কুমিল্লা
সোমবার,২৫ জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১১ মাঘ, ১৪২৭ | ১১ জমাদিউস-সানি, ১৪৪২

৩০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিলো প্রতারক চক্রটি!

মো. বাশার। তিনি আসাদ এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধীকারী। তানভীর নামের একজনের মাধ্যমে তিনি বিদেশি শাটিং ফেব্রিক্স কিনতে রাজি হন। নিজে গাজীপুরে একটি গোডাউনে মালামালও দেখে আসেন। এরপর মহাখালীর ডিওএইচএস এলাকার একটি অফিসে প্রথম কিস্তিতে ১০ লাখ টাকার চেক প্রধান করা হয়।

এর পর রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনে বসে আরও ২০ লাখ ৫০ হাজার টাকা দেন। কিন্তু মালামাল আনতে গিয়ে তিনি জানতে পারেন ওই মালামালের মালিক অন্য কেউ। তানভীরের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়। কথা গুলো বলছিলেন মো. বাশার নিজেই।

তিনি আরও জানান, এভাবে ফাঁদ পাতে একটি প্রতারকচক্র। রাজধানীর মহাখালী ডিওএইচএসে চক্রটির বিলাসবহুল অফিস। চট্টগ্রাম বন্দরেও রয়েছে ভিআইপি অফিস। যেখানে ম্যাগনেটিক কয়েন, ম্যাগনেটিক পিলার, তক্ষক, শাটিং ফেব্রিক্স কাপড় এবং জাহাজের স্ক্র্যাব কম দামে বিক্রির কথা বলে চুক্তি হয়।

এরপর বিদেশি গ্রাহক সংগ্রহ করে দেয়ার কথা বলে সচ্ছল ও ব্যবসায়ীদের প্রতারণার ফাঁদে ফেলে চক্রটি। বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন ও ভুয়া প্রমাণ রিপোর্ট দেখিয়েও চক্রটি বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করে। এ প্রক্রিয়ায় গত ২০ বছরে প্রায় ৩০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্রটি।

৩০ লাখ টাকা হারিয়ে আসাদ এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধীকারী মো. বাশার সর্বশেষ অভিযোগ করেন র‌্যাবের কাছে। এরপর বুধবার রাতে রাজধানীর কাফরুল এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রতারক চক্রটির ১৫ সদস্যকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৪ ব্যাটালিয়ন। এ সময় তাদের কাছ থেকে প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত নথিপত্র ও ৩২টি মোবাইলফোন জব্দ করা হয়।

গ্রেফতাকৃতরা হলেন, নুরুল ইসলাম (৩৭), মিনার মিয়া (৪২), মিজান (৫০), তোফাজ্জল করিম ওরফে তানভীর (৪১), আক্তার ফারুক (৪৩), রাজু (৪১), গোলাম মোস্তফা শাকিল (৪২), সিরাজুল ইসলাম (৪৫), শামিম মিয়া (৪০), অজয় চাকী (৪০), শাকিল খান (৩০), জাহাঙ্গীরুল আবেদীন (৪৫), আজগর আলী হাওলাদার (২৭), হারুন উর রশিদ (৪৭) ও তুষার আহমেদ (২০)।

এ বিষয়ে র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক (সিও) অতিরিক্ত ডিআইজি চৌধুরী মঞ্জুরুল কবীর বলেন, গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে একাধিক প্রতারণার মামলা রয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে চক্রটির প্রতারণার অফিস রয়েছে।

অতিরিক্ত ডিআইজি চৌধুরী মঞ্জুরুল কবীর জানান, প্রতারক চক্রটির মাঠপর্যায়ের কর্মচারীদের বলা হয় এজেন্ট। দেশের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে আর্থিক সচ্ছল ও ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে গ্রাহক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। গ্রাহকদের কাছে বড় বড় ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের এজেন্ট হিসেবে পরিচয় দেন প্রতারকরা। মালামাল বিক্রয়ের লোভনীয় অফার এবং বিভিন্ন কোম্পানি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সংরক্ষিত মালামাল নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত লোকজনের যোগসাজশে নিজেদের মালামাল হিসেবে উপস্থাপন করেন তারা।

স্থানীয় ব্রোকার প্রতারক চক্রের সংক্রিয় সদস্য। টার্গেট গ্রাহকদের মালামাল দেখানোর জন্য এজেন্টরা নিয়ে গেলে স্থানীয় ব্রোকাররা নিজেদের সরকারি দলের উচ্চপদের নেতা অথবা কোনো রাজনৈতিক নেতার ভাই, নিকটাত্মীয় বলে পরিচয় দেয়। ব্রোকার গ্রাহকদের সঙ্গে পরিচয়ের পর মালামাল ক্রয়-বিক্রয়ের বিষয়ে কথা বলে।

আরও পড়ুন