কুমিল্লা
বুধবার,২৯ জানুয়ারি, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৬ মাঘ, ১৪২৬ | ৩ জমাদিউস-সানি, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ট্রেন দুর্ঘটনা:

কুমিল্লায় আটকা পড়ে কয়েকটি ট্রেন, যাত্রীদের দুর্ভোগ-বদলেছে সূচি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনার কারণে কুমিল্লা ও লাকসাম রেলওয়ে স্টেশনে আটকা পড়ে বেশ কয়েকটি ট্রেন। এর মধ্যে জালাবাদ এক্সপ্রেস, সুবর্ণ এক্সপ্রেস, উপকূল এক্সপ্রেস ট্রেন রয়েছে।

এদিকে, দুর্ঘটনার কারণে রেলপথ মেরামতে সময় লাগায় দীর্ঘক্ষণ ধরে বিভিন্ন স্টেশনে অপেক্ষা করতে হয় বিভিন্ন গন্তব্যগামী যাত্রীদের। এতে দুর্ভোগে পড়েন কয়েক শ’ যাত্রী। এছাড়া দুর্ঘটনার কারণে বদলে গেছে ট্রেনের সময় সূচিও। তবে মঙ্গলবার সকাল ১০টা ২০মিনিট থেকে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয় বলে নিশ্চিত করেন রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

কুমিল্লার রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার সফিকুর রহমান ভূঁইয়া জানান, নোয়াখালী থেকে ঢাকাগামী উপকূল এক্সপ্রেস ট্রেনটি লাকসাম স্টেশনে আটকা পড়ে। সকাল ৮টায় কুমিল্লা থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়ার কথা থাকলেও ওই ট্রেনটি লাকসাম অবস্থান করছে প্রায় ২ ঘন্টা।

চট্টগ্রাম থেকে সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেন যথাসময়ে ছেড়ে আসলেও সকাল ১০টা ১৫ মিনিটের সময় কুমিল্লা রেল স্টেশনে এসে আটকা পড়ে। নির্দিষ্ট সময় থেকে প্রায় আধা ঘণ্টা বিলম্বে ট্রেনটি কুমিল্লা থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে গিয়েছে।

এদিকে চট্টগ্রাম থেকে সিলেট অভিমুখী জালালাবাদ ট্রেনটি রাত ৩টা ৪৪ মিনিটে কুমিল্লায় পৌঁছালেও এখনও পর্যন্ত (দুপুর সাড়ে ১২টা) ছেড়ে যায়নি।

দুর্ঘটনা কবলিত উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনটি চট্টগ্রাম গিয়ে পৌঁছালেও সেটা পাহাড়িকা হয়ে কখন পুণরায় সিলেটের উদ্দেশ্যে যাত্রা করবে তা জানা যায়নি। চট্টগ্রামগামী মহানগর প্রভাতী এক্সপ্রেস ট্রেনটি ঢাকা থেকে ছেড়ে আসেনি। বেলা ১১টায় ট্রেনটির কুমিল্লায় পৌঁছার কথা ছিল। তবে ময়মনসিংহ অভিমুখী বিজয় এক্সপ্রেস চট্টগ্রাম থেকে নির্দিষ্ট সময়ে ছেড়ে কুমিল্লা এসেছে।

তিনি আরো জানান, ১০টা ২০মিনেটে ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। তবে দুর্ঘটনার কারণে ট্রেনের সময় সূচি বদলাতে হয়েছে।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষার্থী তৈয়বুর রহমান সোহেল বলেন, ট্রেন দুর্ঘটনার কারণে কুমিল্লা রেল স্টেশনে আটকা পড়েন অনেক যাত্রী। ট্রেন না পেয়ে অনেক যাত্রী স্টেশন ত্যাগ করছেন। অনেকে বিকল্প পথে গন্তব্যে রওনা করেন। আবার আগাম টিকিট কাটা বেশকিছু যাত্রী নিকটবর্তী ট্রেনগুলোর জন্য অপেক্ষা করছেন।

আরও পড়ুন