কুমিল্লা
সোমবার,১ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১৬ ফাল্গুন, ১৪২৭ | ১৬ রজব, ১৪৪২

সাংবাদিক হত্যার হুমকি: বিচারের দাবিতে কুবিসাস’র অবস্থান কর্মসূচি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) সাংবাদিকদের গুলি করে হত্যার হুমকি ও লাঞ্ছনার ঘটনার চার দিন অতিবাহিত হওয়ার পরেও দোষীদের বিরুদ্ধে দৃশ্যমান কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি।

বুধবার (২৪ জুলাই) সকাল ১১টা থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ভাস্কর্যের পাদদেশে এ অবস্থান কর্মসূচি পালন কর সংগঠনটির সদস্যরা। এ সময় আন্দোলনরত সাংবাদিকরা বিভিন্ন লেখা সংবলিত প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে এ প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করে।

জানা যায়, গত ১৯ জুলাই কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত সংবাদকর্মীরা ছাত্রলীগের এক সংঘর্ষের সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে তাঁদের উদ্দেশ্যে শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শোয়েব হাসান হিমেল এবং সহ-সভাপতি মোঃ রাইহান ওরফে জিসান গুলি করে হত্যার হুমকি প্রদান ও লাঞ্ছনা করেন।

এ ঘটনার পর ৪ দিন অতিবাহিত হলেও অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ যথাযথ কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় এ আন্দোলনের ঘোষণা দেয় এবং শাখা ছাত্রলীগের সকল ইতিবাচক সংবাদ বর্জনের ডাক দিয়েছে সাংবাদিকরা।

এদিকে, গত ২১ জুলাই বিতর্কিত এ দুই নেতার বিরুদ্ধে ২৪ ঘন্টার মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় শাখা ছাত্রলীগ এবং পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য বলা হয়। কিন্তু ঘটনার চার দিন এবং তদন্ত কমিটিকে বেঁধে দেয়া সময়সীমা শেষ হলেও কোন পদক্ষেপ নেয়নি ছাত্রলীগ।

শাখা ছাত্রলীগের একাধিক সূত্র জানায়, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে অভিযুক্ত এ দুই নেতাকে বহিষ্কারের সুপারিশ করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন পাঠিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ।

তবে অভিযুক্ত দুই নেতাকে বাঁচাতে তৎপর হয়ে উঠার অভিযোগ উঠেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের একটি মহলের বিরুদ্ধে। ক্যাম্পাসে মাদকের বিস্তার, শিক্ষার্থী পেটানো, সিনিয়রদের মারধর ও হুমকিসহ নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডের পরেও অভিযুক্তদেরকে কেন্দ্র থেকে বাঁচানোর চেষ্টায় শঙ্কায় পড়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং সাংবাদিকরা। এমনকি শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বড় একটি অংশও এ বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন।

তাদের দাবি, এর আগের কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কাছে মৌখিক অভিযোগ দেয়া হলে কয়েকজন সিনিয়র নেতা এদের একজনের দায়িত্ব নেন। কিন্তু দায়িত্ব নেয়ার এক সপ্তাহ না পেরুতেই আবারও সাংবাদিক লাঞ্ছনা করে বসেন ঐ নেতা। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশ কয়েকটি লিখিত ও মৌখিক অভিযোগও রয়েছে বলে তারা জানান ।

সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মো. জাহিদুল ইসলাম নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকদের গুলি করে হত্যার হুমকির পরেও ছাত্রলীগ বিচারে গড়িমসি করছে। ক্যাম্পাসে আগেও সাংবাদিকদের মারধর ও লাঞ্ছিত করা হয়েছে। তারও কোন বিচার আমরা পাইনি। অতিদ্রুত দৃশ্যমান কোন পদক্ষেপ না নিলে আমরা কঠোর অবস্থানে যেতে বাধ্য হব। সাথে চলমান অবস্থান কর্মসূচি ও শাখা ছাত্রলীগের সকল ইতিবাচক সংবাদ বর্জনও অব্যাহত থাকবে।

এ বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন,‘তদন্তের প্রেক্ষিতে আমরা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কাছে বহিষ্কারের সুপারিশ করেছি। আর সাংবাদিকদের সাথে ভবিষ্যতে কেও এমন আচরণ করলে তার দায়ভার ছাত্রলীগ নিবে না।’

আরও পড়ুন