কুমিল্লা
শুক্রবার,১৫ নভেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ | ১৭ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

ব্যাটারিচালিত রিকশার দাপট:

নিত্য যানজটে অতিষ্ঠ লাকসাম শহরের বাসিন্দারা

লাকসাম দৌলতগঞ্জ বাজারে রেলগেইট এলাকায় সারি সারি ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা /ছবি: নতুন কুমিল্লা

নিত্য যানজটে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন লাকসাম শহরের বাসিন্দারা। প্রধান সড়ক কিংবা অলি-গলি সবখানেই এ রিকশার দাপট। শহরের যানজটের মূল কারণ এ ব্যাটারিচালিত রিকশা। মোটর সাইকেল, পিক-আপ, সিএনজি অটোরিকশাসহ অন্যান্য যানবাহনের সাথে পাল্লা দিয়ে অহরহ দুর্ঘটনা ঘটালেও এ রিকশার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা কর্তৃপক্ষ।

আর যত্রতত্রে ট্রাক-ট্রাক্টর, পিকআপ-কাভার্ডভ্যান ও অন্যান্য যানবাহন দাঁড় করিয়ে মালামাল লোড-আনলোড করাসহ শহরের বিভিন্ন রাস্তার পাশঘেঁষে সিএনজি স্ট্যান্ড, পিকআপ স্ট্যান্ড, অটোস্ট্যান্ড স্থাপন করায় যানজট চরম আকার ধারণ করেছে। সহস্রাধিক রিকশা-মিশুকের নিবন্ধন দেয়া হলেও প্রায় ৮ হাজার রিকশা শহর দাবড়ে বেড়াচ্ছে লাকসাম পৌরশহরে।

ব্যাটারিচালিত রিকশাকে মানুষ ভয়ংকর বাহন বলে মন্তব্য করছেন। অনেকে ভয়ে এ রিকশায় ওঠা ছেড়েই দিয়েছেন। অথচ এসব রিকশা চলাচলের অনুমতি দিয়েছে পৌরসভা।

এ রিকশা থেকে তারা বাড়তি টাকা কর হিসেবে আদায় করলেও চালকদের কোনো প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়নি। বেপরোয়া চালকদের নিয়ন্ত্রণে কোনো চেষ্টাও নেই পৌর কর্তৃপক্ষের। অপরদিকে, রাস্তায় মানুষের ভোগান্তি সৃষ্টি করে স্থাপিত স্ট্যান্ডগুলো থেকে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা চাঁদা আদায়ের অভিযোগও রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ২০১৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলা শুরু হয়। পরে স্রোতের মতো দ্রæত সব রিকশাতেই ব্যাটারি যুক্ত করা হতে থাকে। পৌর কর্তৃপক্ষ বাহনটিকে মেনে নেয়। বর্তমানে শহরের প্রায় সব রিকশাই ব্যাটারিযুক্ত। প্রতিবছর হাজার টাকা ফি নিয়ে এসব রিকশাকে চলাচলের অনুমতি দেয় পৌরসভা। বর্তমানে লাকসাম পৌর এলাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশার সংখ্যা প্রায় ৮ হাজার।

৩ ক্যাটাগরিতে প্রায় সাড়ে ১৩শ’ রিকশার লাইসেন্স দেয়া হয়েছে বলে পৌরসভার সংশ্লিষ্ট বিভাগ জানিয়েছে। শহরজুড়ে দাপিয়ে বেড়ানো এসব রিকশার সবচেয়ে ভয়ংকর রূপ হলো- এগুলোর বেপরোয়া চলাচল। এগুলো পাল্লা দেয় মোটর সাইকেলের সঙ্গে, সিএনজি কিংবা ব্যাটারিচালিত ইজি বাইকের সঙ্গে।

অনেক সময় এগুলো ব্রেক ধরতে পারে না। চলন্ত রিকশা গিয়ে সজোরে ধাক্কা খায় সামনের বাহনের সঙ্গে। এতে দুর্ঘটনা ঘটে। রিকশা বা সামনের বাহন থেকে পড়ে গিয়ে আহত হয় যাত্রীরা। এসব রিকশায় চালকদের বসার দৃশ্যও বেশ অদ্ভুত। চলন্ত রিকশায় কেউ এক পাশ হয়ে, কেউ ২ পা ওপরে তুলে বসে, কেউ দাঁড়িয়ে থাকে।

