কুমিল্লা
সোমবার,২৮ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ৩ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

ঋণ শোধ করা হলো না সৌদি প্রবাসী কুমিল্লার রুহুলের

অসহায় পরিবারের মুখে হাসি ফেরানোর আশায় ১২ বছর আগে সৌদি আরবে পাড়ি জমিয়েছিলেন কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার বাসিন্দা রুহুল আমিন (৩৫)। এরই মধ্যে বিয়েও করেছেন তিনি। চেষ্টা করছিলেন পরিবারের সবার মুখে হাসি ফেরাতে। কিন্তু হঠাৎ একটি সড়ক দুর্ঘটনা তার সব পথ বন্ধ করে দিলো। প্রায় এক মাস চিকিৎসাধীন থাকার পর না ফেরার দেশে চলে গেলেন রুহুল আমিন।

পরিবারের সদস্যদের ওপর চাপিয়ে গেলেন বিরাট ঋণের বোঝা! অনিশ্চয়তার দোলাচলে রেখে গেলেন স্ত্রী ও দু’সন্তানকে।

নিহত রুহুল আমিন জেলার বরুড়া উপজেলার গালিমপুর ইউনিয়নের জোড়পুকুরিয়া গ্রামের (মৌলভী বাড়ি) হাজী মমতাজ উদ্দিনের ছেলে। হাজি মমতাজ উদ্দিনের ৫ ছেলে ও ১ মেয়ের মধ্য রুহুল আমিন তৃতীয়।

সোমবার (২২ জুলাই) রাতে সৌদি আরবে একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহতের চাচাতো ভাই আবুল কাশেম নতুন কুমিল্লা.কমকে জানান, জীবিকার সন্ধানে রুহুল আমিন ১২ বছর আগে সৌদি আরবে গিয়েছিলেন। তবে পরিবারের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সে প্রবাসে পাড়ি দিলে পরিবারের জন্য তেমন কিছু করতে পারেননি।

রুহুল আমিন গত ১১ জুন (মঙ্গলবার) সৌদি আরবের আল বাহার আল আকিতে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। সোমবার রাতে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

আমরা মালিকপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা আমাদের বলেছেন, মরদেহ বাংলাদেশে নিলে তিন লাখ টাকা দেওয়া হবে। আর না নিলে সাত লাখ টাকা দেওয়া হবে।

আবুল কাশেম আরও জানান, নিহত রুহুলের পারিবারিক আর্থিক অবস্থা খুবই খারাপ। সড়ক দুঘর্টনায় আহত হওয়ার পর দেশ থেকেই আমরা ২৭ লাখ টাকা পাঠিয়েছি। বাড়ি-ঘর বন্ধক রেখে, জমি বিক্রি করে টাকা জোগাড় করে তার চিকিৎসার জন্য টাকা পাঠিয়েছি। কিন্তু সে তো আর ফিরলো না।

আরও পড়ুন