কুমিল্লা
সোমবার,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১০ সফর, ১৪৪২

নববর্ষকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

নতুন বছরকে বরণ করে নিতে ব্যস্ত সময় পার করছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যরা। বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ এ উপলক্ষে তৈরি করা হয়েছে রং-বেরং এর মুখোশ, বাঁশি, প্লেকার্ড, বাঘ, হাতি, মাছ এবং ফেস্টুন । বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে নেওয়া হয়েছে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ ।

বিশ্ববিদ্যালয়টিতে চারুকলা বিভাগ না থাকায় বর্ষবরণে দায়িত্ব পালন করছে বিভাগগুলোর সমন্বয়ে গঠিত উপ-কমিটি। তবে এবারের আয়োজনে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অক্লান্ত পরিশ্রমই জানান দিচ্ছে এবারের আয়োজনে থাকছে ভিন্ন কিছু ।

ক্যাম্পাস ঘুরে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের গেইট, বৈশাখী চত্বর, বিভিন্ন বিভাগে আল্পনা, গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যকে তুলে ধরার ভিন্ন প্রয়াস সহ বিভিন্ন ইভেন্টের মধ্যে ব্যস্ত সময় পার করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এদিকে বিভিন্ন বিভাগ এবং সংগঠনগুলোর আয়োজনে স্টলগুলোতে থাকছে বাহারী ধরণের দেশীয় পিঠা এবং নাস্তার আয়োজন।

এছাড়া অশুভ শক্তিকে প্রতিরোধের প্রতীক হিসেবে মঙ্গল শোভাযাত্রায় বিভিন্ন ধরনের ব্যানার-ফেস্টুন বানানোর কাজও চলছে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, বৈশাখের প্রথম দিন সকাল ৯টায় মঙ্গল শোভাযাত্রা, বেলা সাড়ে ১২টায় বেলুন ফাটানো, মোরগ লড়াই, হাড়ি ভাঙ্গাসহ বিভিন্ন ধরণের দেশীয় খেলাধুলার ইভেন্ট এবং দুই ধাপে জমকালো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। আর (দ্বিতীয় দিন) ১৫ এপ্রিল বিকেল ৫টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সাংস্কুতিক সংগঠনের আয়োজনে থাকছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এবারের বৈশাখকে বরণ করে নিতে শিক্ষকদের সমন্বয়ে ৪টি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা।

এদিকে কাজের ফাঁকে ফাঁকে গান-গল্প, আড্ডা আর দুষ্টুমিতে জমে উঠছেন বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। কয়েকদিন টানা পরিশ্রমের পরেও কাজকে উপভোগ করছেন বলে জানান তারা।

প্রত্নতত্ত্ব ভিভাগের শিক্ষার্থী নতুন কুমিল্লাকে জানান, ‘ বৈশাখমাস এলেই প্রত্যেক বাঙ্গালির মনে বৈশাখী আমেজ কাজ করে। পুরানো দিনের গ্লানি- হতাশা ঝেড়ে নতুন ভাবে এগিয়ে যেতে ইচ্ছে করে। তাই বিভাগের ভাই-বোনকে সাথে নিয়ে অক্লান্ত পরিশ্রম করে বিশ্ববিদ্যালয়কে নতুন করে সাজাতে এসেছি ।’

উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক মুহাম্মদ সোহরাব উদ্দীন নতুন কুমিল্লাকে বলেন, ‘সকল ধরণের প্রস্তুতি শেষ পর্যাায়ে। বাঙ্গালী সংস্কুতিকে তুলে ধরতে চেষ্টা করে যাচ্ছি। বাংলা অঞ্চলের যে সাহিত্য পত্রগুলো ছিল সেগুলো উপস্থাপন করা হবে। আর প্রতিবছর একদিনের অনুষ্ঠান হলেও এবার দুইদিনের অনুষ্ঠান হবে।’

আরও পড়ুন