কুমিল্লা
শনিবার,১ অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১৬ আশ্বিন, ১৪২৯ | ৪ রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

কুমেকে সাংবাদিক অমিতকে মারধরের অভিযোগ

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে (কুমেক) সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে অমিত মজুমদামদারকে মারধর ও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে এক ওয়ার্ড মাস্টারের বিরুদ্ধে। এ ঘটানা তদন্ত করে অভিযুক্ত ওয়ার্ড মাস্টারের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানালেন হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ডা. রেজাউল করিম।

সোমবার (৫ জুলাই) বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে মেডিকেল কলেজের করোনা ইউনিটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। সাংবাদিক অমিত মজুমদামদার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ঢাকা পোষ্টের কুমিল্লা সংবাদদাতা। এ ছাড়াও তিনি স্থানীয় নিউজপোর্টাল জাগো কুমিল্লার সম্পাদক।

সাংবাদিক অমিত নতুন কুমিল্লাকে জানান, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে সংবাদ সংগ্রহের জন্য যান। হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক থেকে অনুমতি নিয়ে তিনি করোনা ইউনিটের সামনে দাঁড়িয়ে ছবি তোলতে চাইলে ওয়ার্ড মাস্টার আক্তার আমাকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতে থাকেন। এ পর্যায়ে আমাকে মারপিঠ করেন এবং ক্যামরা চিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। পরে উপস্থিত আনসার সদস্যরা তাকে উদ্ধার করেন বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ওয়ার্ড মাস্টার আক্তার জাগো নিউজকে বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পন্ন মিথ্যা। ছবি না তুলে এখান থেকে তাকে চলে যেতে বলেছি।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ডা. রেজাউল করিম নতুন কুমিল্লাকে বলেন, অনাকাঙ্খিত যে ঘটনাটি ঘটেছে সে জন্য আমি দুঃপ্রকাশ করছি। ঘটানাটি তদন্ত করে ওয়ার্ড মাস্টার আক্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

কুমিল্লার সিভিল সার্জন মীর মোবারক হোসাইন নতুন কুমিল্লাকে বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক। তবে করোনা ইউনিটের ছবি সংগ্রহ করার আগে স্বাস্থ্য বিভাগের রুল ফলো করা উচিত। কিন্তু হুট করে সাংবাদিককে মারধর বা লাঞ্ছনার ঘটনা ঠিক হয়নি। এটা মেডিক্যালের বিষয়; আমার কাছে বিষয়টি আসলে খতিয়ে দেখব।

আরও পড়ুন