কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২৩ বৈশাখ, ১৪২৮ | ২৩ রমজান, ১৪৪২

চৌদ্দগ্রামে বিএনপির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন হঠাৎ স্থগিত, নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা বিএনপির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন-২০১৯ ছিল মঙ্গলবার (১৭ ডিসেম্বর)। দশ দিন আগে সম্মেলনের নির্দিষ্ট তারিখ ঘোষণা করে জেলা বিএনপি। সম্মেলনকে কেন্দ্র করে উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মোঃ কামরুল হুদা যুগ্ম আহবায়ক ও সদস্য সচিবসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে সভা করে সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করে।

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর প্রত্যেক ইউনিয়নের নির্বাচিত কাউন্সিলরগণ মঙ্গলবার ভোটের মাধ্যমে তাদের পছন্দের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করার কথা ছিল। কিন্তু সোমবার রাত ১২টার দিকে সম্মেলন স্থগিত ঘোষণা করে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিন উর রশীদ ইয়াছিন। তিনি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকার কথা ছিল।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৮ ফেব্রæয়ারি বুধবার প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ চৌদ্দগ্রাম উপজেলা ও পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করেন। উপজেলা কমিটিতে আহবায়ক হিসেবে রয়েছেন মোঃ কামরুল হুদা, যুগ্ম আহবায়করা হলেন; সাজেদুর রহমান মোল্লা হিরণ, ওয়াহিদুর রহমান মজুমদার মুক্ত, নূর হোসেন বলাই, আবু তাহের, কন্টাক্টর শহিদুর রহমান মজুমদার, আবদুল্লাহিল বাকী, খোরশেদ কবির শিপন, নুরুন্নবী পাটোয়ারী নুরু, সাহাবুদ্দিন, এম এম ইসরাফিল আতিক ও সদস্য সচিব ইঞ্জিনিয়ার শাহ আলম। ইতোমধ্যে যুগ্ম আহবায়ক কন্ট্রাক্টর শহিদুর রহমান মজুমদার ইন্তেকাল করেছেন।

এছাড়া যুগ্ম সাজেদুর রহমান মোল্লা হিরণ, আবু তাহের ও ইসরাফিল আতিক ছাড়া সকলেই কামরুল হুদার নেতৃত্বে গত তিন বছর ধরে সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। গতকাল মঙ্গলবার সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সকল প্রস্তুতি নিয়েছিল। প্রশাসনের হস্তক্ষেপের কারণে তিন বার ভেন্যু বদল করে সর্বশেষ উপজেলার বাতিসা ইউনিয়নের আমজাদের বাজারস্থ মাঠে সার্বিক প্রস্ততি সম্পন্ন হয়। সম্মেলনকে কেন্দ্র করে উৎসব মুখর পরিবেশে ব্যানার ও পেষ্টুন লাগানো হয়েছে পুরো উপজেলায়।

সম্মেলনে দুপুরে আগত নেতাকর্মীদের ভোজের জন্য রাতে গরু জবাই শেষে হঠাৎ ঘোষণা আসে ‘সম্মেলন স্থগিত’। সম্মেলনে দিনক্ষণ চুড়ান্ত হলেও হঠাৎ স্থগিত হওয়ায় উপজেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের চরম ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।
বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, সোমবার রাতে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক হাজী আমিন উর রশীদ ইয়াছিন উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মোঃ কামরুল হুদাকে জানান সাধারন সম্পাদক হিসেবে এডভোকেট হুমায়ন কবির পাটোয়ারীকে রেখে কমিটি ঘোষণা করার জন্য।

কিন্তু কামরুল হুদা জবাব দেন, ভোটের মাধ্যমে কাউন্সিলরগণ যাকে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করেন তাতে আপত্তি নেই। ভোটের মাধ্যমে সকল নেতৃত্ব নির্বাচনের দাবিতে বিএনপি বারবার আপত্তি জানালেও বিএনপির নিজস্ব সম্মেলনের ক্ষেত্রে এর ব্যতিক্রম প্রস্তাব দেয়ায় কামরুল হুদা তা প্রত্যাখান করেন।

একটি সূত্র জানিয়েছে, উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক সাজেদুর রহমান মোল্লা হিরণের নেতৃত্বে বিএনপির একটি গ্রæপ কেন্দ্রীয় বিএনপির দপ্তর সম্পাদকের নিকট একটি অভিযোগ দাখিল করে। এর আগে সাজেদুর রহমান মোল্লা হিরণকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণা করার জন্য প্রস্তাব দেয়া হয়। এ প্রস্তাব মেনে না নেয়ায় সম্মেলনকে কেন্দ্র করে গ্রæপিং প্রকাশ্যে রুপ নেয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মোঃ কামরুল হুদাকে সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত বা সিলেকশান করলে কারও কোন আপত্তি নেই। কিন্তু সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রার্থী রয়েছে উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক সাজেদুর রহমান মোল্লা হিরণ, যুগ্ম আহবায়ক খোরশেদ কবির শিপন ও সদস্য সচিব ইঞ্জিনিয়ার শাহ আলম।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিন উর রশীদ ইয়াছিন বলেন, ‘আমাদের নিজস্ব কিছু সিদ্ধান্ত ছিল। আমরা ভেবেছিলাম সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়ন হবে। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন না হওয়ার কারণে সম্মেলনটি স্থগিত করা হয়েছে’।

উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মোঃ কামরুল হুদা বলেন, প্রতিটি ইউনিয়নের কাউন্সিলের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক উপায়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত করা হয়েছে। তাদের ভোটের মাধ্যমে উপজেলা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হলে দলের জন্য ভালো হতো।

তাছাড়া কাউন্সিলদের ভোটে যে নির্বাচিত হয় আমার কোন আপত্তি নেই। কিন্তু গুটি কয়েক লোক যারা চৌদ্দগ্রামের অধিবাসী হয়েও ঢাকায় বসবাসরত, দুই ঈদে বাড়িতেও আসে না, কোন নেতাকর্মীর খবর নেয় না, মামলা-হামলার শিকার হয়নি-সম্মেলনকে কেন্দ্র করে তারা ঢাকায় বসে ষড়যন্ত্র করেছে। তাদের ষড়যন্ত্রের কারণে তৃণমূলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের কাঙ্খিত সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়নি’। তবে সম্মেলন স্থগিতের বিষয়ে জেলা নেতৃবৃন্দ আরও ভালো বলতে পারবেন বলে তিনি দাবি করেন।

উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক সাজেদুর রহমান মোল্লা হিরণ বলেন, ‘বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে আমাদের উভয় গ্রæপের সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছে’।

আরও পড়ুন