কুমিল্লা
শুক্রবার,১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ২৯ মুহাররম, ১৪৪২

কুমিল্লায় বিক্রি হচ্ছে পানি ময়দা অ্যারারুট মিশ্রিত দুধ!

মানব দেহের পুষ্টি ও শক্তি বৃদ্ধির অন্যতম উপাদান হলো গরুর দুধ। শিশু, নারী-পুরুষ সবারই প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় থাকে দুধ। আর রোজা আসলেই এ গরুর দুধের চাহিদা বেড়ে যায় কয়েক গুণ। কুমিল্লার দুধ বাজারে মনিটরিং না থাকায় কিছু অসাধু ব্যক্তি অধিক লাভের আশায় দুধে ভেজাল মিশিয়ে মানুষের জীবনকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার সোয়াগঞ্জ, চৌয়ারা, বরুড়া, বাগমারা, সদরের পাঁচথুবি, আমড়াতলি এলাকা থেকে গরুর খাঁটি দুধ সংগ্রহ করে বেপারীরা। এরপর দুধে পানি, ময়দা, অ্যারারুট পাউডার ও কেমিকেল মিশিয়ে সাদা ও গাঢ় করে বাজারে এমনকি বাসা-বাড়িতে বিক্রি হচ্ছে স্বাস্থ্য ঝুঁকির ভেজাল দুধ। প্রতি লিটার দুধে ৭০০ গ্রাম করে পানি, ময়দা, অ্যারারুট পাউডার মেশানো হয়।

এভাবেই চলছে কুমিল্লা নগরীতে গরুর দুধের নামে এসব ভেজাল দুধের ক্রয়-বিক্রয়। এইসব ঠকবাজ অসাধু দুধ বিক্রেতাদের প্রতারণা ও ভেজাল রুখবে কে? কেবল রোজাই নয়, বছরের প্রতিদিনই কুমিল্লা নগরীর রাজবাড়ি কম্পাউন্ড, চকবাজার তেরিপট্টি মোড়, শাসনগাছা বাদশা মিয়ার বাজার, পদুয়ার বাজার এলাকায় গরুর দুধের নামে ক্রেতাদের কাছে ভোজল দুধ বিক্রি করে আসছে পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতারা।

রবিবার (১২ মে) কুমিল্লা মহানগরীর রাজগঞ্জ রাজবাড়ি গেইট বাজার, চকবাজার তেরিপট্টি দুধ বাজার ঘুরে দেখা গেছে প্রতি লিটার দুধ ১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

একাধিক দুধ বিক্রেতা জানান, রোজার প্রথমদিন থেকেই দুধের সরবরাহ কমে গেছে। বেশি দামে বেপারীদের কাছ থেকে দুধ কিনতে হচ্ছে বলে বেশি দরে বিক্রি। কিন্তু বাসা-বাড়িতে রোজ দেয় এমন বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা ৬০ থেকে ৭০ টাকা দরেই দুধ বিক্রি করছেন।

ল্যাকটোমিটারের সাহায্যে দুধের ঘনত্ব নির্ণয় বা দুধ খাঁটি কিনা তার অস্তিত্ব পরীক্ষা করার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ থাকলেও এব্যাপারে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের সেনিটেশন বিভাগ উদাসিন। পাশাপাশি ভেজাল দুধের বিরুদ্ধে প্রশাসনের মোবাইলকোর্ট অভিযানও হচ্ছে না।

মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষায় ভেজাল দুধের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখে মানুষ খাঁটি গরুর দুধ দিয়ে সেহেরী বা ইফতার পর্বও সারবে এমন প্রত্যাশা কুমিল্লার রোজাদারসহ সাধারণ মানুষের।

আরও পড়ুন