কুমিল্লা
বুধবার,২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৭ আশ্বিন, ১৪২৮ | ১৪ সফর, ১৪৪৩

কুমিল্লায় স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণ, আটক ৫

কুমিল্লায় স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রবিবার (২২ ডিসেম্বর) রাতে জেলার ব্রাহ্মণপাড়ার শশীদল এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় ধর্ষিতার পিতা বাদী হয়ে রবিবার রাতে ব্রাহ্মণপাড়া থানায় একটি মামলা করেন।

সোমবার (২৩ ডিসেম্বর) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে এবং গ্রেফতার আসামিদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গ্রেফতাররা হলো- ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে নজরুল ইসলাম ওরফে নজির (৩৫), নসু মিয়ার ছেলে মাহাবুব ওরফে লাবু (৩২), মৃত আবদুল খালেকের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২৫), আবদুল সামেদ খন্দকারের ছেলে নাছির আহম্মদ খন্দকার (৪০) ও মৃত মুলফত আলীর ছেলে জমির (৫০)।

পুলিশ জানায়, গত ১৮ ডিসেম্বর স্ত্রীর সঙ্গে রাগ করে তার স্বামী কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার নাল্লা গ্রামের শ্বশুরবাড়ি থেকে বের হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়া খড়মপুর কেলাশাহর মাজারে চলে যায়। পরে তার স্ত্রী সেখানে তাকে খুঁজে পেয়ে গত শনিবার সন্ধ্যায় (২১ ডিসেম্বর) ট্রেনযোগে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিয়ে শশীদল রেলওয়ে স্টেশনে আসেন। ট্রেনে পকেটমার ওই গৃহবধূর স্বামীর কাছ থেকে টাকা নিয়ে যায়। গাড়ি ভাড়া না থাকায় তারা শশীদল স্টেশনের প্লাটফর্মে অপেক্ষা করতে থাকেন।

এ সময় স্থানীয় জমির বাড়িতে পৌঁছে দেয়ার কথা বলে তাদেরকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়ায়। এক পর্যায়ে জমির ও তার সহযোগীরা রাতে কৌশলে তাদেরকে স্থানীয় পোড়াপুকুর পশ্চিমপাড়ে নিয়ে ওই গৃহবধূর স্বামীকে মারধর করে প্রায় দুই ঘণ্টা আটকে রাখে।

মাহাবুব ওরফে লাবু নামে একজন ওই গৃহবধূকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। পরে অপর আসামিরা ওই গৃহবধূর শ্লীলতাহানি শেষে শশীদল রেলওয়ে স্টেশন সড়ক দেখিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় ধর্ষিতার পিতা বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়েরের পর ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত ৫ জনকেই গ্রেফতার করে পুলিশ।

ব্রাহ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজম উদ্দিন মাহমুদ নতুন কুমিল্লা.কমকে জানান, স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় মামলায় অভিযুক্ত ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ সোমবার তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে।

আরও পড়ুন