কুমিল্লা
শনিবার,২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৬ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২১ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English
শিরোনাম:
উত্তর চর্থা সামাজিক যুব ফাউন্ডেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা : তাজুল ইসলাম কুমিল্লায় বিলুপ্তির পথে গ্রামীণ ঐতিহ্য লাঙ্গল-জোয়াল চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী হ ত্যা মামলায় পিতা-পুত্র গ্রেফতার মুরাদনগর সাংবাদিকদের সাথে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতবিনিময় লাকসাম মুদাফফরগঞ্জে ভোক্তা অ‌ধিকার অভিযানে ৫ প্র‌তিষ্ঠান‌কে জরিমানা কুমিল্লায় সন্তান মারা যাওয়ায় বি ষ পা নে বাবার আ ত্ম হ ত্যা কুমিল্লায় ফুটবল খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ছাত্রদের সাথে সং ঘ র্ষ চৌদ্দগ্রামে স্কাইল্যাব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন কুমেক হাসপাতালের মেডিসিন স্কয়ারে জরিমানা

শিক্ষামন্ত্রী বরাবর কুমিল্লা মডার্ণ হাইস্কুল শিক্ষকদের স্বারকলিপি

কুমিল্লা মডার্ণ হাইস্কুলকে ষড়যন্ত্রের হাত থেকে রক্ষা করতে শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্বারকলিপি দিয়েছে কুমিল্লা মডার্ণ স্কুলের শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকবৃন্দ।

রবিবার (১ সেপ্টেম্বর) সকালে কুমিল্লা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে এই স্বারকলিপি প্রদান করা হয়। স্বারকলিপির একটি কপি কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের কাছে তুলে দেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। এছাড়া কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড চেয়াম্যান বরাবর স্বারকলিপি প্রদান করা হয়।

ঐতিহ্যবাহী কুমিল্লা মডার্ণ হাইস্কুলকে পুরনো লুটেরা বাহিনীর ষড়যন্ত্রের হাত থেকে রক্ষা করতে শিক্ষা মন্ত্রনালয় বরাবর স্বারকলিপি দিয়েছে কুমিল্লা মডার্ণ স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকবৃন্দ। রবিবার সকালে এই স্বারকলিপি প্রদান করা হয়।

স্বারকলিপির কপি কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের কাছে তুলে দেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। এছাড়া কুমিল্লা জেলা প্রশাসক ও শিক্ষাবোর্ড চেয়াম্যান বরাবর স্বারকলিপি প্রদান করা হয়।

স্বারকলিপিতে বলা হয় শিক্ষায় একুশে পদক প্রাপ্ত মরহুম এম. এ কুদ্দুস এর একান্ত প্রচেষ্টায় সরকারি লীজকৃত ২.৮৯ একর ভূমির উপর ১৯৬১ সালে মডার্ণ স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯৩ সালে মডার্ণ স্কুলের শিক্ষকদের আবাসিক ভবনে তৎকালীন কমিটি উক্ত সম্পত্তির ৪৯ শতক ভূমির উপর মডার্ণ হাইস্কুল চালু করেন।

তৎকালীন মডার্ণ স্কুলের সাধারন সম্পাদক জনাব আফজল খান এডভোকেট প্রভাব বিস্তার করে নিজে সভাপতি হয়ে পরবর্তিতে অবৈধভাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠাতা দাবী করে নিজের স্ত্রী নার্গিস সুলতানা কে প্রধান শিক্ষক পদে বসিয়ে দিয়ে লুটপাটের রাজত্ব কায়েক করে এবং কোটি কোটি টাকা আত্বসাৎ করেন। সরকারের নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে ৬৫ বছর বয়স পর্যন্ত নার্গিস সুলতানাকে প্রধান শিক্ষক পদে বসিয়ে রেখে আফজল খান পরিবার লুটতরাজ চালিয়ে যান।

২০১৬ সালে শিক্ষার্থী, শিক্ষক এবং অভিভাবকদের ব্যপক আন্দেলনের মুখে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে নার্গিস সুলতানাকে প্রধান শিক্ষকের পদ থেকে অপসারন করে সিনিয়র শিক্ষক থেকে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে মোসা: মমতাজ বেগম কে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেওয়া হয় এবং মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে আফজল খান কমিটিকে ভেঙ্গে দিয়ে বিধি মোতাবেক একটি এডহক কমিটি গঠন করা হয়।

