কুমিল্লা
রবিবার,২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১২ আশ্বিন, ১৪২৭ | ৯ সফর, ১৪৪২

নিষিদ্ধ ৫২ পণ্য নিয়ে আতঙ্কে কুমিল্লার ব্যবসায়ীরা

হাইকোর্টের নির্দেশের পরও কুমিল্লা মহানগর সহ জেলার বিভিন্ন হাট-বাজার থেকে প্রত্যাহার হয়নি নিম্নমানের ৫২ পণ্য। ফলে সারাক্ষণ ভ্রাম্যমাণ আদালত বা বিএসটিআইয়ের অভিযানের আতঙ্কে ভুগছেন ক্ষুদ্র ও মাঝারী ধরনের ব্যবসায়ীরা।

অন্যদিকে সচেতন ক্রেতাদের অনেকেই পণ্যগুলো কিনছে না বলেও জানা গেছে। কিন্তু কোম্পানীগুলো মার্কেটিংয়ের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরা পণ্য বিক্রি অব্যাহত রেখেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সাধারণ মানুষ নামিদামী কোম্পানীগুলোর পণ্য যে নিম্নমানের তা বুঝেই না। তারা আগের মতোই পণ্যগুলো ক্রয় করছে। শনিবার (১৮ মে) কুমিল্লা মহানগর সহ জেলা বিভিন্ন স্থানে সরেজমিন পরিদর্শন করে এ তথ্য জানা গেছে। শুধু কুমিল্লা নয় সারাদেশেই একই অবস্থা বলে মার্কেটিংয়ের দায়িত্বে থাকা কর্তা ব্যক্তিরা জানিয়েছে।

কুমিল্লা আদর্শ সদর, সদর দক্ষিণ, চৌদ্দগ্রাম, নাঙ্গলকোট, লাকসাম, মনোহরগঞ্জ, বরুড়া, লালমাই, চান্দিনা, দাউদকান্দি, বুড়িচং, ব্রহ্মণপাড়া, মুরাদনগর, দেবিদ্বার, হোমনা, তিতাস ও মেঘনা উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে পরিদর্শন দেখা গেছে, ব্যবসায়ীরা পণ্যগুলো নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। আতঙ্কে ভুগছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের।

কারণ পণ্যগুলো বিক্রি করে যে লাভ হবে, ভ্রাম্যমাণ আদালতে তার চেয়ে বেশি জরিমানা করা হবে। অনেকে অভিযোগ করেন, কোম্পানীগুলো পণ্যগুলো নিয়ে কোন সুরাহা না করেই বাজারজাত অব্যাহত রেখেছে।

কুমিল্লা মহানগরীর মুদি ব্যবসায়ী নাছির উদ্দিন নতুন কুমিল্লা.কমকে জানান, সারাদেশের বাজারগুলোতে ব্যবসায়ীদের কয়েকশ কোটি টাকা মুল্যের ওই ৫২ পণ্য রয়েছে। ব্যবসায়ীরা আতঙ্কে রয়েছেন, কখন যে ভ্রাম্যমাণ আদালত এসে জেল-জরিমানা করে। আবারও সচেতন ক্রেতারাও পণ্যগুলো কিনছে না। তবে ব্যবসায়ীরা পণ্যগুলো কি করবে সেটাও কোম্পানীগুলো কিছু বলছে না বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

এ বিষয়ে কুমিল্লা দোকান মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব সানাউল হক নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, কোম্পানীগুলো ডিলার বা এজেন্টদের সাথে যোগাযোগ করা হচ্ছে এবং মহানগরীর সকল দোকান থেকে ৫২ পণ্য দ্রুততম সময়ের মধ্যে উঠিয়ে নিতে মাইকিং এর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়ছে। অন্যথায় দোকান মালিক সমিতি এসব মালামাল নিজ দায়িত্বে উঠিয়ে নিতে বাদ্য হবে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন