কুমিল্লা
শনিবার,১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৩ আশ্বিন, ১৪২৮ | ১০ সফর, ১৪৪৩

বিধিনিষেধে কুমিল্লা নগরীতে বেড়েছে যানবাহন

করোনাভাইরাসের লাগাম টানতে সারাদেশে চলমান কঠোর বিধিনিষেধের ১৪তম দিনে কুমিল্লা নগরীতে যান চলাচল ও জনসমাগম বেড়েছে। গত কয়েকদিনের তুলনায় নগরীর টমছম ব্রিজ, কান্দিরপাড়, রানির বাজার, শাসনগাছা, রাজগঞ্জ, মোঘলটুলি ও চকবাজারসহ আশপাশের সড়কে বেড়েছে যানবাহনের চাপ। মানুষের উপস্থিতিও লক্ষ্য করা গেছে চোখে পড়ার মতো। এদের অধিকাশের মুখে নেই মাস্ক। যাদের রয়েছে তাদেরকেও সঠিক নিয়মে পরতে দেখা যায়নি।

নিত্যপ্রয়োজনীয় ও খাবারের দোকান ছাড়াও প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় কাপড়, কসমেটিক্স, স্টেশনারি ও কম্পিউটার দোকানসহ বিভিন্ন দোকানের সাটার খোলা রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নগরীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র।

সরেজমিনে দেখা যায়, টমছম ব্রিজ, কান্দিরপাড়, রানির বাজার, শাসনগাছা, রাজগঞ্জ, মোঘলটুলি ও চকবাজারসহ আশপাশের সড়কে ছিল যানবাহন ও মানুষের ভিড়। খোলা স্থানে কাঁচাবাজার বসানো হলেও কেউই মানছেন না সামাজিক দূরুত্ব। মাস্ক না পরে বাজার-সদাই করেতে দেখা গেছে অনেককে। গাদাগাদি করেই চলছে বেচাকেনা। ফুটপাতে দোকান খুলে বিক্রি করতে দেখা গেছে কাপড়-চোপড়। এছাড়াও অধিকাংশ মানুষই ঘর থেকে বের হচ্ছেন বিনা কারণেই।

রাজগঞ্জ বাজারের কাঁচামাল ব্যবসায়ি আবু তোরাব বলেন, ‘মানুষের মধ্যে উদাসিনতা দেখা যাচ্ছে। বেশির ভাগ মানুষই মাস্ক না পরে বাজার করতে আসেন। আমার মতে প্রশাসন আরও কঠোর হলে মানুষের মধ্যে ভয় কাজ করতো।’

কান্দিরপাড় এলাকায় জাহাঙ্গীর নামে এক যুবক জানান, টানা ঘর বন্ধি আর ভাল লাগছেনা। তাই লকডাইনের পরিস্থিতি বুঝতে আজ বের হলাম।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ভিক্টোরিয়া কলেজ রোডের এক কম্পিউটার ব্যবসায়ি জানান, করোনা পরিস্থিতির পর থেকে অর্থ সংকটে ভুগছি। লকডাইনেতো অবস্থা আরও খারপ। তাই এক সাটার খুলো কোনরকম ব্যবসা ছালিয়ে যাচ্ছি।

জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, সরকারি বিধিনিষেধ কার্যকরে ৪০জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা কাজ করছেন। যারা আইন অমান্য করছেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে ভ্রাম্যমাণ আদালতের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য, গত ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে সারাদেশে ১৪ দিনের কঠোর লকডাউন শুরু হয়। ৫ আগস্ট মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে চলমান বিধিনিষেধ আরও পাঁচদিন বাড়িয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। সে হিসাবে আগামী ১০ আগস্ট দিবাগত রাত ১২টা পর্যন্ত চলবে এ বিধিনিষেধ।

আরও পড়ুন