কুমিল্লা
শুক্রবার,২২ নভেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ | ২৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

খবরের কাগজের সাথে মিতালী

ছোট বেলায় রচনা পড়েছি সংবাদ পত্র জ্ঞানের ভান্ডার। দেশ-বিদেশের নানা রকম খবর জানা যায়। চিত্র-বিচিত্র কত ঘটনা সংবাদপত্রের পাতায় পাতায়। আমাদের ছোট বেলায় সংবাদপত্রই ছিল রাজনীতি, অর্থনীতি, সংস্কৃতি, বিনোদন, খেলাধুলা সব বিষয় সম্পকে নিত্য নতুন খবরের প্রধান উৎস।

বর্তমান ডিজিটাল যুগে অনলাইন যোগাযোগ মাধ্যম আর শতশত টিভি চ্যানেলের দাপটে খবরের কাগজের আবেদন কতটুকু সেই প্রশ্ন উঠতে পারে। তবে সকাল বেলা চায়ের কাপ হাতে নিয়ে খবরের কাগজ পড়ার স্বাদ যে একবার নিয়েছে তাঁকে খবরের কাগজ পড়া থেকে কোনভাবেই নিবৃত্ত করা যাবে না। অফিস-আদালত, বাসা-বাড়ী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান সর্বত্রই এখনো খবরের কাগজের রাজত্ব বিদ্যমান।

যুগের চাহিদা মেটাতে সংবাদপত্রে এসেছে বৈচিত্র্য। বেড়েছে পৃষ্ঠাসংখ্যা, লেখার পরিধি, বিষয়ের কলেবর। বিশেষ দিনে বিশেষ ক্রোড়পত্র, লিটল ম্যাগাজিন। খবরের কাগজের সংখ্যাও বেড়েছে অনেক। দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক। জাতীয় পত্রিকার পাশাপাশি রয়েছে স্থানীয়, জেলা ভিত্তিক পত্রিকা। রয়েছে অনলাইন সংস্করণ।

সব জেলায় এখন একাধিক পত্রিকা প্রকাশিত হয়। স্থানীয় জনগণের কাছে সে সব পত্রিকার কাটতিও বেশ। আমাদের কুমিল্লা, কুমিল্লার কাগজ, রূপসী বাংলা, ডাক প্রতিদিন ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল নতুন কুমিল্লা.কম কুমিল্লায় অনেক জনপ্রিয়। সাপ্তাহিক আমোদ কুমিল্লার সবচেয়ে প্রাচীন পত্রিকা। পাকিস্তান আমলে সম্ভবত ১৯৫৫ সালে পত্রিকাটি প্রথম প্রকাশিতহয়। আজ অবধি পাঠকের আস্থায় রয়েছে পত্রিকাটি।

পত্রিকার সংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি পাঠক সমাজের পছন্দের পরিধি ও বেড়েছে। যার যার আদর্শ, দৃষ্টিভঙ্গী, বিশ্বাস অনুযায়ী সংবাদ পত্র পড়ার সুযোগও বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে বিত্তশালীদের স্বাধীনতাও বেড়েছে নিজেদের কণ্ঠস্বর হিসেবে সংবাদ পত্রকে ব্যবহার করার।

তবে দলীয় মুখপাত্র হিসেবে পরিচিত সংবাদপত্রের চাহিদা আজ আর নেই বললেই চলে।

খবরের কাগজ এক সময় বিনোদনের অন্যতম মাধ্যমও ছিল। কেননা তখন বিটিভিই ছিল একমাত্র ইলেকট্রনিকস মিডিয়া। মনে পড়ে বিটিভিতে মাসে ১টি বাংলা ছায়াছবি দেখানো হতো। সেই ছবি দেখার জন্য দীর্ঘ ১ মাস অপেক্ষা করতাম। বিদ্যুৎ না থাকলে তা ও দেখার সৌভাগ্য হতো না। সবার বাসায় যাদুর বাক্সটি ছিল ও না। তাই আশেপাশের কয়েক বাড়ীর সবাই জড়ো হতো ছায়াছবি দেখার জন্য।

বিনোদনের আরেকটি মাধ্যম ছিল রেডিও। রেডিওতে প্রচারিত শুক্রবারের নাটক প্রায়ই শুনতাম। বিকাল ৩ টায় নাটক প্রচার করা হতো। সম্ভবত এখনো প্রচার করা হয়। সন্ধ্যা ৭ টায় প্রচারিত হতো গানের অনুষ্ঠান দুর্বার। ঝিনু দাদীর প্রিয় অনুষ্ঠান। ৭টা বাজলেই রেডিওটি ওনার দখলে। এমনকি ওনি একঘর থেকে অন্য ঘরে গেলেও রেডিওটি ওনার সাথেই থাকতো। রাত ১০ টার ভয়েস অব আমেরিকার খবর এখনও কানে বাজে। বাবা আমাদেরকে নিয়ে খবর শুনতেন। বিশ্লেষণ করতেন। গিয়াস কামাল চৌধুরি, ইকবাল বাহার চৌধুরির কণ্ঠ যেন এখনও শুনতে পাই।

