কুমিল্লা
রবিবার,১৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ | ৩ শাওয়াল, ১৪৪২

বুড়িচংয়ে সম্পত্তি দখল ও চলাচলের রাস্তা না দেওয়ার অভিযোগ

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের বারেশ্বর গ্রামের মোঃ আবদুল অদুধের সম্পতির উপর বিল্ডিং নির্মাণ করে দীর্ঘদিন ধরে ভোগদখল করা এবং তার সম্পত্তিতে প্রবেশ করার রাস্তা না দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্থানীয় ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৬ সালে বারেশ^র গ্রামের মৃত মোঃ কালা মিয়া ফকিরের ছেলে মোঃ আবদুল অদুধ একই গ্রামের মিরু মিয়ার স্ত্রী জয়দনের নেছার নিকট থেকে বারেশ^র চৌমুহনীতে বারেশ^র মৌজার ৬৮৬ খতিয়ানের ২২০৬ নং দাগের ২৭শতক নাল জমি বুড়িচং সাব রেজিষ্ট্রারী অফিসে সাব কাবলা মাধ্যমে ক্রয় করে।

অপর দিকে একই গ্রামের মৃত আলফাজ আলী ডাক্তার ১১৫৫ নং খাতিয়ানের ২১২৩ নং দাগে ৯শতক জমি ক্রয় করে। উক্ত সম্পত্তিতে আলফাজ আলী ডাক্তারের ছেলে কৃষি অফিসার মোঃ লেয়াকত আলী, গ্রাম্য ডাক্তার সুলতান, বিজিবি সদস্য তাজুল ইসলাম, আবুল কালাম (অবঃ পুলিশ), আবদুল সালাম ও ফারুক মিয়া দোকান-পাট নির্মাণ করে আবদুল অদুধের সম্পত্তির কিছু অংশ দীর্ঘদিন ভোগদখল করে আসছে। এই বিষয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে আপোষ সমঝোতা করতে অনেক সালিশী বৈঠক হয়।

এরই মধ্যে আবদুল অদুধ তার সম্পতির পূর্ব অংশে মসজিদের জন্য ওয়াকফ করে দেয়। ওয়াকফ স্থানে মসজিদ নির্মাণ করার জন্য মালামাল আনা এবং মসজিদের স্থানে যাতায়াতের জন্য রাস্তার প্রয়োজনে এবং উভয় পক্ষের শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার্থে আপোষ মিমাংসার জন্য গ্রাম্য সাহেব সর্দারগণ চেষ্টা করেন। পক্ষান্তরে সুলতান,লেয়াকত আলী, তাজুল ইসলাম, ফারুক, আবুল কালাম, আবদুল সালাম প্রভাবশালী হওয়ায় কারো কথা কর্ণপাত না করে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধমকী প্রদান করে এবং মিথ্যা মামলার ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে।

তারই পরিপ্রেক্ষিতে আবদুল অদুধ গত ৬ ডিসেম্বর সুলতান আহাম্মদের দোকান ঘরের পেছনে অদুধের সম্পতির অংশের ওয়াল ভেঙ্গে ফেলে। সুলতান আহাম্মদ তার দোকান ঘর ভেঙ্গে ফেলায় গত ৭ ডিসেম্বর বুড়িচং থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ আবদুল অদুধকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। পরবর্তীতে আবদুল অদুধ জেল হাজত থেকে জামিন মুক্ত হয়ে বাড়ীতে আসে।

এছাড়া গত ১৩ ডিসেম্ভর সকাল ১১টায় সুলতান আহাম্মদের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে আবদুল অদুধ মিয়াকে ধাওয়া করলে স্থানীয়রা সঙ্গবদ্ধ হয়ে প্রতিবাদ করলে সন্ত্রাসী বাহিনী চলে যায়।

এই বিষয়ে আবদুল অদুধ বলেন, সুলতান আহাম্মদ ও তার ভাইয়ের দীর্ঘদিন ধরে আমার সম্পতির একটি অংশে দোকান-পাট নির্মান করে ভোগদখল করে আসছে। আমি মসজিদ নির্মাণ করার মালামাল আনা-নেয়ার জন্য একটু রাস্তা চেয়েছি মাত্র। কিন্ত তারা কোন ভাবে আমার জায়গা ছাড়ছে না এবং তার বিনিময়ে রাস্তাও দিচ্ছে না। তারা সরকারী বিভিন্ন দপ্তরে চাকুরী করে তাই প্রভাব খাটাচ্ছে।

এই বিষয়ে জানতে সুলতান আহাম্মদের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন