কুমিল্লা
রবিবার,২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৫ আশ্বিন, ১৪২৭ | ২ সফর, ১৪৪২

কুমিল্লায় অর্ধশত ছাত্রের মেস ভাড়া মওকুফ করায় মালিককে ক্যাম্পাস বার্তা’র শুভেচ্ছা

শতভাগ মেসভাড়া মওকুফ করার ঘোষণা দিয়েছেন মেস মালিক। বিশ্ব সংকটের এ সময়ে মানবতার এমন উদাহরণ দেখা গেছে কুমিল্লা শহরতলীর ধর্মপুরে। মেস ভাড়া মওকুফ করে শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আজ সোমবার (৮ জুন) তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানায় ভিক্টোরিয়া কলেজের একমাত্র মুখপত্র ক্যাম্পাস বার্তা’র সদস্যরা।

সূত্র জানায়, ভিক্টোরিয়া কলেজ ডিগ্রি শাখা সংলগ্ন ধর্মপুর ও আশোকতলায় (লন্ডনী হাউজ) মেসে প্রায় অর্ধশত শিক্ষার্থীর ও বিসিকে অবস্থিত একটি বাসায় দুই মাসের ভাড়া পুরোটাই মওকুফ করেন তিনি। এ উপলক্ষে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়েছেন ক্যাম্পাস বার্তা পরিবার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ক্যাম্পাস বার্তা’র বার্তা সম্পাদক মহিউদ্দিন আকাশ ও সম্পাদনা সহযোগী শরীফ খান প্রমুখ।

এমেসের বাসিন্দা আ. হান্নান ফেসবুকে লিখেছেন, আমি এ মেসে পাঁচ বছর আছি। আমাদের বাসার মালিক কোনওদিন ভাড়ার জন্য চাপ দেননি। করোনাকালীন ভাড়া মওকুফ করে বলে গেছেন, কারও কোন ব্যক্তিগত গত সমস্যা থাকলে ওনার সাথে যোগাযোগ করতে। এছাড়াও তিনি আরও একটি বাসা ও একটি মেস ভাড়া মওকুফ করেছেন।

লন্ডনী হাউজের মালিক মাহবুবুর রহমান আলমগীরের ছোট (শ্যালক) ভাই মো. আশরাফুল আলম বলেন, আমার ভগ্নিপতি স্বপরিবারের আয়ারল্যান্ড থাকেন। তার সকল কিছু আমি দেখাশোনা করি। রবিবার রাতেও কল দিয়ে বলছেন, যদি মেস সদস্য বা বাসার ভাড়াটিয়ার কোনও সমস্যা থাকে, জানানোর জন্য। এমনকি কারও দৈনন্দিন কাঁচাবাজার করতেও সমস্যা হয়, এ বিষয়টিও তাকে জানাতে।

সত্যি বলতে, মাহবুব ভাইয়ের মন অনেক ভালো। আল্লাহ যা দিয়েছেন, তা নিয়ে নিজের সাধ্যমত মানুষের কল্যাণে কাজ করতে চান। তিনি পরিবারের সদস্যদের জন্য দোয়া প্রার্থী।

উল্লেখ্য, গত ১৭ মে করোনাকালীন মেস ভাড়া মওকুফের জন্য শিক্ষার্থীদের পক্ষে অধ্যক্ষ বরাবর আবেদন করেন ক্যাম্পাস বার্তা সম্পাদক মাহদী হাসান। এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ১৯ মে জেলা প্রশাসকের নিকট চিঠি প্রেরণ করেন কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. রুহুল আমিন ভূইয়া। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনও জেলা প্রশাসকের নিকট এবিষয়ে আবেদন করেছেন।

অন্যদিকে, মেস ভাড়ার জন্য ৬ ছাত্রীকে আটকের পর ৯৯৯ নম্বর কল দিলে তাদের পুলিশ উদ্ধার করে। ধর্মপুরের এক মেসে ভাড়ার জন্য ছাত্রদের মোবাইল আটকের খবর পাওয়া গেছে। একাধিক শিক্ষার্থী জানিয়েছেন বিকাশে টাকা পাঠানোর জন্য বাসার মালিক প্রতিনিয়তই কল দিয়ে হুমকি ও চাপ সৃষ্টি করছেন। ইতোমধ্যে কয়েকজন বাসা’র (মেস) মালিক আংশিক ভাড়া মওকুফ করেছেন।

আরও পড়ুন