কুমিল্লা
শনিবার,৬ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২১ ফাল্গুন, ১৪২৭ | ২১ রজব, ১৪৪২

কুমিল্লায় ঝুঁকিতে ৬৯ এতিম শিশুর জীবন

কুমিল্লার দেবিদ্বারে চারতলাবিশিষ্ট ভবনটির ১৬টি কক্ষের চারপাশের প্রায় দেড়শ জানালার একটিরও গ্লাস নেই। মরিচায় নষ্ট হয়ে পড়েছে গ্রিলও। খসে পড়েছে ছাদের পলেস্তারা। দেয়ালে বড়-বড় ফাটল, অল্প ঘষাতেই প্লাস্টার খসে পড়ছে। সিঁড়ি দিয়ে উঠানামার সময় পুরো ভবনই ঝাঁকুনি দেয়। এমন বেহালদশার মধ্যে নিরূপায় হয়ে আতঙ্কে বাস করে ৬৯ জন এতিম শিশু। এ চিত্র কুমিল্লা দেবিদ্বার সরকারি শিশু পরিবারের।

এত দুরবস্থার সঙ্গে বিশুদ্ধ পানীয়জলের সংকট, অস্বাস্থ্যকর শৌচাগার, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে বসবাস, শিশুদের পাঠদানে অবহেলা, পয়ঃনিষ্কাশনের ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকাসহ নানা সংকটে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে এসব এতিম শিশুর ভবিষ্যৎ। সেই সঙ্গে প্রতিটি কক্ষের দরজা, বেড ও চেয়ার-টেবিল ভাঙা।

শীতের সময় কনকনে ঠাণ্ডা হাওয়ায় অসুস্থ হয়ে পড়ে শিশুরা। কোমলমতি এসব শিশুর জন্য বৃষ্টির দিনগুলো আরও ভয়াবহ। ভাঙা দরজা-জানালা দিয়ে বৃষ্টির পানিতে একাকার হয়ে যায় প্রতিটি কক্ষ। ভবনের পাশে বর্জ্য ও ময়লা পানি নিষ্কাশনের নেই কোনো ড্রেনেজ ব্যবস্থা।

দীর্ঘদিনের ময়লা পানি ও বর্জ্য জমে দুর্গন্ধ ছড়ানোর পাশাপাশি বাড়ছে মশা-মাছির উপদ্রব ও রোগ-জীবাণু। শৌচাগারে যাওয়ার পথে মেঝেতে নোংরা পানি বারো মাস জমে থাকে। পুকুরের উত্তর পাশে পল্লী বিদ্যুতের দুটি খুঁটিই বিপজ্জনকভাবে হেলে আছে। শিশু পরিবারের কর্মচারীরা হেলে পড়া খুঁটির গোড়ায় টিন ও মাটি দিয়ে কোনো রকম আটকিয়ে রেখেছে। তীব্র বাতাসে যে কোনো সময় খুঁটি দুটি পানিতে পড়ে ঘটতে পারে বৈদ্যুতিক দুর্ঘটনা।

উপজেলার গুনাইঘর মৌজায় তিন একর জায়গায় ১৯৯৫ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি ১০০ শয্যার এ শিশু পরিবারটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তৎকালীন সরকারের সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ফজলুর রহমান পটল। শুরুর দিকে বিপুলসংখ্যক শিশু থাকলেও নানা অসঙ্গতির কারণে কমতে থাকে এতিমের সংখ্যা। বর্তমানে ৬৯ জন এতিম শিশু বসবাস করছে ওই শিশু পরিবারে। শিশুরা অভিযোগ করে আমাদের সময়কে বলে, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে সব সময়ই আতঙ্কে থাকি। ঝড় বৃষ্টিতে বা তীব্র বাতাসে ভবনটি ঝাঁকুনি দেয়।

শিশুরা আরও জানান, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার রান্না ও বিতরণ করা হয়। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী খাবারের মেনু ঠিক রাখা হয় না। রান্নার চাল, ডাল ও তরকারি ধোয়া এবং কিচেন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ করানো হয় তাদের দিয়ে। লেখাপড়া করানোর জন্য নির্দিষ্ট সংখ্যক শিক্ষক থাকলেও তারা প্রায় সময়ই থাকেন অনুপস্থিত।

অন্যদিকে, শিশু পরিবারের উত্তর পাশে উপ-তত্ত্বাবধায়ক, সহকারী তত্ত্বাবধায়ক ও স্বাস্থ্য সহকারীর দুইতলা ও একতলাবিশিষ্ট দুটি বাসভবন দীর্ঘদিন পড়ে আছে বেহাল অবস্থায়। ঝুঁকিপূর্ণ ও ব্যবহার অনুপযোগী হওয়ায় রাতে কেউ থাকেন না বাসভবন দুটিতে। এ ছাড়া শিশু পরিবারের মূল ফটকের সামনের সড়কে নেই কোনো স্পিড ব্রেকার। দ্রুতগতির যানবাহনে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় কোনো দুর্ঘটনা।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানায়, শিশু পরিবারটি অনেক সমস্যার মাঝেও জাতীয় স্বাধীনতা ও বিজয় দিবসে কুচকাওয়াজ এবং ডিসপ্লেতে অংশ নিয়ে প্রথম স্থান অর্জন করে আসছে। খাবার ও অন্যান্য বরাদ্দ সঠিকভাবে বণ্টন করা উচিত। ১০০ শয্যার জরাজীর্ণ ভবনটি দ্রুত নির্মাণ করা দরকার। পাশাপাশি আরও আধুনিকায়ন করা জরুরি শিশু পরিবারটিকে।

দেবিদ্বার সরকারি শিশু পরিবারের উপ-তত্ত্বাবধায়ক মাসুদুর রহমান নতুন কুমিল্লা.কম-কে জানান, আমি সম্প্রতি যোগদান করেছি। তবে শুনেছি নতুন ভবনের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। ভেতরের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে নিরসনের ব্যবস্থা করা হবে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন