কুমিল্লা
সোমবার,২১ অক্টোবর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৬ কার্তিক, ১৪২৬ | ২০ সফর, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

নাঙ্গলকোটে কৃষকদের ধানের টাকা দিচ্ছেন না খাদ্য কর্মকর্তা আনিছ!

কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিছুর রহমানের বিরুদ্ধে সরকার কর্তৃক ধান ক্রয়ের কৃষকদের চেক না দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দাউদ হোসেন চৌধুরীর নিকট লিখিত অভিযোগ করেছেন কৃষকরা।

সূত্র মতে, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে সরকার কর্তৃক তালিকাভুক্ত কৃষকদের কাছ থেকে প্রতি মণ ধান ১হাজার ৪০টাকা দরে ক্রয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। গত ২৩ মে জোড্ডা পূর্ব ইউপির হাসানপুর গ্রামের মৃত ইমান আলীর ছেলে সোলাইমান খাদ্য গুদামে নিয়ে পরীক্ষা করে। গত ২৬মে খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষ তার নিকট হতে বিআর ৬৭জাতের ৫০মণ ধান ক্রয় করে। এসব ধান গুদামজাত করলেও চেকের মাধ্যমে মূল্য পরিষদের প্রতিশ্রুদিয়ে এখন পর্যন্ত পরিষদ করা হয়নি ধানের টাকা।খাদ্য গুদামে টাকার জন্য গেলে গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিছুর রহমান স্থানীয় চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন।

আপরদিকে, জোড্ডা গ্রামের আমির হোসেনের ছেলে কৃষক মাহবুবুল হকের কাছ থেকে খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষ গত ২৩ মে হীরা ১২শ’ ৩ জাতের ৫০মণ ধান পরীক্ষা করে ২৬মে ক্রয় করে গুদামজাত করেন। একই ইউনিয়নের পানকরা গ্রামের মৃত আবু তাহের ভুঁইয়ার ছেলে কৃষক এস আর শাহাবুদ্দিন ভুঁইয়ার কাছ থেকে গত ২৫মে খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষ ২৮জাতের ৭৫মন ধান ক্রয় করে গুদামজাত করেন। তাকেও ধানের মূল্য বাবদ বার-বার তারিখ দিয়েও চেক/টাকা কোনটাই দিচ্ছেনা।

এ বিষয়ে কৃষক সোলাইমান, মাহবুবুল হক ও এস আর শাহাবুদ্দিন নতুন কুমিল্লা.কমকে জানান, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের তালিকা অনুযায়ী সরকার কর্তৃক প্রতিজন কৃষকের কাছ থেকে ১শ’ ২০ কেজি থেকে শুরু করে ৩ টন পর্যন্ত ধান ক্রয় করার নির্দেশ দেয়া হয়। এ অনুযায়ী সকল নিয়ম মোতাবেক খাদ্য গুদামে গিয়ে ধানগুলো দেয়ার পর গুদাম কর্তৃপক্ষ উৎকোচের জন্য ধান বিক্রয়ের চেক দিচ্ছে না। আমাদেরকে দিয়ে স্থানীয় সোনালী ব্যাংকে হিসাব খোলা হয়েছে।

নাঙ্গলকোট উপজেলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আনিছুর রহমান নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মিয়াজী নিষেধ করাতে তাদেরকে ধান ক্রয়ের চেক দেয়া হচ্ছে না।

জোড্ডা পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মিয়াজি নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, আমার ইউনিয়ন থেকে ২০জন কৃষক থেকে ২০টন ধান ক্রয় করা হবে। প্রতিজন থেকে এক টন করে ধান ক্রয় করার জন্য গুদাম কর্তৃপক্ষকে বলেছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার দাউদ হোসেন চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন