে কুমিল্লা ভয়াবহ বিপদের মুখে পড়তে পারে বলে উদ্বেগ জানিয়েছেন কুমিল্লা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বিভাগের পরিচালক।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, অগ্নিনির্বাপণ আইন অনুসারে আগুনের ঝুঁকি এড়াতে মার্কেটে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা থাকার কথা। তাছাড়া ছাদে ওঠার সিঁড়ি, ছাদের দরজা খোলা রাখা, বাইরে বের হওয়ার একাধিক দরজা রাখার ব্যবস্থা করতে হয়। কিন্তু এই আইন কেউ মানছে না।

সূত্র আরো জানায়, বিল্ডিং কোড অনুযায়ী ১০ তলার ওপর কোনো নতুন ভবন নির্মাণ করার ক্ষেত্রে ওই ভবনে আগুন নেভানোর জন্য ফায়ার পাম্পসহ আগুন নেভানোর পর্যাপ্ত ব্যবস্থা থাকতে হয়। কুমিল্লার বেশির ভাগ ভবনই কোনো রকম নিয়ম না মেনেই করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে দায়িত্বশীল সূত্র নতুন কুমিল্লাকে জানিয়েছে, ৬ তলার অধিক উচু ভবন সাধারণত হাইরাইজ ভবন হিসেবে চিহ্নিত। অধিকাংশ উচু ভবনই জেলা সদরে অবস্থিত।

এ ক্ষেত্রে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স কর্তৃপক্ষ কোন নিয়মনীতির তোয়ক্কা না করে উচু ভবন নির্মাণের অনুমতি দেয়ায় শহরসহ জেলার সর্বত্র উচু ভবন নির্মাণের হিড়িক পড়েছে। প্রতিটি হাইরাইজ ভবন নির্মাণের পূর্বে ভবন মালিকদের দুর্ঘটনা এড়ানোর প্রস্তুতির নির্দেশ থাকলেও মালিক পক্ষের এদিকে যেমন খেয়াল নেই, অগ্নিনির্বাপক বাহিনীও এক্ষেত্রে দেখেও না দেখার ভান করছে।

সরেজমিনে ঘুরে পাওয়া তথ্যে আরো জানা যায়, শহরের বিভিন্ন অলি-গলিতে যেভাবে উচু ভবন নির্মিত হচ্ছে, দুর্ঘটনা কবলিত হয়ে কখনো আগুন লাগলে এসব ভবনের কাছে পৌঁছতেও দমকল বাহিনীর মই বা পানিবাহী গাড়িগুলোকে ভীষণ অসুবিধার মুখে পড়তে হবে। শহরের বাগিচাগাঁত্ত, তালপুকুর পাড়, ঠাকুরপাড়া, মনোহরপুর, উজির দিঘীর পাড়, রেইসকোর্স, ঝাউতলা, বাদুরতলা, শিশুমঙ্গল রোড প্রভৃতি এলাকায় রয়েছে এমন বহু সংখ্যক বাড়ি।

কুমিল্লা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক বলেন, শপিং মার্কেটগুলোর অবস্থা ভয়াবহ। কোনো নিয়ম-নীতিই সেখানে মানা হয়নি। আগুন নির্বাপক যন্ত্র নেই, পানি নেই, নেই ফায়ার ফাইটিং সিস্টেম। কোথাও আগুন লাগলে নিজস্ব ফাইটাররা যাতে ফায়ার সার্ভিস আসা পর্যন্ত পরিস্থিতি সামাল দিতে পারে ওই ব্যবস্থাও শপিং মার্কেটগুলোয় নেই। মার্কেটের ট্রান্সফরমার, জেনারেটর, বিদ্যুতের সাবস্টেশন সব এক জায়গায় করা হয়েছে। তবে ভবন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রচলিত নিয়ম মেনেই বহুতল ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন