কুমিল্লা
সোমবার,৩০ জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
১৬ মাঘ, ১৪২৯ | ৭ রজব, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

তিন বছর পর:

কুমিল্লায় চাঞ্চল্যকর সৈয়দ জামাল ও আবুল বাশার হত্যা রহস্য উদঘাটন

কুমিল্লায় আলোচিত সৈয়দ জামাল ও আবুল বাশার হত্যাকাণ্ডের প্রায় তিন বছর পর খুনের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। এ ঘটনায় মূলহোতা আনিছসহ দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনায় যুক্ত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে আনিছ।

কুমিল্লা পিবিআই কার্যালয়ে সোমবার (২৯ এপ্রিল) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান পিবিআই কুমিল্লার ইনচার্জ ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ওসমান গনি।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ওসমান গনি সাংবাদিকদের জানান, ২০১৬ সালের ১৪ জুন কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার বল্লভপুর এলাকার একটি ব্রিক ফিল্ডের পেছন থেকে এক স’মিলের মিস্ত্রি সৈয়দ জামালের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ২৫ দিন পর ৯ জুলাই ওই ব্রিক ফিল্ডের দারোয়ান আবুল বাশারকে তার অফিস কক্ষে গলা কেটে হত্যা করা হয়।

সৈয়দ জামাল হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তার স্ত্রী শাহীনা বেগম বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় পুলিশ তদন্ত শেষে আদালতে চূড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করে। এতে আদালত মামলাটির পুনরায় তদন্তের জন্য পিবিআইকে দায়িত্ব দেয়া হয়।

তিনি আরও জানান, দুটি মামলা গ্রহণের পর গত শনিবার বল্লভপুর গ্রামের মৃত শফিক মিয়ার ছেলে আনিছকে (৪৫) প্রথমে সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে জেলার মুরাদনগর উপজেলার কোম্পানীগঞ্জ এলাকা থেকে আটক করা হয়। তার বিরুদ্ধে হত্যা, মাদক, ছিনতাইসহ ১২টি মামলা রয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে একপর্যায়ে সে জানায় মাদক ব্যবসায় বিরোধের জের ধরে শ্বাসরোধ করে সৈয়দ জামালকে হত্যা করে মরদেহ ওই ব্রিক ফিল্ডের পেছনে ফেলে রাখা হয়।

এ ঘটনা দেখে ফেলায় পরবর্তীতে ব্রিক ফিল্ডের অফিস কক্ষে আনিছ ও তার সহযোগী বল্লভপুর গ্রামের শহীদসহ ৫জন মিলে বাশারকে মাদক সেবন করিয়ে গলা কেটে হত্যা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মতিউর রহমান ও পরিদর্শক কিশোর কুমার হাওলাদারসহ বিভিন্ন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন