কুমিল্লা
সোমবার,১ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১৬ ফাল্গুন, ১৪২৭ | ১৬ রজব, ১৪৪২

এবার নাঙ্গলকোটে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ভাই-বোন

ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস সংক্রমণে এবার কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে ভাই-বোন আক্রান্ত হয়েছেন। উপজেলার দৌলখাঁড় ইউপির কান্দাল গ্রামে এ আক্রান্তের ঘটনা ঘটে।

আক্রান্তরা হলেন, ওই গ্রামের ছলে আহম্মেদের মেয়ে সায়মা আক্তার (১৬) ও তার ছোট ভাই ইয়াছিন আরাফাত (১২)।

আজ বুধবার (১৩-মে) বিকেলে উপজেলা প্রশাসন কান্দাল আঠিয়া বাড়ি গ্রামের তিনটি বাড়ি লকডাউন করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লামইয়া সাইফুল। এনিয়ে পুরো উপজেলায় ৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়।


কুমিল্লা ১৭ উপজেলার করোনাভাইরাস আপডেট দেখতে এখানে ক্লিক করুন


অপরদিকে জেলা হিসেবে নাঙ্গলকোট উপজেলায় গড়ে ২ শত ৫০ জনের নমুনা সংগ্রহের কথা থাকলেও নেই কোন কার্যক্রম। শূন্যের কোটায় রয়েছে নমুনা সংগ্রহের তালিকা। এ পর্যন্ত ১ শত ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করেছন উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। যার মধ্যে ১ শত ২ জনের রিপোর্ট আসে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কিছু দিন পূর্বে ছলে আহম্মেদের ছেলে ইয়াছিন আরাফাত অসুস্থ হলে। তাকে ডাক্তার দেখানোর জন্য নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ী উপজেলা একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে মাঈনুল ইসলাম নামের এক ডাক্তার তাকে চিকিৎসা সেবা দেন।

পরে জানতে পরে ওই ডাক্তার করোনাভাইরাস সংক্রমণে আক্রান্ত হয়। ঘটনাটি এলাকায় জানা জানি হলে গত রোববার (১০-মে) নাঙ্গলকোট উপজেলা প্রশাসন ওই পরিবারের ৪ জন সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করে। এদের মধ্যে দুজনের রিপোর্ট পজিটিভ আর অন্য দুজনের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।

নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য বিষয় কর্মকর্তা ডাক্তার দেব দাস দেব নতুন কুমিল্লাকে জানান, গত রোববার (১০-মে) স্থানীয় লোকজন মারপথ জানতে পারি নোয়াখালী জেলার একজন করোনা আক্রান্ত ডাক্তারের কাছ থেকে চিকিৎসা নেন ছলে আহম্মেদের পরিবার। ওই দিনে ৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করি। ৪ জনের মধ্যে দু’জনের রিপোর্ট পজিটিভ ও অপর দু’জনের নেগেটিভ আসে।

এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট থানার অফিসার ইনচার্জ বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে তিনটি বাড়িটি লকডাউন করা হয়েছে। পাশাপাশি তাৎক্ষণিক পুলিশ পাঠিয়ে তাদেরকে নজরদারিতে রাখা হয়েছে। যাতে তারা পালাতে না পারে।

আরও পড়ুন