কুমিল্লা
মঙ্গলবার,২৪ নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ | ৮ রবিউস-সানি, ১৪৪২

কুমিল্লায় ওবায়দুল কাদের :

‘আমি আশ্বস্ত করছি নির্বাচন সুষ্ঠু হবে’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি নির্বাচনে ভোটগ্রহণ সুষ্ঠু হবে। এই নির্বাচন জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে।

আজ বুধবার (২৫ ডিসেম্বর) দুপুরে কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ শেষে কুমিল্লা সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, কুমিল্লার জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আবুল ফজল মীর ও পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুর প্রমুখ।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি নির্বাচনে ইভিএমের ব্যবহার নিয়ে অবান্তর অপপ্রচার চালাচ্ছে বিএনপি। ইভিএম নিয়ে বিএনপির অপপ্রচার সঠিক নয়। কারণ লেটেস্ট টেকনোলজিতে ইভিএমে সুষ্ঠু নির্বাচন হয়। অতীতে যেসব কেন্দ্রে ইভিএমে ভোটগ্রহণ হয়েছে, সুষ্ঠু হয়েছে এবং বেশিরভাগ কেন্দ্রে জিতেছে বিএনপি। ইভিএমে নির্বাচন হলে কারও অসুবিধা নেই। ইভিএম সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করতে পারে। এতে সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করবে না। ভোট নিয়ে ভয়ের কারণ নেই।

বিএনপিকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমি আশ্বস্ত করছি- সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য ইসিকে সব ধরনের সহায়তা করবে সরকার। আপনারা নির্বাচনে আসুন, ভোটগ্রহণ সুষ্ঠু হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশে গণতন্ত্র আছে। কিন্তু গণতন্ত্র নেই বিএনপির ভেতরে। যাদের ঘরে এবং দলে গণতন্ত্র নেই তারা কীভাবে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে? বিএনপি এখন অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্রের চর্চা করে না।

মন্ত্রী আরো বলেন, আওয়ামী লীগের এক বছর আগে বিএনপির সম্মেলন হয়েছে। আওয়ামী লীগ আবারও সম্মেলন শেষে করেছে। আমি দ্বিতীয়বারের মতো সাধারণ সম্পাদক হয়েছি। কিন্তু আজ পর্যন্ত বিএনপি ওয়ার্কিং কমিটির সদস্যদের নিয়ে একটি কনফারেন্সও করতে পারেনি। তারা ৫০১ জনের ‘জাম্বো জেট’ মার্কা একটি কমিটি করেছে। তাহলে বিএনপির কাছে কি গণতন্ত্র আশা করা যায়? বিএনপি কনফারেন্স করতে না পেরে সরকারের বিরুদ্ধে বাধা দেয়ার কথা বলে।

সরকার বিএনপিকে কোনো বাধা দেয়নি। বিএনপি সব জায়গায় মিছিল, মিটিং এবং সমাবেশ করছে। তারা ব্যর্থ হয়েছে আন্দোলনে এবং নির্বাচনে। এখানে সরকারের দোষ নেই। কারণ বিএনপির ডাকে সাড়া দেয় না জনগণ।

আরও পড়ুন