কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৪ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ আষাঢ়, ১৪২৮ | ১৩ জিলকদ, ১৪৪২

বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী ছিলেন ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া

ইঞ্জি. মো. আব্দুস সবুর

বাংলাদেশের একজন খ্যাতনামা পরমাণু বিজ্ঞানী ছিলেন ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া। বাঙালি জাতির এক গর্বিত ও আলোকিত মানুষ ছিলেন এই পরমাণু বিজ্ঞানী। ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া দেশ-মাটি ও মানুষের প্রতিনিধিত্বকারী শ্রেষ্ঠ সন্তান ছিলেন, তিনি সুধা মিয়া নামেও পরিচিত ছিলেন। তাঁর পেশাগত জীবন, বৈবাহিক জীবন এবং মৃত্যুপূর্ব পর্যন্ত তার পদচারণা ছিল উল্লেখযোগ্য। ১/১১ সময় তখনকার তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমাদের জননেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করেছিল এবং তখন ওয়াজেদ মিয়াকেও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়েছিল। আমি মনে করি তখনকার সময়ে তার উপর যে নির্যাতন চালানো হয়েছিল তার আল্টিমেট ফসল হচ্ছে তার মৃত্যুবরণ।

ভোরের পাতার নিয়মিত আয়োজন ভোরের পাতা সংলাপের ৩৩৪তম পর্বে রোববার (৯ মে) আলোচক হিসেবে উপস্থিত হয়ে এসব কথা বলেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. আব্দুস সবুর, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুরের উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের চেয়ারম্যান, প্রগতিশীল শিক্ষক সংগঠন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (নীলদল) সভাপতি, লাইফ এন্ড আর্থ সাইন্স অনুষদের প্রাক্তন ডিন অধ্যাপক ড. জাকারিয়া মিয়া। দৈনিক ভোরের পাতা সম্পাদক ও প্রকাশক ড. কাজী এরতেজা হাসানের পরিকল্পনা ও নির্দেশনায় অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ভোরের পাতার সিনিয়র রিপোর্টার উৎপল দাস।

ইঞ্জিনিয়ার মো. আব্দুস সবুর বলেন, প্রথমেই আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বামী, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ জামাতা ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ১২তম মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। পাশাপাশি আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি এই ধরনের একটি সুন্দর অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য। বাংলাদেশের একজন খ্যাতনামা পরমাণু বিজ্ঞানী ছিলেন ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া। বাঙালি জাতির এক গর্বিত ও আলোকিত মানুষের নাম ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া। এক বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের অধিকারী ছিলেন এই পরমাণু বিজ্ঞানী। ক্ষমতার শীর্ষ পর্যায়ে থেকেও তার নির্মোহ জীবনযাপন তাকে জাতির কাছে করেছে চির অমর। ১৯৪২ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার ফতেহপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন ড. ওয়াজেদ মিয়া। ২০০৯ সালের ৯ মে ৬৭ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন মেধাবী এই মানুষটি।

মাত্র ৬৭ বছর ২ মাস তিনি জীবিত ছিলেন। ১/১১ সময় যখন তখনকার তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমাদের জননেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করেছিল এবং তখন ওয়াজেদ মিয়াকেও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়েছিল। আমি মনে করি তখনকার সময়ে তার উপর যে নির্যাতন চালানো হয়েছিল তার আল্টিমেট ফসল হচ্ছে তার মৃত্যুবরণ। না হলে তাকে হয়তো আমরা আরও অনেক দিন পেতাম, জাতিও তার কাছ থেকে আরও অনেক কিছু পেতো। অত্যন্ত বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী ছিলেন এম এ ওয়াজেদ মিয়া। ১৯৫৬ সালে রংপুর জিলা স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করার পর ১৯৫৮ সালে রাজশাহী সরকারি কলেজ থেকে কৃতিত্বের সহিত ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন। ১৯৬২ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে থেকে পদার্থবিজ্ঞানে এমএসসি পাস করেন।

১৯৬৭ সালে লন্ডনের ডারহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করেন। তার প্রথম সন্তান ডিজিটাল বাংলাদেশের আর্কিটেক্ট ও বিশিষ্ট তথ্যপ্রযুক্তিবিধ সজীব ওয়াজেদ জয়। ১৯৬১ সালে তিনি ছাত্রলীগের অংশগ্রহণ করেন। তিনি একদিকে যেমন রাজনীতি জীবনে সক্রিয় ছিলেন ঠিক একইভাবে তিনি তার প্রফেশনাল জীবনে সর্বোচ্চ শিখরে পৌঁছান। ১৯৬১-৬২ শিক্ষা বছরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক মুসলিম হল ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হন তিনি। এইভাবে তিনি নিজেকে বিকশিত করেছেন এবং আমি মনে করি আগামী প্রজন্মের জন্য তিনি একজন উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবেন।

আরও পড়ুন