সূত্র জানায়, পৌরসভা ১শ’ টাকা তারে ফি নিয়ে ১২টি পায়ে চালিত রিকশা, ৫শ’ টাকায় ২৪৫টি ব্যাটারিসংযুক্ত রিকশা, ১ হাজার টাকায় ৯৯৫টি ব্যাটারিচালিত মিশুক, ২ হাজার টাকায় ৯৪টি ব্যাটারিচালিত অটো বাইকের নিবন্ধন দেয়া হয়েছে। ৩ ক্যাটাগরিতে মোট ১৩৪৬টি ব্যাটারিচলিত রিকশা ও অটোবাইকের নিবন্ধন দেয়া হয়। অন্যদিকে, এসব গাড়ির চালকদের ১শ’ টাকা ফি নিয়ে পরিচয়পত্র দিচ্ছে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। এ পর্যন্ত সাড়ে ৫শ’ চালককে এ পরিচয়পত্র দেয়া হয়।

শহরবাসীর অনেকেই বলছেন, চালকরা ব্যাটারিচালিত রিকশা যদি ধীরে ধীরে চালাত, তাহলে তেমন সমস্যা হতো না। কিন্তু অন্তত ৮০ শতাংশ চালকই বেপরোয়া। শহরে প্রতিদিন রিকশা দুর্ঘটনা ঘটছে শুধু এসব চালকের বেপরোয়া গতিতে রিকশা চালানোর কারনে।

লাকসাম পৌরসভার প্রায় প্রতিটি অলি-গলিতে যাত্রীর অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকে যন্ত্রদানব অটো রিকশা। যারা কখনো রিকশা চালায়নি এমন ৬০/৭০ বছরের বৃদ্ধ লোকও অটো রিকশার চালক। সহজে চালানো যায় বলে তারা এ পেশায় ঝুঁকছে। রুজিও ভালো। সারা দিন চালিয়ে মালিকের দেনা সেরে ৫/৭শ’ টাকা নিয়ে ঘরে ফেরা যায়। নাবালক শিশুদের এ রিকশা চালাতে দেখা যায়।

শনিবার লাকসাম ব্যাংকরোডে রফিকুল ইসলাম নামে এক ব্যবসায়ী দোকান থেকে রাস্তায় নামলে একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা বেপরোয়া গতিতে তার গা ঘেঁষে চলে যায়। এ সময় ওই ব্যবসায়ীর জামা ও হাতের বেশ কিছু অংশ কেটে যায়।

অপরদিকে, গত সপ্তাহে লাকসাম পৌর হকার্স মার্কেট সংলগ্নে একটি রিকশা স্কুলগামী এক ছাত্রকে বার বার চাকার নিচে চাপা দিচ্ছিল। চালক চেষ্টা করেও রিকশাটি থামাতে পারছিল না। অবশেষে রাস্তার পাশে পড়ে গিয়ে ওই ছাত্র রক্ষা পায়। পরে ওই চালক জানায়, ‘বৃষ্টির পানি মেশিনে ঢুকে পড়ায় ডাইরেকট হয়ে গেছে। রিকশা থামানো যাচ্ছিল না।’

বেশ কয়েকজন চালক ও পথচারীরা আরো জানায়, প্রখর রোদ বা বৃষ্টিতে প্রায়শই এসব রিকশা নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ে। এতে আশপাশের গাড়ি কিংবা পথচারীদের গায়ের উপর উঠে পড়ে রিকশা।

কবির আহম্মেদ নামের এক ব্যবসায়ী নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, ‘ভাই, আমি ভয়ে এ রিকশাতেই উঠি না। মনে হয় এই বুঝি দুর্ঘটনা ঘটল।’

গৃহিণী আনোয়ারা বেগম নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, তিনি একাধিকবার এ রিকশা থেকে পড়ে গেছেন। এসব চালক কথা শোনে না। কোনো নিয়ম মানে না। একাধিক পথচারী বলেন, ব্যাটারিচালিত রিকশার দ্রæতগতির জন্য তারা শান্তিতে রাস্তার মোড় পার হতে পারে না। কারণ মোড়ে এসেও রিকশাগুলো গতি থামায় না।

লাকসাম পৌরসভার লাইসেন্স পরিদর্শক মনজুর আহমেদ নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, তিনি বলেন লাইসেন্স দেয়ার সময় চালকদের সতর্ক করে দেন। ব্যক্তিগতভাবেও চালকদের সতর্ক করেন। তবে কিছু চালক বেপরোয়া গতিতে রিকশা চালায়।

এ বিষয়ে লাকসাম পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক আবুল খায়ের নতুন কুমিল্লা.কমকে বলেন, আমরা যেসব রিকশা-অটোরিকশা নিবন্ধন দিয়েছি এর বাইরে আর বাড়াতে চাইনা। এগুলোর চালকদের পর্যায়ক্রমে আইডি কার্ড দেয়া হচ্ছে। নিবন্ধনহীন, অতিবৃদ্ধ ও শিশু এবং বেপরোয়া গতিতে চালানোদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন