কুমিল্লা
বুধবার,১ এপ্রিল, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৮ চৈত্র, ১৪২৬ | ৭ শাবান, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

আমাদের শিশুরা শ্রেণিকক্ষেও বৈষম্যের শিকার

শিশুরা দেশের ভবিষ্যত। আমাদের জাতীয় জীবনে এক অমূল্য সম্পদ। জাতির ভবিষ্যত কর্ণধার ।শিশুদের সুন্দর ভাবে গড়ে ওঠার ওপর ণির্ভর করে একটি জাতির সুখ সমৃদ্ধি। তাই পৃথিবীর উন্নত দেশগুলোতে শিশুর শারিরীক ও মানসিক বিকাশের জন্য মাতৃগর্ভ থেকেই তাদের পরিচর্যা শুরু হয়। শিশু জন্ম নেয়ার পর তার সুষ্ঠু বিকাশের পথকে সুগম করতে তাদেরকে রাষ্ট্রীয় পৃষ্টপোষকতায় লালন করা হয়।

তাদের শৈশবকে আনন্দময় করে তুলে উপযুক্ত শিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলার জন্য সর্বাঙ্গীন চেষ্টা করা হয় । তারপর একদিন এসব শিশু বড় হয়ে মানুষের মতো মানুষ হয়ে দেশ ও জাতির কল্যানে নিজকে উৎসর্গ করে। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, আমাদের শিশুরা বড় হয় অযত্ম অবহেলায়। গর্ভবতী মা দুঃখ দারিদ্রতার সাথে যুদ্ধ করতে করতেই ক্লান্ত শ্রান্ত। সংসারের হাজারো ঝক্কি ঝামেলা সামলিয়ে গর্ভের সন্তানের প্রতি লক্ষ্য রাখার মতো তার সুযোগ বা সামর্থ হয় না ।

আমাদের এ দেশে অযত্মে লালিত কতো মা প্রসবকালীন সময়ে মারা যায়। সরকার এবং এনজিওগুলো মা ও শিশুর যত্মের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করলেও বিরাট জনগোষ্ঠির তুলনায় তা একেবারেই সামান্য। যত প্রচার বাস্তবে তার উপস্থিতি একেবারেই নগন্য ।

আমাদের দারিদ্র পীড়িত বিত্তহীন ঘরের মা বাবা খেয়ে না খেয়ে শুধুমাত্র বুকের স্নেহ মমতার ওম দিয়ে শিশুদের লালন পালন করেন।পাঁচ ছয বছর বয়স হলে মা বাবা দু’চোখের খামে অনেক স্বপ্ন পুরে শিশুদের একদিন স্কুলে পাঠায়। ছেঁড়াফাঁড়া বই খাতা বগলদাবা করে কচি শিশুটি নাচতে নাচতে মা বাবার হাত ধরে স্কুলে আসে । স্কুলের মতো পবিত্র অঙ্গনে এসেও এরা হয় শ্রেণী বৈষম্যের শিকার।

সমাজপতি,বড়লোক বড়কর্মকর্তা, ঐ স্কুলের শিক্ষকশিক্ষিকার বা অবস্থাপন্ন ঘরের ছেলেমেয়েদের ঠেলে মেধাবী হওয়া সত্বেও দরিদ্র কৃষক ,খেটে খাওয়া দিনমুজুর বা রিক্সাওয়ালার ঘরে জন্ম নেয়া শিশুরা কখনোই ফাষ্ট বেঞ্চে বসতে পারে না। যদি কখনো এ সব শিশুরা ফাষ্টবেঞ্চে বসে ,তাহলে ক্লাস টিচার ক্লাসে এসেই প্রথমে তাকে কড়া ধমক দিয়ে কান ধরে পেছনে পাঠিয়ে দেবে।

শিশুটি কচিমনে প্রচণ্ড আঘাত নিয়ে মাথা নিচু করে সবার সামনে দিয়ে পেছনের সারিতে চলে যাবে। পড়া না পারা বা সামান্য ত্র“টি বিচ্ছ্যুতির জন্য প্রাথমিক স্তরের শিক্ষক- শিক্ষিকারা প্রায়ই শিশুদের চড় থাপ্পড় ,বেত্রঘাত ,বেঞ্চের ওপর দাঁড় করিয়ে রাখা নীলডাউন ইত্যাদি বিভিন্ন পন্থায় শাস্তি দিয়ে থাকেন। কিন্তু অবস্থাপন্ন ঘরের,কর্তাব্যক্তির বা শিক্ষিক – শিক্ষিকার প্রাইভেটের ছাত্র হলে তাকে এসব সাজা ভোগ করতে হয় না । বরং শিক্ষক -শিক্ষিকারা ক্লাসরুমেই অন্যান্য বাচ্চাদের সামনে তাদের মধুর ভাষায় তোয়াজ করে।

গরিবের ঘরের সন্তান হওয়ার কারনে বকাঝকা নির্যানতন ভোগকারী শিশুরা শ্রেণী কক্ষে তাদের শিক্ষক শিক্ষিকার কাছে যখোন এ রকম বৈষম্যমূলক আচরণ পায় তখন তারা মনে মনে ক্ষুব্দ হয় , ভিতরে ভিতরে বিদ্রোহী হয়ে ওঠে। তাদের কচি মনে এ কষ্টের দাগ অনেকদিন পর্যন্ত গেঁথে থাকে। এ শ্রেণী বৈষম্যে শিকার হয়েই দীপুকে শিক্ষিকারুপী দানবীর হাতে জীবন দিতে হয়েছে। কিছু কিছু শিক্ষক শিক্ষিকা আছেন যারা ছাত্রছাত্রীকে উপদেশের নামে, শাসনের নামে মাত্রাতিরিক্ত শারিরীক এবং মানসিক নির্যাতন করেন । একটি কলি ফোটার সময় যদি সামান্যতম বাধা পায় তাহলে সে কলি আর স্বাভাকিভাবে ফুটতে পারে না ।

একটি শিশুও ফুলকলির মতো। তার মানসিক ও শারীরিক বিকাশের পথে কোন রকম প্রতিবন্ধকতা তার বিকাশের পথকে রুদ্ধ করে দেয়। যা কখনোই আমাদের কাম্য নয়। শিক্ষক- শিক্ষিকা হবেন ছাত্রছাত্রীদের কাছে আদর্শ। একজন শিক্ষক- শিক্ষিকা কথাবার্তা,চলাফেরা আচার আচরন ছাত্রছাত্রীদের কচি মনে রেখাপাত করে ।

শিক্ষক-শিক্ষিকার আদরযত্ম পেয়ে শিশুরা অনেক সময় তাদের পিতামাতার চেয়ে শিক্ষক- শিক্ষিকাকে বেশী আপন ভাবতে শুরু করে । টিচার ট্রেনিংএ শিশু মনোবিজ্ঞানের এসব দিকগুলো সম্পর্কে টিচারদেরকে খুব সচেতন করে দেয়া হয় ।বিশেষ করে শিশুদের বেত মারা যাবে না, শিশুরা শ্রেণী কক্ষে অন্যান্য সতীর্থদের সামনে মানসিকভাবে আঘাত পায় এমন শাস্তি দেয়া যাবে না ।

শিশুদের আদর-সোহাগে, মিষ্টি শাসনে লেখাপড়া করাতে হবে ।কিন্তু আমাদের শিক্ষক-শিক্ষিকারা (সবাই নয় ) ট্রেনিং সেন্টার থেকে বেরিয়ে আসার সময় ট্রেনিংটা সেন্টারে রেখে আসেন এবং নিজের কাছে সার্টিফিকেটেই সংরক্ষণ করে ফাইল বন্দী করে রাখেন । কর্ম ক্ষেত্রে এ সব ট্রেনিং আর প্রয়োগ করেন না।অনেকে খোশগল্প করতে করতে দাঁত কেলিয়ে হেসে হেসে বলেন “মাইরের উপর ঔষধ নাই ,বান্দর পোলাপান মাইর না দিলে লেখাপড়া করে না”। মাইরের চান্স পেলে এ সব শিক্ষক- শিক্ষিকারা পরের শিশুকে মেরে মেরে হাত খুলে বেটিং করার মতো আনন্দ পান ।

শিক্ষক- শিক্ষিকাটি একবারও ভাবেন না, নিজের জেদ মেটাতে গিয়ে, নিজের বিকৃত আনন্দ উপভোগ করতে গিয়ে একটি শিশুকে মানসিকভাবে কতটা বিপন্ন করছেন । একটি জাতির কি অপূরনীয় ক্ষতি করছেন? একটি জাতির ভবিষ্যত বিনিষ্টকারীর কি শাস্তি হওয়া উচিৎ? ফাঁসী বা যাবৎজীবন কারাদণ্ড দিলেও জাতির এক্ষতি কখনোই পূরণ হবে না। এখন পত্র পত্রিকায় হরহামেশাই শিক্ষক কতৃক ছাত্র নির্যাতনের সংবাদ দেখে শিউরে উঠি।

প্রাথমিক পর্যায়ে প্রতিমাসেই প্রাথমিক শিক্ষকদের ক্লাস্টার ট্রেনিং হয় । এ সব ট্রেনিংএ শিক্ষা কর্মকর্তা মহোদয় বিভিন্ন ট্রেনিং এর পাশাপাশি শিশুদের এ সব দিকগুলোর প্রতি দৃষ্টিপাত করতে পারেন । শুনেছি ,অনেক কর্মকর্তা এ সব বিষয়গুলো নিয়ে শিক্ষক শিক্ষিকাদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করে তাদের সজাগ সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

বিদ্যালয়ে শিশুদের প্রতি আমাদের শিক্ষক –শিক্ষিাদের আরো যত্মবান হওয়া উচিৎ। শিক্ষকতার মতো মহান পেশায় এসে শিক্ষক-শিক্ষিকার কাছে দানবীয় আচরন সভ্যসমাজ প্রত্যাশা করে না। পরিশেষে বলবো, ‘শত ফুল ফুটতে দিন’ শিশুর মানসিক বিকাশে সহযোগিতা করুন । শ্রেণী বৈষম্যের হাত থেকে আমাদের আগামী প্রজন্মকে বাঁচান।

লেখক, সাবেক অধ্যক্ষ ও কথাসাহিত্যিক

আরও পড়ুন