কুমিল্লা
শুক্রবার,২৩ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ বৈশাখ, ১৪২৮ | ১০ রমজান, ১৪৪২

শীতে কাবু কুমিল্লাবাসী

কুমিল্লাসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় জেঁকে বসেছে শীত। গত ৩-৪ দিন ধরে সূর্যের দেখা মিলছে না বিভিন্ন উপজেলায়। শ্রমজীবী মানুষজন কষ্টে চালিয়ে যাচ্ছেন কাজ-কর্ম। হঠাৎ করে ঠান্ডার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন। শনিবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে কুমিল্লায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস পাওয়া গছে। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে খড়কুটোর আগুনে শরীর তাপ দিয়েও ঠান্ডা নিবারণের চেষ্টা করছেন সাধারণ মানুষজন।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, কমতে শুরু করেছে দিন-রাতের তাপমাত্রা। তীব্র শীতের কারণে খেটে খাওয়া মানুষ পড়েছে চরম দুশ্চিন্তায়। প্রবল শীতের কারণে কৃষক ও শ্রমিকরা জমিতে যেতে পারেননি। অনেকে মাঠে কাজ করতে গেলেও বেশিক্ষণ থাকতে পারেছেন না ঠান্ডার কারণে। ঠান্ডা আর ঘন কুয়াশার কারণে খেটে খাওয়া দিনমজুর মানুষজন কাজের সন্ধানে বাইরে যেতে হিমশিম খাচ্ছেন। অনেকে ঠান্ডাকে উপেক্ষা করে জীবিকার প্রয়োজনে বাইরে গেলেও কাজ মিলছে না।

ঘন কুয়াশার কারণে দিনের বেলাতেও হেড লাইট জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। ঠান্ডার প্রকোপে বাইরে যাত্রী না আসায় রিকশাচালকদের পড়তে হচ্ছে যাত্রী সঙ্কটে। ফলে আয়ও কমে গেছে তাদের। নিম্নআয়ের মানুষ, ছিন্নমূল ও দুঃস্থ অসহায় লোকজনের দুর্ভোগ বেড়েছে ঠান্ডায়। প্রয়োজন মতো গরম কাপড় না থাকায় শীত নিবারণে তারা হয়ে পড়েছেন দিশেহারা। অনেকে খড়কুটোয় আগুন ধরিয়ে শীত থেকে বাঁচার চেষ্টা করছেন।

এদিকে উপজেলার দুলালপুর গ্রামের ইমাম হোসেন ও মেহেদী হাসান জানান, ঠান্ডা আর কুয়াশারা কারণে তারা ঘর থেকে বাইরে কর্মস্থলে যেতে পারেননি। তীব্র ঠান্ডা থেকে রক্ষা পেতে তারা খড়কুটোর আগুনে শরীর তাপ দিয়েও ঠান্ডা নিবারণের চেষ্টা করছেন।

কুমিল্লা জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর জানান, কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলায় শীতার্ত দুঃস্থ মানুষের মাঝে সরকারি ভাবে কম্বল বিতরণ শুরু হয়েছে। ইতি মধ্যে উপজেলা বিভিন্ন গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে পর্যাপ্ত পরিমানে কম্বল বিতরণ হয়েছে। পাশাপাশি শীতার্ত গরিব, অসহায় পরিবারের মাঝে ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে কম্বল বিতরণের কার্যক্রম চলছে।

আরও পড়ুন