কুমিল্লা
শুক্রবার,২ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৭ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১৩ সফর, ১৪৪২

সংখ্যালঘু মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎকে জানে মারার হুমকি দিয়ে বিএনপি নেতার হামলা

দাউদকান্দি উপজেলা মানচিত্র

এবার সংখ্যালঘু মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায়কে জানে মারার হুমকি দিয়ে মারতে তেড়ে আসে স্থানীয় বিএনপি নেতা মজিবুর রহমান ভূঁইয়া।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে নিজের পৈত্রিক জমিতে বৃক্ষরোপণ করতে গেলে বুধবার (২৪ জুন) সকালে মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায়কে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মারতে আসে মজিবুর। স্থানীয়দের বাধার কারণে এ যাত্রায় প্রাণে বেচে যান একাত্তরের বীর যোদ্ধা রনজিৎ রায়।

গত রবিবার কুমিল্লার দাউদকান্দির বারপাড়া ইউনিয়নের বারইকান্দি গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায়ের বাড়ির জমিতে ঢোকার প্রবেশপথ বন্ধ করে বেড়া দিয়েছিল বিএনপি নেতা মজিবুর রহমান ভূঁইয়া। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে বেড়াটি সরানো হয়।

https://www.facebook.com/adsfarmbd/

এর আগেও মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায় এবং উনার কাকাতো ভাই নিত্যানন্দ রায়ের জমিতে ধর্মীয় স্থাপনা এবং দেয়াল নির্মাণ করেছে ওই বিএনপি নেতা। তাছাড়া গত বছর রনজিৎ রায়ের কাকাতো ভাই নিত্যানন্দ রায়ের বসতবাড়ি গাছাপালাসহ সাবাড় করেছিল ভূমিদস্যু ওই বিএনপি নেতা মজিুর। এ ঘটনায় নিত্যানন্দ রায়ের ছেলে নির্মল রায় দাউদকান্দি থানায় একটি মামলা দায়ের করেছিল। এ মামলায় মজিবুর রহমাহনকে প্রধান আসামী করে পুলিশ চার্জশিটও দিয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায় এবং উনার কাকাতো ভাই নিত্যানন্দ রায়ের জমি দখলে নিতে দীর্ঘদিন ধরেই অপচেষ্টা চালাচ্ছে স্থানীয় বিএনপি নেতা মজিবুর রহমান ভূঁইয়া।

মামলা দায়েরের পর থানা-পুলিশের হস্তক্ষেপে মুজিব কিছুদিন চুপ ছিলো। তবে দেশে করোনা মহামারীর এই ক্রান্তিলগ্নে ভূমিদস্যু মজিবুর নতুন করে জমি দখলের পায়তারা শুরু করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় মুক্তিযোদ্ধার জমির প্রবেশপথে টিনের বেড়া দেওয়ার পর আজ মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায়কে জানে মারার হুমকি দিয়ে তেড়ে আসে মজিবুর।

ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ রায় জানিয়েছেন, “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী তথা ‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে সারা দেশে বৃক্ষরোপণের নির্দেশ দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই নির্দেশনা মেনেই আমার বসতবাড়ির অব্যবহৃত জমিতে বৃক্ষরোপনের প্রস্তুতি নিয়েছিলাম।

স্থানীয় একজনকে দিয়ে জমিতে গর্ত করে রবিবার সকালে সেই গর্তে আরও কিছু কাজ করা হয়েছিল। কিন্তু পরে জানতে পারি, মুজিব আমার বাড়ির প্রবেশপথ বন্ধ করে বেড়া নির্মান করেছে। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে বেড়াটি সরানো হয়। তবে আজ বুধবার পুনরায় বৃক্ষরোপন করতে গেলে মুজিব জানে মারার হুমকি দিয়ে আমাকে মারতে আসে। স্থানীয়দের সাহায্যে আমি কোনমতে বেচে ফিরে আসি।”

রনজিৎ রায় আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর ডাকে দেশের জন্য যুদ্ধ করেছি। তার কন্যা জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে নিজের অব্যবহৃত জমিতে বৃক্ষরোপন করছিলাম। কিন্ত মজিবুর জমি দখল করতে না পেরে আমাকে জানে মারতে আসে। এই স্বাধীন দেশে আমাকে এই দিনই দেখতে হলো? এর আগেও মজিবুর আমার বাড়ির জমি ও আমার মায়ের সমাধির জায়গা দখল দেয়াল ও ধর্মীয় স্থাপনা বানিয়েছে। নিজের বসত ভিটা থাকার পরও আমি ভয়ে সেখানে থাকতে পারি না।

অন্যের জায়গায় ভাড়া থাকি। নিত্যানন্দ রায়ের ছেলে নির্মল রায়ের করা মামলায় স্বাক্ষী হওয়ায় মজিবুর আমাদের বিরুদ্ধে কোর্টে মিথ্যা অভিুযোগ এনে চাদাবাজির মামলায় করেছে। এ মামলায় আমায় দুই ছেলেকেও আসামী করেছে। মূলত আমার ও কাকাতো ভাইয়ের জমি দখলের জন্যই দীর্ধদিন ধরে সে আমাদের পরিবারের উপর নানারকম অবর্ণনীয় অত্যাচার করে আসছে।”

আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাকে জানে মারার হুমকি দিয়ে মারতে আসার ও দীর্ঘদিন ধরে আমার পরিবারের উপর চালানো অত্যাচারের বিচার চাই।

এ বিষয়ে বারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনির তালুকদার বলেন, মুজিবুর রহমান ভূঁইয়ার সঙ্গে রনজিৎ রায় ও তার চাচাতো ভাই নিত্যানন্দ রায়ের কয়েক বছর ধরে সম্পত্তি নিয়ে মামলা মোকদ্দমা চলে আসছে। এছাড়াও তিনি আরো কয়েকটি হিন্দু পরিবারের জায়গাজমি কিনে টাকা না দিয়ে তাদের উৎখাত করারও অভিযোগ রয়েছে।
তবে এ ব্যাপারে আদালতের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত এনপি নেতা মুজিবুর রহমান ভুঁইয়া বলেন, আদালতে মামলা চলমান থাকা অবস্থায় রনজিৎ রায় ও তার চাচাতো ভাই নিত্যানন্দ রায় আমার জায়গা জোরপূর্বক গাছা লাগাতে চায়। ১৯৯৫ সালে জমিটি তাদের থেকে কিনে নিই আমি। এনিয়ে আদালতে একটি মামলা বিচারাধিন।

আরও পড়ুন