কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২৩ বৈশাখ, ১৪২৮ | ২৩ রমজান, ১৪৪২

দাউদকান্দিতে সংখ্যালঘু পরিবারের বসতবাড়ি গায়েবের অভিযোগ!

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে নিত্যানন্দ রায়ের বসতঘর ও রান্নাঘরসহ সকল স্থাপনা গায়েবের অভিযোগ উঠেছে মজিবুর রহমান ভুইয়ার বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, নিত্যানন্দ রায় নামে এক সংখ্যা লগু পরিবারের সদস্যরা বাড়িতে অনুপস্থিতির সুযোগে বসতঘর, আসবাবপত্র, রান্নাঘর, টিউবওয়েল, পায়খানা ও গাছ-গাছালিসহ সকল স্থাপনা মজিবুর রহমান ভুইয়ার নেতৃত্বে গায়েব করে দেওয়া হয়েছে।

ছাড়াও বাড়ির ভিটেমাটি কেটে সমান করে দেওয়া হয়। যাতে দেখলে মনে হয় এখানে কখনই কোনো ঘর-বাড়ি ছিল না। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিত্যানন্দ রায়ের পরিবারের সদস্যরা প্রতিবাদ জানালে অভিযুক্ত মজিবুর রহমান নানা ধরনের হুমকি প্রদান করেন। এ ঘটনা দাউদকান্দি মডেল থানায় গত ১০ জুলাই একটি মামলা (নং-১৬) করা হয়েছে।

এ বিষয়ে দাউদকান্দি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: রফিকুল ইসলাম নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, নিত্যানন্দ রায়ের বাড়ির স্থাপনা গায়েবের অভিযোগে মজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে গত ১০ জুলাই নিত্যানন্দ রায়ের ছেলে নির্মল রায় বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। এতে ৫ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। আসামি করা হয়েছে অজ্ঞাত আরও ৯/১০ জনকে। এ মামলার আসামি মজিবুর রহমান বর্তমানে পলাতক রয়েছেন।

মামলার এজাহার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নিত্যানন্দ রায় ও তার ছোট ছেলে নির্মল রায় চাকুরির সুবাদে সোনারগাঁওয়ের বারদীতে থাকেন। বড় ছেলে রিপন রায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর থাকেন। নিত্যানন্দ রায়ের একমাত্র মেয়ের বিয়ে হয়ে গেছে। তার স্ত্রী মারা যাওয়ায় বাড়িতে নিয়মিত কেউ থাকার নাই। তবে প্রায়ই নিত্যানন্দ রায় ও তার সন্তানরা বাড়িতে আসা-যাওয়া করে।

নিত্যানন্দ রায় পরিবার সূত্র নতুন কুমিল্লা.কমকে জানায়, মজিবুর দীর্ঘদিন ধরেই তাদের বাড়ির জমি হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছেন। ইতোমধ্যে কিছু জমি দখলও করেছেন। নিত্যানন্দের কাকাতো ভাই মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায়ের বাড়ির জমির কিছু অংশ দখল করে তাকে ইতোমধ্যে বাড়িছাড়া করেছেন।

এছাড়া নিত্যানন্দের জমিতে বসবাসকারী ছোট ভাই স্বপন রায়কে ভয়ভীতি দেখিয়ে বাড়িছাড়া করা হয়েছে। মজিবুর নিত্যানন্দ রায় ও মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায়ের জমির কিছু অংশ দখল করে ইতোমধ্যে ধর্মীয় স্থাপনা ও দেয়াল নির্মাণ করেছেন।

এসবের প্রতিকার চেয়ে ২০১৪ সালে দাউদকান্দি মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন নিত্যানন্দ রায়ের ছোট ছেলে নির্মল রায়। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসনের উদাসীনতায় মজিবুরের অপতৎপরতা বন্ধ না হওয়ায় ২০১৫ সালে দেওয়ানী আদালতে একটি মামলাও করেন নিত্যানন্দ রায়।

মামলার এজাহার ও এলাকাবাসী সূত্র মতে, দেওয়ানী আদালতে মামলা চলাকালীন সময়েই চলতি বছরের ১০ জুন থেকে ২০ জুনের কোনো এক সময়ে নিত্যানন্দ রায়ের বসতঘর, আসবাবপত্র, রান্নাঘর, টিউবওয়েল, পায়খানা ও গাছগাছালিসহ বাড়ির সকল স্থাপনা গায়েব করে দেওয়া হয়। নিজের ভিটেয় গেলে মজিবুর ও তার অনুসারীরা নিত্যানন্দ রায় পরিবারকে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ধাওয়া করেন। আর কখনও এখানে এলে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন।

মামলার বাদী নির্মল রায় নতুন কুমিল্লা.কমকে জানান, মামলা দায়েরের পর স্থানীয়দের সহযোগিতায় ১২ জুলাই আমরা বাড়িতে একটি ঘর নির্মাণে সক্ষম হই। কিন্তু পলাতক মজিবুর রহমান মামলা তুলে বাড়ি ছাড়তে হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন। আমরা এখন নিরাপত্তাহীনতায় আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছি। আমি এসবের বিচার চাই।

নির্মল আরও বলেন, আমাদের বাড়ি ও জমিজমা উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া। সর্বশেষ ভূমি জরিপের বিএস রেকর্ডেও আমাদের নামে। হীন উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন ও আমাদের এলাকাছাড়া করতে মজিবুর রহমান বাড়ি দখলের পাঁয়তারা করছেন।

মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায় বলেন, ভয়-ভীতি দেখিয়ে আমাকে বাড়িছাড়া করেছেন মজিবুর। তিনি আমার মায়ের শ্মশানও দখল করে ধর্মীয় স্থাপনা করেছেন। বিষয়টি স্থানীয় মেম্বার-চেয়ারম্যানসহ প্রশাসনের কাছে একাধিকবার লিখিত ও মৌখিকভাবে অভিযোগ করেছি। কোনো প্রতিকার পাইনি। মজিবুর এলাকায় প্রভাবশালী বলে তার বিরুদ্ধে কেউ কিছু বলে না। আমার বাড়িতে জমি থাকা সত্বেও একই এলাকায় অন্যের বাড়িতে ভাড়া থাকছি।

উচ্ছেদ ও ভয়ভীতি প্রদর্শণের অভিযোগ অস্বীকার করে মজিবুর রহমান বলেন, নিত্যানন্দ রায় পরিবারের এই জমি আমি ক্রয় করি। যে পরিমাণ জমির টাকা তারা নিয়েছেন সে পরিমাণ জমি সরেজমিনে নেই। অনেকদিন ধরেই আমি বলছি, যা আছে সেটাই বুঝিয়ে দিতে। কিন্তু তারা ব্যাপারটা নিয়ে বসতে রাজি না।

এ ব্যাপারে হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছেও আমি সাহায্য চেয়েছি। কোনো সাহায্য পাইনি। আমার ন্যায্য পাওনা বুঝিয়ে দেয়ার বদলে তারা আমাকে মামলা দিয়ে নাজেলাহ করছেন। একে একে ৫টি মামলা হয়েছে। ১৪৪-এর মামলায় আমি আমার সমস্ত ডকুমেন্ট নিয়ে হাজির করেছি। আমার পক্ষে রায়ও পেয়েছি।

আরও পড়ুন