কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৮ আশ্বিন, ১৪২৮ | ১৫ সফর, ১৪৪৩

‘মাঠ পর্যায়ে রাজনীতি করে প্রিয়তমা স্ত্রীকে হারিয়েছি’

বৈষিক করোনা মহামারীর প্রথম দিকে সরকার ঘোষিত লকডাউন থাকা অবস্থায় মানুষের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল) এমপির ত্রাণ তহবিল ও নিজস্ব তহবিল থেকে খাদ্য সহয়তা সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছি। কখন যানি নিজ প্রিয়তম স্ত্রীসহ পুরো পরিবার করোনা আক্রন্ত হই, নিজেও জানি না। কয়েক দিন পরই প্রিয়তম স্ত্রী জোহরা আক্তার পাখি মৃত্যুবরণ করেন। করোনাকালীন সময়ে এলাকা ছেড়ে একদিনের জন্য কথাও যায়নি। মানুষের দুঃখ কষ্ট বুঝি। মানুষের সুখ দুঃখে সব সময় পাশে ছিলান এবং ভবিষ্যতেও থাকবো। নতুন কুমিল্লাকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে ভারাক্রান্ত কন্ঠে এ সব কথা বলেন কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সামছু উদ্দিন কালু।

নতুন কুমিল্লাকে তিনি বলেন, আমি একজন সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান। আমার বাবা হাজী আলী আকবর যুদ্ধকালিন সময়রে বিভিন্ন ভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা করেছেন। সব সময় মানুষের সেবা করতেন তিনি। অনার মতোন আমিও মানুষের পাশে থেকে সেবা করে যাচ্ছি। এখনো প্রতিদিন দেন-দরবার থেকে শুরু করে সব ধরণের সহযোগিতা করতে হয়। আমার দীর্ঘদিনের এ রাজনীতির পথ চলাকে গতিরোধ করার জন্য ও আমার পরিবারের সুনাম নষ্ট করার জন্য যারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইজবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে অপপ্রচার চালাচ্ছেন এটি ঠিক নয়। আপনারা এ পথ থেকে সরে আসুন। মন্ত্রীর আস্থাবাজন হয়ে এলাকার মানুষের জনপ্রিয়তা অর্জন করে সকল ভেদাভেদ ভুলে দলকে ভালোবেসে সবাই একসাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করি। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা ও অর্থ মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের হাতকে আরো শক্তিশালী করি।

সামছু উদ্দিন কালু আরও বলেন, ১৯৮১ সালে পশ্চিমগাঁও কলেজে পড়া অবস্থায় ছাত্রলীগের সাথে জড়িত হয়ে রাজনীতি শুরু করি। পরে নাঙ্গলকোট থানা হওয়ার প্রথম দিকে থানা যুবলীগের প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করি। ওই সময় আওয়ামী লীগের অনেক গ্রুপিং থাকায় অভিমান করে রাজনীতি থেকে দূরে সরে যাই। ১৯৯০ সালে বেগম জামিলা বিদ্যালয়ের নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে বিপুল ভোটে প্রথম ম্যানেজিং কমিটির সদস্য নির্বাচিত হই। পরে তিনি ১৯৯১ সালে নাঙ্গলকোট এ আর হাই স্কুল ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে ৩৩০ ভোট পেয়ে জয় লাভ করি।

তিনি বলেন, ১৯৯৩ সালে নাঙ্গলকোট ইউনিয়ন পরিষদ বির্বাচনে চেয়ারম্যান পদ স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তৎকালীন সময়ে বিএনপির বিরুদ্ধে নির্বাচন করে তিনি প্রথম চেয়ারম্যান পদে জয় লাভ করি। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি বিএনপি সরকারের আমলে আমার বাড়িতে রাতের আন্ধারে অস্ত্র রেখে আসে বিএনপির লোকজন। পরে সেনাবাহিনীর মাধ্য তারা আমাকে গ্রেফতার করান। খবরটি মুহুর্তের মধ্যে চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে এলাকার সকল শ্রেণীর মানুষ থানা অবরোধ আমার মুক্তি দাবী করেন। তাৎক্ষণিক এ ঘটনাটি উর্ধতন কর্তৃপক্ষ তদন্ত করে মিথ্যা প্রমাণীত হলে আমাকে মুক্তি দেন। ১৯৯৭ সালে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর আমি দ্বিতীয় বার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে বিপুল ভোটে জয় লাভ করি।

এদিকে, ২০০২ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর নাঙ্গলকোট ইউপির এক অংশকে পৌরসভা ঘোষণা করেন। যার দায়িত্বে থাকেন অধ্যক্ষ নুরুল্লাহ মজুমদার। আর বাঁকি অংশের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে সামছু উদ্দিন কালু। ২০০৬ সালে দলীয় কাউন্সিলিং ভোটের মাধ্যমে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট লিটন ও কালু সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন। দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে সুসংগঠিত একটি কমিটি গঠন করে ছত্রলীগ, যুবলীগ সহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীদের নিয়ে বিএনপির-জামায়াত জোট সরকারের আমলে রাজ পথে অনেক আন্দোলন সংগ্রহ, মিছিল মিটিং করেন। আন্দোলন শেষে নেতা কর্মীরা তার বাড়িতে খাবান খান। যা প্রতিদিন হাজার হাজার দলীয় নেতাকর্মীরা খাবার খেতেন।

২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার যখন আজকের দিনের প্রধানমন্ত্রী ও অর্থ মন্ত্রীকে জেলে নিয়ে যায় তখন থেকেই রাজ পথে থেকে আন্দোলন করি। এতে প্রিয় পাত্র হই আ হ ম মুস্তফা কামাল লোটাস কামালের। ২০০৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লোটাস কামাল দলীয় মনোনয়ন পান। সেই থেকে মাঠে ময়দানে কাজ করে ওনাকে এমপি হিসেবে জয়যুক্ত করি। পরে যখন ২০০৯ সালে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচন আসে। তখন তিনি দল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। কিন্তু দল তাকে মনোনয়ন দেননি। পরে তিনি ২০১১ সালে পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পান। যা তিনি বিপুল ভোটে জয় লাভ করে প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন।

সামছু উদ্দিন কালু বলেন, মেয়র দায়িত্বে থাকা অবস্থায় ২০১২-১৩ সালে সারাদেশে যুদ্ধ অপরাধী বিচার শুরু হলে বিএনপি-জামায়াত তীব্র আন্দোলন শুরু হয়। সেই সাথে পেট্রল বোমা মেরে মানুষ পুড়িয়ে মারার রাজনীতি করে এ বিএনপি-জমায়েত সরকার। সেই দিন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে নাঙ্গলকোটের রাজ পথে মিছিল মিটিং করেন। প্রতিদিন হাজার হাজার নেতাকর্মী অনার বাড়িতে খাবার খেয়ে এ মিছিল মিটিং করতো। পাশাপাশি কমিটি গঠন করে রেললাইন পাহার দিতেন। একদিনের জন্য নাঙ্গলকোটের রাজ পথ ছাড়েনি। এতে তিনি কর্মীবান্ধপ নেতা হিসেবে নাঙ্গলকোটে পরিচিতি লাভ করেন। আস্থা অর্জন করেন প্রিয় নেতা লোটাস কামালের। আড়াই বছর মেয়েরের দায়িত্ব পালন করেন।

২০১৪ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আবারও লোটাস কামালকে বিপুল ভোটে জয় হন। পরে আওয়ামীলীগ সরকার গঠন হওয়ার পর তিনি পরিকল্পনা মন্ত্রীর দায়িত্ব পান। যা ছিলো নাঙ্গলকোটের ইতিহাসে তিনিই প্রথম। পাল্ট যায় নাঙ্গলকোটের রপরেখা। পরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ঘোষণা হলে। পরিকল্পনা মন্ত্রীর আস্থাবাজন হিসেবে তিনি দলীয় মনোনয়ন পেলে মেয়র পদ ছেড়ে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে বিপুল ভোটে জয় লাভ করেন তিনি। শপথ নেয়ার পর থেকে নিতি পরিকল্পনামন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী অবহেলিত জনপদের রাস্তা ঘাট, পোল কালভার্ট, স্কুল কলেজ, মাদ্রাসা ও শতভাগ বিদ্যুতায়নের কাজ করেন।

তিনি আরও বলেন, ২০১৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচন এলাকায় এলাকায় পথসভায় করেন এবং বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষের কাছে প্রিয় নেতা লোটাস কামালের জন্য ভোট চান। ওই নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয় লাভ করেন লোটাস কামাল। পরে তিনি পরিকল্পনা মন্ত্রী থেকে অর্থ মন্ত্রীর দায়িত্ব পান। যা নাঙ্গলকোট নয় পুরো কুমিল্লা জেলার মধ্যে তিনিই প্রথম অর্থ মন্ত্রী।

পরে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের ঘোষণা হয়। পুনরায় তিনিই অর্থ মন্ত্রীর আস্থাবাজন হয়ে দলীয় মনোনয়ন পান। এ নির্বাচনে বিপুল ভোট তিনি জয় লাভ করেন তিনি। এরপর থেকে বর্তমান পর্যন্ত অর্থ মন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী নাঙ্গলকোট উপজেলায় ব্যাপক উন্নয়ন কাজ হয়েছে। যা এ অবহিত ৫ লাখ জনগোষ্টিকে ৫০ বছর এগিয়ে দিয়েছেন এ লোটাস কামাল।

আরও পড়ুন