কুমিল্লা
শনিবার,৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
২৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ | ৯ রবিউস-সানি, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

কুমিল্লায় কাজ শেষ হওয়ার আগেই ১০ কোটি টাকার ওয়াল ধস!

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন (কুসিক) এলাকার নোয়াগাঁও-বেলতলী সড়কের নোয়াগাঁও রেলগেটের পূর্ব অংশে রিটার্নিং ওয়াল নির্মাণের দুই মাসের মধ্যেই ধসে পার্শ্ববর্তী খালে পড়ে গেছে। এ ঘটনায় সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে সিটি মেয়র মনিরুল হক সাক্কুর নির্দেশে কুসিকের প্রধান প্রকৌশলী শফিকুর রহমানকে প্রধান করে তিনি সদস্যের ওই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

অপর দুই সদস্য হলেন, কুসিকের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শেখ মো. নুরুল্লাহ ও কুসিক ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কাজী মাহবুবুর রহমান।

সিটি কর্পোরেশন সূত্র মতে, কুমিল্লা নগরীর উত্তর চর্থা নওয়াব বাড়ি চৌমুহনী এলাকা থেকে নোয়াগাঁও হয়ে নগরীর বেলতলী এলাকার ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় দশ কোটি টাকা ব্যয়ে ৯ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের রাস্তার পাশে দৃষ্টিনন্দন করে রিটার্নিং ওয়াল নির্মাণের কাজ পায় এমসিএইচএল এবং হক এন্টারপ্রাইজ নামে দুটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।

প্রায় দুই মাস আগে নোয়াগাঁও এলাকায় রিটার্নিং ওয়াল নির্মাণ কাজটি সম্পন্ন করা হয়। কিন্তু এরই মধ্যে বৃহস্পতিবার নোয়াগাঁও রেলগেটের পূর্ব দিকের রাস্তার পাশের রিটার্নিং ওয়ালটি সকাল ৯টার দিকে ধসে খালে পড়ায় পুরো সিটি কর্পোরেশ জুড়ে নগর বাসীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

কুসিকের ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কাজী মাহবুবুর রহমান নতুন কুমিল্লাকে বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। বিষয়টি সিটি করপোরেশনের প্রকৌশল বিভাগ তদারকি করেছে। তাই রিটার্নিং ওয়াল ধসে পড়ার কারণ উদঘাটনসহ পরবর্তী করণীয় নিয়ে তারা সিদ্ধান্ত নেবেন।

কুসিকের ভারপ্রাপ্ত সচিব প্রকৌশলী আবু সায়েম ভূঁইয়া নতুন কুমিল্লাকে বলেন, এমসিএইচএল এবং হক এন্টারপ্রাইজ নামের দুইটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান যৌথভাবে কাজটি পেয়েছে। আমি ঢাকায় আছি। বিষয়টি জেনেছি। ধসেপড়া স্থানটি দেড়শ ফুট হতে পারে। ওই এলাকার কাজটি পুরো কাজের একটি আলাদা অংশ। ধসে পড়া কাজের সঙ্গে পুরো কাজের গুণগত মানের তুলনা করা যাবে না। প্রকল্পের কাজ এখনও চলছে, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে বিল পরিশোধ করা হয়নি। তবে কি কারণে ওয়ালটি ধসে পড়েছে তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মেয়র মো. মনিরুল হক সাক্কু নতুন কুমিল্লাকে বলেন, রিটার্নিং ওয়াল ধসে পড়ার খবর পেয়ে সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশলীরা ওই স্থানটি পরিদর্শন করেছেন। ঘটনা তদন্তের জন্য তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদেরকে এক সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য বলা হয়েছে। এর পর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে মেয়র সাক্কু জানান।

আরও পড়ুন