কুমিল্লা
রবিবার,১৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ | ৩ শাওয়াল, ১৪৪২

সারাদেশে প্রাণের উৎসবে কুমিল্লার বাঁশির সুর

হোমনা উপজেলায় রয়েছে বাঁশি শিল্পের শত বর্ষের ঐতিহ্য। উপজেলা সদর থেকে দুই কিলোমিটার পশ্চিমে মেঘনা নদীর তীরে বাঁশির গ্রাম হিসেবে খ্যাত শ্রীমদ্দি। সারা বছরই এ গ্রামে বাঁশি তৈরি হলেও বৈশাখ এলেই হাঁসি ফোটে গ্রামের বাঁশির কারিগরদের মুখে।

কুমিল্লার যে বাঁশির সুর বিমোহিত করেছিল উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতজ্ঞ শচীন দেববর্মণকেও। যে সুর শুনে শচীন কর্তা লিখেছিলেন তার কালজয়ী গান ‘বাঁশি শুনে আর কাজ নেই…’।

গ্রামটিতে প্রবেশ করলেই চোখে পড়ে নানা বয়সী মানুষের কর্মব্যস্ততা। শুনতে পাওয়া যায় মনকাড়া মায়াবী বাঁশির সুর। এ ছাড়া জেলার সদর উপজেলার সংরাইশ বৈরাগী পাড়ার লোকজনেরাও সুর্দীঘকাল যাবত বাঁশিতেই জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন।

বছরের বিভিন্ন সময়েই নানা প্রান্তের মেলা ও অন্যান্য আয়োজনকে ঘিরে অল্প বিস্তর ব্যস্ততা থাকলেও বৈশাখকে ঘিরেই কুমিল্লার দুই বাঁশি পল্লীতে ব্যস্ততা বেড়ে যায় কয়েকগুণ। সে ধারাবাহিকতায় এবারও বাংলা নববর্ষে ব্যস্ততা বেড়েছে বৈরাগী পাড়া আর শ্রীমুদ্দির বাঁশির কারিগরদের। ছেলে-বুড়ো, নারী-পুরুষ সবাই মিলে কাজ করে যাচ্ছেন দিন-রাত; তৈরি হচ্ছে সুরেলা বাঁশি।

ভিন্ন ভিন্ন আকার ও বাহারী নামের এসব বাঁশি বিক্রি হয় দেশের প্রায় সব জেলাতেই। এমনকি দেশের গন্ডি ছাড়িয়ে বিদেশের সংস্কৃতিতেও স্থান করে নিয়েছে কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী বাঁশি ও এর সুর।

জানা গেছে, ইউরোপ-আমেরিকাসহ বিশ্বের অন্তত ২৫টি দেশে রপ্তানি হচ্ছে কুমিল্লার বাঁশি। যদিও সুদিন ফেরেনি এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত কারিগরদের।

‘বাঁশির গ্রাম’নামে পরিচিত কুমিল্লার হোমনা উপজেলার শ্রীমুদ্দির ইতিহাস সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রায় দেড় শ বছর আগে কোকিল দাশ বৈরাগী ও দীন বন্ধু নামের দুই ব্যক্তির হাত ধরে এ গ্রামে বাঁশি তৈরির গোড়া পত্তন ঘটে। বর্তমান ভারতের অন্তর্ভুক্ত বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত ছিল তাদের।

সেখান থেকে দেশে ফিরে এখানে বাঁশি তৈরি শুরু করেন তারা। সেই যে শুরু- তার পর আর পেশা বদলাননি এ গ্রামের কেউ। শতাধিক পরিবারের ছোট্ট এ গ্রামটির বয়স্ক থেকে শুরু করে স্কুল শিক্ষার্থী- সবারই সময় কাটে বাঁশি তৈরি করে।

বাঁশির কারিগর রিনা রানী, লিটন পাল, যতীন্দ্র কুমার পালের সাথে কথা বলে জানা যায়, বাঁশি বানাতে পাহাড়ি মুলি বাঁশ শুকিয়ে মাপ অনুযায়ী কেটে আগুনে পোড়ানো লোহা দিয়ে ফুটো করা হয়। এর পর কাঁদামাটি দিয়ে নকশা করে হালকা আগুনে পুড়িয়ে বাঁশির গায়ে কারুকাজ তৈরি করে ধোয়ার পর শুকিয়ে রঙ করা হয়। এসব কাজে বাড়ির নারী সদস্যরা পুরুষ সদস্যদের সাহায্য করে থাকেন।

বাঁশির কারিগর কামাল হোসেন নতুন কুমিল্লাকে, ১৫ ধরনের ছোট বড় বাঁশি তৈরি করেন কারিগররা। এর মধ্যে আঁড়, মোহন, ভীন, নাগিন, বাবু, বেলুন, ক্লাসিক্যাল বাঁশি রয়েছে। প্রকারভেদে প্রতিটি বাঁশি ১০ থেকে ২ শ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়। ঢাকার চকবাজারসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পাইকার এসে এসব বাঁশি কিনে নিয়ে যায়।

শুধু দেশেই নয়, ঢাকা চকবাজার হয়ে এ বাঁশি পৌঁছে যায় যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে।

কুমিল্লার দুই বাঁশিপল্লীর লোকজনের জীবন-যাপনের খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, দেড় শতাধিক পরিবারের জীবিকা নির্বাহের প্রধান উপজীব্য তৈরি বাঁশির চাহিদা এখন ক্রমশই হ্রাসমান। নেই আগের সেই রমরমা অবস্থা। ফলে অনেকেই পেশা বদল করে ফেলেছেন। আর যারা এখনো এ পেশায় আছেন তারাও দিন কাটাচ্ছেন অর্থ কষ্টে। এখন শুধু টিকে থাকার লড়াই চলছে।

আরও পড়ুন