কুমিল্লা
সোমবার,৩ অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১৮ আশ্বিন, ১৪২৯ | ৬ রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

কুমিল্লায় বাধা উপেক্ষা করে সরকারি জায়গায় স্থাপনা নির্মাণ!

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরাা আকুবপুর বাজারে প্রশাসনের বাধা উপেক্ষা করে সরকারি খাস জমির ১শ’ বছরের পুরোনো রাস্তার উপরে স্থাপনা নির্মাণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় প্রশাসনের বাধা প্রদানের পরেও প্রভাবশালী মহল কতৃক চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে পাকা স্থাপনা নির্মাণ কাজ অব্যাহত রাখায় এলাকাবাসীর মাঝে প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

স্থানীয় সুতে, আকুবপুর গ্রামের শাহিদুল, মাসুদ সহ ৫/৬ জনের একটি চক্র আকুবপুর বাজারের ব্রীজ সংলগ্ন আকুবপুর মৌজার ৬৭৯দাগ নাম্বারের ১নং খাস খতিয়ানের সরকারি জায়গায় পুরনো চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে কিছুদিন পূর্বে পাকা স্থাপনা নির্মাণ শুরু করার মাধ্যমে দখলের সূচনা করেন। এরপর স্থানীয়রা বিষয়টি প্রশাসনকে অবহিত করলে মুরাদনগর উপজেলার সাবেক সহকারী কমিশনার (ভূমি) রায়হান মেহেবুব ঘটনাস্থলে গিয়ে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে উক্ত স্থানে সাধারনের প্রবেশ নিষেধ জানিয়ে নোটিস লাগিয়ে দেন। এরপর থেকে সেখানে কাজ বন্ধ থাকলেও গত ১১ই এপ্রিল বৃহস্পতিবার থেকে উক্তস্থানে সহকারী কমিশনারের নোটিস ছিরে ফেলে দিয়ে আবারো পুরোদমে পাকা স্থাপনা নির্মাণ শুরু করে দখলদাররা।

এদিকে স্থানীয় প্রশাসনের লাগানো নোটিস বোর্ড ভেঙ্গে ফেলে দিয়ে খাস জমিতে পাকা স্থাপনা নির্মাণের ফলে দখলদারদের ক্ষমতা ও প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন এলাকাবাসী।

ভোক্তভোগী সুমন চন্দ্র দাস নতুন কুমিল্লাকে বলেন, এটি অনেক পুরনো চলাচলের রাস্তা। প্রতিদিন এই রাস্তা দিয়ে প্রায় ৫০টি পরিবারের লোকজন বাজারের আসেন। এখন এই রাস্তার উপরে দালান নির্মাণ করার কারনে আমরা ১ কিলোমিটার ঘুরে বাজারে যেতে হয়। প্রথম থেকেই আমরা এ বিষয়ে নায়েব (ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা) সাবরে জানাইছি ওনি আইছিলো কয়েকবার কিন্তু কোন লাভ হয় নাই। আমরা গরিব মানুষ বেশি কথা কইলে মারতে আসে। প্রশাসনের কাছে একটাই আবেদন আমাদের ১শত বছরের পুরনো রাস্তা আমাদেরকে উদ্ধার করে দেন।

আকুবপুর ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা রাজীব মিত্রর কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি নতুন কুমিল্লাকে বলেন, প্রথম দফায় কাজ বন্ধ করে দিয়ে ছিলাম, দ্বিতীয় দফায় কাজ শুরু করার পর আমি বাধা প্রদান করেছি কিন্তু তারা আমার কোন বাধা শোনেনি বরং উল্টো আমাকে গাল মন্দ করেছে। এ বিষয়ে আমার উর্ধতন কতৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

নবাগত সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইফুল ইসলাম কমল নতুন কুমিল্লাকে বলেন, বিষয়টি আকুবপুর ইউনিয়নের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা আমাকে মৌখিক ভাবে জানিয়েছে, তাকে লিখিত ভাবে জানাতে বলেছি। কাগজপত্র দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন