কুমিল্লা
বুধবার,২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৭ আশ্বিন, ১৪২৮ | ১৪ সফর, ১৪৪৩

মহিলাদের তল্লাশী

মহিলাদের তল্লাশীর ক্ষেত্রে অন্য একজন মহিলা দিয়ে অবশ্যই তল্লাশী করতে হবে। (ধারা-৫২) আর তল্লাশীর ক্ষেত্রে পুলিশ ফৌজদারী কার্যবিধির ১০২ এবং ১০৩ অনুসারে ব্যবস্থা নিবেন। সেক্ষেত্রে তল্লাশী করার পূর্বে পুলিশ দুই বা তার অধিক সংশ্লিষ্ট এলাকার সাক্ষী উপস্থিত রাখবেন এবং যে সমস্ত দ্রব্যাদি পাবেন তার তালিকা করে তাদের স্বাক্ষর নেবেন এবং উক্ত তালিকা যার দখলীয় স্থান বা যার নিকট হতে পাওয়া যাবে তার অনুরোধে তার নিকট অবশ্যই একটি কপি প্রদান করতে হবে।

আটককৃত মালের তিন কপি তালিকা প্রণয়ন করতে হয়। এক কপি তদন্তকারী কর্মকর্তা, আরেক কপি যার বাড়ী হতে উদ্ধার করা হয়েছে তাকে বা তার প্রতিনিধিকে এবং অন্য কপি কোর্ট ইন্সপেক্টর এর মাধ্যমে ম্যাজিস্ট্রেট বরাবর উপস্থাপন করতে হয়। সার্চ ওয়ারেন্ট সহ বা ওয়ারেন্ট ব্যতিত তল্লাশী হয়। ওয়ারেন্ট যিনি কার্যকর করবেন তাকে সম্পূর্ণরুপে সকল সন্দেহের উর্ধ্বে থাকতে হবে। যুক্তিসঙ্গতভাবে সন্দেহ হলে পুলিশ অফিসার তার ডায়েরীতে উল্লেখ পূর্বক তল্লাশী পরিচালনা করতে পারেন। সেক্ষেত্রে ওয়ারেন্টের দরকার হয় না।

তদন্তকারী কর্মকর্তা এক থানা হতে অন্য থানায় তল্লাশীর জন্য রিকুইজিশান দিতে পারেন। রিকুইজিশন অনুমোদনে দেরী হচ্ছে মনে হলে সরাসরি তল্লাশী করা যাবে। সেক্ষেত্রে একটি নোটিশ ঐ থানার অফিসার ইনচার্জকে দিবেন এবং একই সংগে জব্দতালিকার একটি কপি ঐ এলাকার অফিসার ইনচার্জ ও ম্যাজিস্ট্রেটকে পাঠাতে বাধ্য থাকবেন। কোন ব্যক্তি উক্ত তল্লাশীতে হাজির না হলে বা সাক্ষী না থাকলে সে দন্ডবিধির ১৮৭ ধারা আইন অনুসারে কোন সরকারী কর্মকর্তাকে সহযোগিতা না করার অপরাধে অপরাধী হবেন। আর সকল ক্ষেত্রে তল্লাশীর জব্দতালিকার একটি কপি যে ম্যাজিস্ট্রেট আমল গ্রহণ করেন তার নিকট একটি কপি অবশ্যই পাঠাতে হবে। পুলিশ না দিলে উক্ত কপি তল্লাশীকৃত স্থানের মালিক বা দখলকার আবেদন করলে ম্যাজিস্ট্রেট তাকে মূল্য দিয়ে বা মূল্য ছাড়া সরবরাহ করতে পারেন।

আর তদন্তের প্রয়োজনে আমলযোগ্য মামলায় পুলিশ যে কাউকে গ্রেফতার করতে পারেন। তবে মনে রাখতে হবে আগে সাক্ষ্য সংগ্রহ পরে ১৬৭ (১) অনুসারে গ্রেফতার করতে হয়। বিনা কারনে কাউকে গ্রেফতার উচিত নয়। এজন্য তদন্তকারী কর্মকর্তা মাজিস্ট্রেটের নিকট জবাবদিহিতার মধ্যে পড়তে পারেন।

আর এভাবেই উপরোক্ত প্রক্রিয়া অবলম্বন করে পুলিশ ফৌজদারী কার্যবিধির ১৭৩ ধারা অনুসারে, পক্ষদের নাম, তথ্যের ধরন, সাক্ষীদের নাম ও সাক্ষ্য, আসামীদের নাম, মালামাল সহ পিআরবি অনুসারে ঘটনাস্থলের স্ক্যাচম্যাপ, খসড়ামানচিত্র সূচী এবং অন্যান্য সাক্ষ্য সহ কার বিরুদ্ধে কি অপরাধ সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখপূর্বক আদালতে রিপোর্ট প্রদান করবেন যাতে ম্যাজিস্ট্রেট ধারা ১৯০(১) অনুসারে মামলা আমলে নিতে পারেন। পুলিশ একই সাথে বাদীকেও মামলার ফলাফল জানাবেন। তবে রিপোর্ট দেয়ার পরও থানার অফিসার ইনচার্জ অতিরিক্ত সাক্ষ্য পেলে (মৌখিক বা দালিলিক) একটি অধিকতর রিপোর্ট প্রদান করতে পারবেন কিন্তুু তাও বাদীকে জানাবেন। আর আসামী দরখাস্তের ভিত্তিতে এ রিপোর্টের একটি কপি পেতে হকদার হয়।

পুলিশ যথাযথ তদন্ত করলে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৬৭(১) ধারা অনুসারে ২৪ ঘন্টায় শেষ করতে না পারলে পিআরবির ২৬১(সি) এর প্রবিধান অনুসারে সর্বোচ্চ ১৫ পনের দিনের মধ্যে পুলিশ তদন্তÍ শেষ করতে পারে। পুলিশ সাক্ষ্য গ্রহণে ও তল্লাশি সংক্রান্তে তার ক্ষমতাও সীমাবদ্ধতা জেনে তদন্ত করলে, সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩৫(৩) অনুসারে দ্রত তদন্ত ও বিচারের মাধ্যমে ন্যায় বিচার নিশ্চিত হবে।

লেখক: সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, কুমিল্লা।

আরও পড়ুন