এডহক কমিটি যথাসময়ে নির্বাচনের মাধ্যমে ম্যানেজিং কমিটি গঠন করে অত্যন্ত স্বচ্ছতার সাথে বিদ্যালয় পরিচালনা করেন এবং পরবর্তীতে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়া সত্বেও ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারনে প্রিজাইডিং অফিসার নিয়োগ না দেওয়ায় পুনরায় এড্হক কমিটি গঠন করা হয়। বর্তমান এড্হক কমিটি যথাসময়ে নির্বাচনের সকল কার্যক্রম সম্পন্ন করার পর নির্বাচনের দুই দিন আগে ষড়যন্ত্রকারীরা মামলা দিয়ে নির্বাচন স্থগিত করার মাধ্যমে বিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্থ করছে।

বর্তমান কমিটি দায়িত্ব গ্রহনের সময় বিদ্যালয়ের ফান্ডে ৬৬ লাখ ৫৬ হাজার ৩৯৯ টাকা পেয়েছিল। বর্তমান কমিটি দায়িত্ব গ্রহনের পর প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মাসিক টিউশন ফি দুইশত টাকা, সেশন ফি এক হাজার টাকা কমানো সহ অনুপস্থিতির জরিমানা একশত টাকা ও পূন:ভর্তি ফি বাবদ তিন হাজার আট শত টাকা সম্পূর্নভাবে মওকুফ করেছেন। আপনার সুচিন্তিত মতামত বিবেচনার্থে

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের টিউশিন ফি ও ভর্তির ফি কমিয়ে দিয়েও উন্নয়ন খাতে ১,৮৩,৮৮,৭৬৪/- (এক কোটি তিরাশি লক্ষ আটাশি হাজার সাতশত চৌষট্টি) টাকা ব্যয় করার পরও বর্তমানে ৫,২৭,৭৮,৭২৮/- (পাঁচ কোটি সাতাশ লক্ষ আটাত্তর হাজার সাত শত আটাশ) টাকা বিদ্যালয়ের তহবিলে জমা আছে। একটু খেয়াল করলে উপলব্ধি করবেন দীর্ঘ ২২ (বাইশ) বছর যাবত ক্ষমতা কুক্ষিগত করে আফজল খান কমিটি কত টাকা আত্বসাৎ করেছে!!! ২০১৮ সালের ঔঝঈ পরীক্ষায় ১০০% পাস সহ ৪৫ জন বৃত্তি লাভ করে এবং ২০১৯ সালের ঝঝঈ পরীক্ষায় ৪২৬ জন এ প্লাস পেয়ে কুমিল্লা বোর্ডে শীর্ষস্থান অর্জন করে।

বর্তমানে বিদ্যালয়ে একটি শিক্ষাবান্ধব সুন্দর পরিবেশ বিরাজ করছে। ষড়যন্ত্রকারীরা মন্ত্রণালয়ে মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন অভিযোগের মাধ্যমে এবং হয়রানীমূলক মামলা দিয়ে শিক্ষার পরিবেশ ধ্বংশ করার অপচেষ্টা করে যাচ্ছে। এ সকল দুরভিসন্ধিমূলক কর্মকান্ডের কারনে বিদ্যালয়ে সুষ্ঠু পাঠদান ব্যহত হচ্ছে। বর্তমানে বিদ্যালয়ের তহবিল এবং ভৌত অবকাঠামো অনেক শক্তিশালী।

অতএব, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ পূর্বক ষড়যন্তকারী লুটেরা বাহিনীর হাজ থেকে মডার্ণ হাইস্কুলকে রক্ষা করা হউক।

ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-কর্মচারী ও অভিভাবকের পক্ষে স্বারকলিপি প্রদান করেন আরফানুল হক রিফাত, মোঃ হেলাল উদ্দিন আহমেদ, শিব প্রসাদ রায়, হাসান রফি রাজু, এ.কে.এম. রিয়াজ উদ্দন মুন্না, মোঃ সারোয়ার ফরহাদ পলাশ, ইঞ্জিঃ মিজানুর রহমান, বন্যা দে, এম. এম. আবদুল্লাহ, সৈয়দ সফিকুল হক।

আরও পড়ুন