খবরের কাগজে ফিরে আসি। খবরের কাগজের সাথে পরিচয় স্কুল জীবনে। প্রায় ৩ যুগ পূর্বের স্মৃতির এ্যালবাম উল্টালে দেখি পত্রিকার নামটি ছিল দৈনিক ইত্তেফাক। সিলেটের মীরগঞ্জে তখন একদিন পরে খবরের কাগজ এসে পৌঁছতো। অর্থাৎ আজকের পত্রিকা পরের দিন সকালে পাওয়া যেত। আর আমার হাতে আসতো সন্ধ্যায়। নীচ তলায় পূবালী ব্যাংক, উপর তলায় আমাদের বাসা। বাবা ব্যাংক থেকে যখন সন্ধ্যায় বাসায় আসতেন তখন ওনার হাত থেকে পত্রিকাটি ছোঁ মেরে নিয়ে নিতাম। প্রথমেই ডুব দিতাম খেলার পাতায়। তারপর চিত্র জগতে।

স্কুলের গন্ডি পেরিয়ে যখন কলেজে পা রাখি তখন দৈনিক ইনকিলাব পত্রিকার সাথে পরিচয় ঘটে। ইনকিলাবে পুরো ১ পাতা খেলার খবর ছাপাতো। তাই অনেক সময় দোকানে গিয়ে পত্রিকা পড়তাম। তখন অনেক দোকানেই ইনকিলাব রাখা হতো। মাঝে-মধ্যে বন্ধুদের সাথে খেলার পাতা নিয়ে টানা-হেঁচড়া চলতো।

হল জীবনে হলের পত্রিকা আর রুমে একাধিক পত্রিকা পড়ার সুযোগ হল। সে সব পত্রিকার মধ্যে ইত্তেফাক, ইনকিলাব ছাড়াও ছিল অবজারভার, বাংলার বাণী, দিনকাল, সংগ্রাম, সাপ্তাহিক বিচিত্রা, সাপ্তাহিক যায়যায় দিন। দুপুরের খাবারের পর হলের পত্রিকা রুমে খবরের কাগজ পড়া অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল। সন্ধ্যার পরেও কিছুটা সময় পত্রিকা রুমে কাটাতাম। বন্ধুদের সাথে আড্ডা ও চলতো। মাঝে-মধ্যে টাউন হলের বীরচন্দ্র গণপাঠাগারে যেতাম খবরের কাগজ পড়ার জন্য।

মাস্টার্স শেষ হল ১৯৯৯ সালে। রাজধানীর বুকে চাকুরীর জন্য হন্য হয়ে ঘুরছি। খবরের কাগজের প্রতি নির্ভরশীলতা আরো বেড়ে গেল। কোথায় কি চাকুরির বিজ্ঞপ্তি খুজতে খুজতে দিশেহারা। ততদিনে সেকেন্ড জেনারেশন পত্রিকা বাজারে এসেছে। পরিচয় ঘটে ভোরের কাগজ, প্রথম আলো, ডেইলি স্টার, দৈনিক জনকণ্ঠ, মানব জমিনের সাথে। ২য় প্রজন্মের পত্রিকা প্রথম আলো আমার পছন্দের পত্রিকা। শুরু থেকে এখনও পত্রিকাটি জনপ্রিয়তা ধরে রেখেছে।

চাকুরি জীবনে প্রবেশ করার বেশ কয়েক বছর পরে ৩য় প্রজন্মের পত্রিকার আত্মপ্রকাশ। এর মধ্যে উল্ল্যেখ যোগ্য সমকাল, বাংলাদেশ প্রতিদিন, কালের কণ্ঠ, যায়যায়দিন, ডেইলসান, আমাদের সময়। বাংলাদেশ প্রতিদিনের কথা আলাদা করে বলতেই হয়। পাঠকের মনজয় করে পত্রিকাটি এখন বাংলাদেশের সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিক পত্রিকা। সকাল বেলা এক হাতে চায়ের পেয়ালা অন্যহাতে বাংলাদেশ প্রতিদিন আমার প্রাত্যাহিক জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। চায়ের পেয়ালায় চুমুক দিতে দিতে পত্রিকার পাতায় চোখ বুলানো যেন মধ্যবিত্ত জীবনের পরম তৃপ্তি।

জীবনের মাঝ বয়সেও তাই পত্রিকার নেশা ছাড়তে পারিনি। বরঞ্চ এখন নেশার পাশাপাশি নির্ভরশীলতাও বাড়ছে। খবরের কাগজ আমার কাছে এখন শুধু জ্ঞানের ভান্ডার বাজানার উৎস নয়, তার চেয়ে ও বেশি কিছু। যেন পরম বন্ধু, নিত্যসঙ্গী।

লেখক :
সহকারী অধ্যাপক, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ, কুমিল্লা।

আরও পড়ুন