কুমিল্লা
সোমবার,২৮ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ৩ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

কুমিল্লায় ২ ভাঙা ব্রিজ দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন

কুমিল্লার বুড়িচংয়ে ৫ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে মিথলমা-আবিদপুরের মাঝামাঝি এলাকায় একটি ব্রিজ ও মনঘাটা এলাকায় একটি কালভার্ট নির্মাণের ২ বছরে ঢালাই খসে পড়েছে। এতে ওই সড়কে চলাচলরত হাজার হাজার মানুষ, স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রী, হাটবাজারগামী ব্যবসায়ী ও যানবাহন ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ- নির্মাণের সময় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করায় অতি অল্প সময়ের মধ্যেই ব্রিজ দুটির ঢালাই খসে পড়ে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের কোরপাই থেকে আবিদপুর পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার সড়কটি গুরত্বপূর্ণ সড়ক। এ সড়ক দিয়ে দেবিদ্বার ও মুরাদনগর উপজেলা সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে দেশের বৃহত্তম সবজি বাজার নিমসারে এলাকার কৃষককে তাদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারজাত করতে প্রতিদিন বিভিন্ন যানবাহনে বাজারে আসতে হয়।

এছাড়া ওই এলাকার মানুষ কুমিল্লা মহানগরীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতের জন্য সড়কটি ব্যবহার করে থাকেন। আবিদপুরে রয়েছে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা।

অন্যদিকে নিমসার কোরপাই এলাকায় রয়েছে ঐতিহ্যবাহী নিমসার জুনাব আলী কলেজ, মহিলা উচ্চ বিদ্যালয়, নিমসার উচ্চ বিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসা। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ও শিক্ষকদের প্রতিনিয়ত এ সড়কের ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজটি দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে।

এলাকার সাধারণ মানুষের অভিযোগ, ব্রিজটিরটির ওপর দিয়ে বিভিন্ন যানবাহনে চলাচলের সময় প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। একইভাবে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরাও দুর্ঘটনার শিকার হয়। নিমসারসহ বিভিন্ন বাজারে কৃষিপণ্য নিয়ে যাতায়াতের সময় কৃষকরা ব্রিজটি পারাপারের সময় অনেক যানবাহন দুর্ঘটনায় পতিত হয়।

রাতে এ সড়কটি দিয়ে চলাচলের সময় সাধারণ মানুষ ও যানবাহনকে ব্যাপক ঝুঁকি নিতে হয়। তাছাড়া এ সড়কটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় বেশিরভাগ মানুষকে বহু দূর ঘুরে বিকল্প রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে হয়।

বুড়িচং উপজেলা প্রকৌশলী জিহান আল তুহিন নতুন কুমিল্লা.কমকে জানান, এই দুটি ব্রিজ দীর্ঘদিন ধরেই ভাঙ্গা অবস্থায় আছে। এল.জি.ই.ডির তালিকায় এ দুটি ব্রিজের কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

বুড়িচং উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মোস্তফা মাইদুল মোর্শেদ মুরাদ নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, এ ব্রিজটির বিষয়ে আমি খোঁজখবর নিয়েছি। ব্রিজটি আমাদের প্রকল্পের মধ্যে নেই।

আরও পড়ুন