কুমিল্লা
সোমবার,১৯ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৬ বৈশাখ, ১৪২৮ | ৬ রমজান, ১৪৪২

স্থগিত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়(কুবি) শিক্ষক সমিতির আয়োজনে ২য় অন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার ‘বিতর্ক’ ইভেন্ট নিয়ে তৈরি হওয়া বিতর্ককে ঘিরে প্রতিযোগিতাটি স্থগিত করা হয়েছে। সোমবার (০৮ জুলাই) শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মোঃ শামিমুল ইসলাম বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, ‘অন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা-২০১৯’ প্রতিযোগিতার প্রথম পর্বে ‘বিতর্ক’ ইভেন্টটির পরিচালনা নিয়ে প্রশ্ন তুলে এবং এতে কুমিল্লা ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটিকে (ডিএস) সম্পৃক্ত না করায় বেশ কয়েকটি বিভাগ বিতর্ক প্রতিযোগিতা বর্জন করে। এতে সমালোচনা এবং অস্বচ্ছতার ইঙ্গিত দিয়ে নিয়ম বহির্ভুত বিতর্ক পরিচালনার অভিযোগ তুলে বিতার্কিকরা। যেখানে প্রধান অভিযুক্ত করা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান হোসাইনকে। তিনি ডিবেটিং সোসাইটির অনুষ্ঠান বিষয়ক সম্পাদক হয়েও সংগঠনটির অন্যান্যদের সাথে আলোচনা না করে নিজেই কয়েকজনকে নিয়ে বিতর্ক ইভেন্টটি পরিচালনা করেন বলে অভিযোগ বর্জনকারীদের এবং ডিবেটিং সোসাইটির নেতাদের।

পরিচালনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ এ নেতা ডিবোটিং সোসাইটি কে পাশকাটিয়ে বিতর্ক পরিচালানার সূত্র ধরেই এ সমালোচনার উদ্ভব। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা শাখা ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের নাম ভাঙ্গিয়ে একক ক্ষমতা বলে নিয়ম বহির্ভুত বিতর্ক পরিচালনা করায় প্রতিযোগিতার স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে বিতার্কিকরা। বিতর্ক পরিচালনা ও বিচারকার্যে অসামঞ্জস্যতা এবং বিতর্কের নিয়ম না মানার অভিযোগ এসেছে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে। বিতার্কিকদের মতে, বিচারকার্যে বিচারক রাখা হয়েছে অনভিজ্ঞ। যাকে বিচারক হিসেবে রাখা হয়েছে সে অন্য আরেকটি বিভাগের বিতার্কিক হিসেবে প্রতিযোগিতা করছে।

যা বিতর্কের এবং প্রতিযোগিতার নিয়ম পরিপন্থী। এছাড়াও বিতর্কের ম্যাচ-আপ কোন দলের সাথে কোন দলের তা স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় সামনাসামনি জানাতে হয়। কিন্তু এখানে তা হয়নি। এদিকে অনিয়ম, অসংগতির অভিযোগ এনে বিতর্ক প্রতিযোগিতা বর্জন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক-তৃতীয়াংশ বিভাগ। এ নিয়ে জটিলতা তৈরি হলে শিক্ষক সমিতি সোমবার এবারের প্রতিযোগিতাটি স্থগিত করে।

অন্যদিকে ডিবেটিং সোসাইটির বিরুদ্ধে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি বহাল রাখা, হল তথা রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ত বিতার্কিকদের বিতর্কের সুযোগ না দেওয়া ও কমিটিতে পদ থেকে বঞ্চিত করা, ক্যাম্পাসে বিতর্ককে একমুখি করে রাখা, হলগুলোতে বিতর্ক চালু করতে ব্যর্থ হওয়াসহ নানাবিধ অভিযোগ তুলে শাখা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা।

প্রধান অভিযুক্ত ইমরান হোসাইন বলেন, ‘একটি মহল উদ্দেশ্য নিয়ে এ প্রতিযোগিতাকে ব্যার্থ করতে এমন বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে কথা বলে আমি বিতর্ক ইভেন্টটি পরিচালনা করি। বিতার্কিক দিয়ে বিচার কার্য পরিচালানার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এখানে বিতার্কিক উপস্থাপক হিসেবে ছিলেন।’ অন্যদিকে শিক্ষক না থাকার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘শিক্ষকরা ব্যস্ত থাকায় প্রথম পর্বে সময় দিতে পারেননি। আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে কথা হয়েছে দ্বিতীয় পর্ব থেকে শিক্ষকরা থাকবেন।’

ডিবেটিং সোসাইটির সভাপতি আদনান কবির সৈকত বলেন, ‘ডিএস সফলতার সাথে ১ম অন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছে। এবারও আমরা তা করতে প্রস্তুত। শিক্ষক সমিতির মিটিং এ আমাদের বিতর্ক পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়াও হয়। কিন্তু কোন ধরণের সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত ছাড়াই বিতর্ক পরিচালনার দায়িত্ব নেন ইমরান।

এ নিয়ে আমরা অভিযোগও জানিয়েছি আয়োজকদের কাছে। কিন্তু তার কোন সমাধান না হওয়ায় আনুষ্ঠানিকভাবেই আমরা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ এবং বিতর্ক পরিচালনা বর্জন করি।’ ডিএস এর বিরুদ্ধে অভিযোগকে ভিত্তিহীন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা যোগ্যদের সবময়ই মূল্যয়ন করি। একজন বিতার্কিকের বিতর্ক ব্যতীত অন্য কোন পরিচইয় আমাদের কাছে মুখ্য নয়। ডিএস প্রতিবছরই ডিবেটর সার্চ প্রোগ্রাম, আন্তঃবিভাগ এবং আন্তঃহল প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আসছে।’

অন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার সমন্বয়ক মেহেদী হাসান নতুন কুমিল্লা.কম-কে বলেন, ‘আয়োজকরা আমাকে যেভাবে নির্দেশনা দিয়েছে আমি সেভাবেই কাজ করেছি। তাদের নির্দেশেই এখন স্থগিত রয়েছে। তবে ইতিমধ্যে আমরা বিতর্ক ব্যতীত সব প্রতিযোগিতার প্রথম পর্ব প্রায় সম্পন্ন করে ফেলেছি।’

সার্বিক বিষয়ে শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মো. শামিমুল ইসলাম নতুন কুমিল্লা.কম-কে বলেন, ‘আমরা চেয়েছি একটা সফল আয়োজন হোক। কিন্তু একটা অনাকাঙ্খিত অবস্থা তৈরি হওয়ায় শিক্ষক সমিতির সভায় তা স্থগিতের সিদ্ধান্ত আসে এবং দু’একদিনের ভিতরে সব পক্ষের সাথে আলোচনা করে এ সমস্যার সমাধান করা হবে।’

আরও পড়ুন